ফিল্ম পাড়ার গোপন গল্প

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্ক্যান্ডালে কান দিতে নেই।তবুও আমরা নাকটা ওখানেই গলিয়ে ফেলি।আড্ডার টেবিলে টপিক করে টেনে আনি।বাঙালীর এতেই প্রচুর সুখ।সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে আবার স্ক্যান্ডালের রকমফের আছে।সাধারণ মানুষের জীবনে স্ক্যান্ডাল ডালপালা বেশীদূর ছড়ায় না।স্বজন আর প্রতিবেশীর মধ্যেই এগোয়।রাজনীতি আর মিডিয়ার স্ক্যান্ডাল গোটা সমাজে হাওয়া ছড়ায়।বাতাসে বাতাসে ভেসে বেড়ায়।শোনা যায় চলচ্চিত্র জগতে কারো স্ক্যান্ডাল ছড়ালে নাকি রাতারাতি  জনপ্রিয়তা পাওয়া যায়।বৃহস্পতিও থাকে তুঙ্গে।আমাদের চলচ্চিত্র জগতটা অনেক বড় না হলেও এক সময় এ তল্লাটের স্ক্যান্ডাল নিয়ে সাধারন মানুষের মাথাব্যথা ছিলো প্রচন্ড।

স্বাধীনতার পর দুটো নাম ছিলো সবার মুখে মুখে।রাজ্জাক-কবরী।জুটি হয়ে একের পর এক হিট ছবি তারা দর্শকদের উপহার দিয়ে যাচ্ছিলেন।সঙ্গে সঙ্গে তাদের নিয়ে জল্পনা-কল্পনারও শেষ ছিলোনা।সর্বত্র তাদের নিয়ে প্রেমের গল্প।এই বুঝি বিয়ের পিড়িতে বসে পড়লেন!পত্র-পত্রিকায় তাদের ঘনিষ্ট ছবি তরুণ-তরুণীদের হৃদকম্প বাড়ায়। তখন রেগেমেগে একজন হোমড়াচোমরা সাংবাদিককে মারতে রাজ্জাক চলে যান এক তারকা হোটেলে। খুব বেশিদিন এ চমক ছিলো না।এসময় উনুনে জল পড়ে।হঠাৎ করেই এ জুটি ভেঙ্গে যায়।কবরী ঘোষনা দেন আর রাজ্জাক সাহেবের সঙ্গে ছবি করবেন না।এ ঘোষনাই রাজ্জাক সাহেবের মৃত্যু পর্যন্ত বলবৎ থাকে। তারা আর একসঙ্গে ছবি করেননি।

ববিতার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ানো হয়েছিলো ফারুক,সোহেলরানা এমনকি উজ্জলকেও।তবে এ সম্পর্কগুলো বেশিদিন টেকেনি। শেষ পর্যন্ত তরুণীদের হার্টথ্রব জাফর ইকবাল।তার সঙ্গে এবার জড়িয়ে যান ববিতা।তাদের সম্পর্ক ঘিরে অনেক কাহিনির জন্ম হয়। ববিতার বিয়ের পর এক ঈদে টেলিভিশনে গান গাইলেন জাফর ইকবাল।গানের কথা ‘সুখে থাকো ও আমার নন্দিনী হয়ে কারো ঘরণী’।আর যায় কোথায়।সবার ধারণা হলো এ গান ববিতার জন্যই গাইছেন জাফর ইকবাল।অনেক পরে এই ধারণা সঠিক নয় বলে জানা যায়। এ গান দেশের প্রয়াত বিশিষ্ট সুরকার আলউদ্দিন আলী লিখে জাফর ইকবালকে দিয়ে গাইয়েছিলেন।কারণ তার সে সময়ের প্রেমিকা সালমা সুলতানার অন্যত্র বিয়ে হয়ে যাচ্ছে শুনে।এ গানের লাইন দিয়ে সালমা আলীর বাসার সামনে পোস্টারিংও করেছিলেন আলাউদ্দিন আলী।শেষ পর্যন্ত আলাউদ্দিন আলীর গলাতেই মালা পড়িয়ে সালমা সুলতানা হয়ে যান সালমা আলী।

৯০ দশকের সুপারহিট নায়ক সালমান শাহ্।প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন সামিরাকে।তবে এ সংসারেও স্ক্যান্ডলের ঢেউ আছড়ে পড়ে।তখন শাবনূরের সঙ্গে সালমানের প্রেম হাওয়ায় উড়ছে।কখনও শোনা যায় তারা বিয়ে করে ফেলেছেন। কখনও শোনা যায় তারা দেশের বাইরে একসঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন।সালমানের স্ত্রী প্রথম প্রথম বিষয়টা তেমন পাত্তা না দিলেও এক সময় তাদের মধ্যে মনোমালন্য হয়।সামিরা সালমানকে ছেড়ে বাবার বাড়িতে চলে যান।সালমান আবার সামিরাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন।সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে যায়।সালমানের আত্মহত্যার আগে পর্যন্ত তারা সুখেই সংসার করছিলেন।

পপি আর শাকিল খানকে জড়িয়ে দীর্ঘদিন বাতাসে গুঞ্জন চলেছে।পত্র-পত্রিকায় এ খবরও এসেছে যে পপি পুতুল পছন্দ করেন বলে শাকিল খান তার বাসা পুতল দিয়ে ভরে রেখেছেন।তাদের বিয়ের খবরও তখন হাওয়া থেকে পাওয়া যেতো।কেউ কেউ শাকিল খানের বাসায় গিয়ে বউ পপিকে দেখে এসেছেন এমন খবরও রটেছে।

পূর্ণিমাকে নিয়ে রটেছে ত্রিভুজ প্রেমকাহিনী।কখনও রিয়াজ কখনও ফেরদৌস।কোনদিকের পাল্লাটা ভারি ছিলো তা একমাত্র পূর্ণিমাই বলতে পারবেন।

সর্বশেষ চমক দেখালেন শাকিব খান।অপু বিশ্বাসকে নিয়ে তার প্রেম-বিয়ে এবং সন্তান হওয়া সব সবার সামনে স্ক্যান্ডাল হিসেবে রেখে দিয়ে বুবলীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুললেন।শেষ পর্যন্ত অপু মুখ খুললেন। এবার বুবলীর সঙ্গের সম্পর্কটা স্ক্যান্ডালে রূপ পেলো।আর শাকিবও থাকলেন না অপুর সঙ্গে বিয়ের সম্পর্কে।এবার শাকিব ডিভোর্স দিলেন অপুকে।

বাংলাদেশের ফিল্ম পাড়ার গোপন গল্প খুব জোরালো নয় হলিউড, বলিউডের বা টলিউডের তুলনায়। আগুনের পাশে নিভু নিভু প্রদীপ। তবুও এসব ছোট আগুনের গোপন গল্প নিয়ে আমাদের সমাজ উত্তেজনার বটিকা সেবন করে।

আবিদা নাসরীন কলি

ছবিঃ গুগল


প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না, তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]


Facebook Comments Box