প্রথম পর্বের পোস্টমর্টেম

আহসান শামীম

রাশিয়া বিশ্বকাপই এ পর্যন্ত সবচেয়ে দামি বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য ভেন্যু প্রস্তুত করা, নতুন স্থাপনা তৈরি, আনুষঙ্গিক সকল ব্যয় মিলিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের খরচ পৌঁছে গেছে ১৪ বিলিয়ন ডলারে। বাংলাদেশের মুদ্রায় হিসাব করলে দাঁড়ায় প্রায় এক লাখ বারো হাজার কোটি টাকা।

অনেক অঘটনের জন্ম দিয়ে শেষ হয়েছে রাশিয়া বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব। বহু দেশের সমর্থকরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন। আবার নকআউট পর্ব নিশ্চিত করতে রীতিমত ঘাম ঝরেছে আর্জেন্টিনার মতো দলের। দারুণ সম্ভাবনা জাগিয়েও শীর্ষ ষোলো’তে জায়গা করতে পারেনি সেনেগাল। নাটকীয়ভাবে নকআউট পর্বে পৌঁছেছে এশিয়ার দল জাপান। আসরের সবচেয়ে বড় অঘটনটা ঘটেছে জার্মানির বিদায়ে।

‘‘জার্মানি দলকে এ বার ঘুম থেকে জাগিয়ে তোল। ওদের বলো বিশ্বকাপ শুরু হয়ে গিয়েছে।” মেক্সিকোর বিপক্ষে  ম্যাচ হারের জের-ঘরে, বাইরে বিধ্বস্ত বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানরা। জার্মানির হারের পরে সমালোচনার ঢেউ ক্রমাগত আছড়ে পরে ওয়াকিম লো-র দলের উদ্দেশে। জার্মান ফুটবল ভক্ত থেকে শুরু করে প্রাক্তন ফুটবলার, কেউই ছাড়েনি সমালোচনা করতে। তারপরও ঘুম ভাঙ্গেনি জার্মানদের। বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েও আরেকটি বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় প্রথম পর্যায়ের গ্রুপের গন্ডি পার হতে না পারার ঘটনার ইতিহাস নতুন না। ১৯৫০ আর ২০১০ সালে ইতালী, ১৯৬৬ সালে ব্রাজিল,২০০২ সালে ফ্রান্স আর ২০১৪ সালে স্পেনেরও এমন অভিজ্ঞতা আছে।

আফ্রিকানরা রাশিয়া থেকে ফিরেছে খালি হাতেই। শীর্ষ ষোলো’তে জায়গা হয়নি কোনো আফ্রিকান দলেরই। অনেক প্রত্যাশা থাকলেও, তা পূরণে ব্যর্থ মোহাম্মদ সালাহ’র মিশর।রাশিয়া বিশ্বকাপে চরম ব্যর্থতায় বিপর্যস্ত মিশর ফুটবল দল। এছাড়া সৌদি আরবের কাছে হারার দিন শোকে স্ট্রোক করে মারা গেছেন সাবেক কোচ। এরপরই ব্যর্থতার দায় কাঁধে নিয়ে নিজের পদত্যাগের ঘোষনা দিয়েছেন মিশরের কোচ হেক্টর কুপার।

আর্জেন্টিনাও কোনো রকমে হিসাব নিকাশের সব অঙ্ক মিলিয়ে পার হয়েছে প্রথম রাউন্ডে। নক-আউট পর্ব নিশ্চিত করতে জটিল সমীকরণ ছিলো গ্রুপ এইচেও। পোল্যান্ডকে হারিয়ে সেনেগালের উদ্যমী শুরুটা শেষ পর্যন্ত ম্লান হয়েছে ভাগ্যের মারপ্যাঁচে। এশিয়ার একমাত্র দল হিসেবে এই গ্রুপ থেকেশীর্ষ ষোলতে পৌঁছেছে জাপান। পয়েন্ট আর গোল ব্যবধান সমান থাকায় ফেয়ার প্লে’র হিসেবে সেনেগালকে পেছনে ফেলে নকআউট পর্বের টিকিট কাটে ব্লু সামুরাইরা।

বিশ্বকাপের ইতিহাসে ফেয়ার প্লের বিবেচনায় কোনো দলের বাদ পড়া বা পরের রাউন্ডের যাওয়ার ঘটনা এবারই প্রথম। সেনেগাল হলুদ কার্ড পেয়েছে ১২ টা আর জাপান ঝুলিতে ৪টা।

রেফারি প্রযুক্তির সাহায্য না-নেওয়ার খেসারত দিতে হয়েছে ইরান, ব্রাজিল, মিশরেকে। রেফারি কারণেই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ইরান। সেটা না হলে স্পেনের মত আরেক ফেভারিট দলকেও বাদ পড়তে হতো গ্রুপের প্রথম পর্যায় থেকে।ম্যাচ শুরু হওয়ার মাত্র ১৩ সেকেন্ডেই হলুদ কার্ড দেখে রেকর্ড বইয়ে নাম লেখালেন মেক্সিকোর হেসাস গাইয়ারদো।

সুইডেনের প্রথম রাউন্ডের  ৪৮ ম্যাচে ৪৮ জন ম্যাচ সেরা হয়নি। এদের মধ্যে ৬ জন দুইবার করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন। তারা হলেন, পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, ক্রোয়েশিয়ার লুকা মড্রিচ, উরুগুয়ের লুইস সুয়ারেজ, ব্রাজিলের ফিলিপে কুতিনহো, ইংল্যান্ডের হ্যারি কেন ও স্বাগতিক রাশিয়ার ডেনিস চেরিশেভ। গোল করে ম্যাচসেরা হওয়ার পাশপাশি গোল থামিয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার গোলরক্ষক জো হিউন উ।জার্মানদের বিপক্ষে ম্যাচে সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব দক্ষিণ কোরিয়ার গোলরক্ষক জো হিউন উ’র।সেই ম্যাচেই সেরার পুরস্কার উঠে তার হাতে।

প্রথম পর্বে এবারের বিশ্বকাপে বড় দলগুলোর চেয়ে বেশি এগিয়ে ছিল তুলনামূলক ছোট দলগুলো।পাশাপাশি বিশ্বের সেরা খেলোয়ারদেরও টপকে গেছে অনেকেই। বিশ্বকাপে ব্যক্তিগত সর্ব্বোচ্চ গোলদাতার দৌড়ে এগিয়ে আছে ইংল্যান্ডের হ্যারি ক্যান করেছেন হ্যাট্রিক সহ ৫ গোল।বেলজিয়ামের রমেলু লুকাকুও  ক্যানের পরেই অবস্থান। শেষ ম্যাচে তাকে বিশ্রামে রাখা হয়। আগের ২ ম্যাচে তিনি করেছেন ৪ গোল। ৩ ম্যাচ খেলে পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো বিশ্বের সেরা

পর্তুগিজ তারকা ৪ গোল করে রয়েছেন তৃতীয় স্থানে । তিনি স্পেনের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেই করেছেন হ্যাটট্রিক। ৩ গোল করেছেন স্বাগতিক রাশিয়ার দেনিস চেরিশভ ও স্পেনের দিয়েগো কস্তা।

ছবিঃ ফুটবল টুইট