বদলাবে অনেক কিছুই

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীম

দীর্ঘ তিন বছর পর,  প্রধান নির্বাচকের দায়িত্বে থাকা মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর পাশাপাশি নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমনেরও বিদায়ও অনেকটা নিশ্চিত। তাদের চুক্তির মেয়াদ বাড়াবে না বিসিবি।দলের পারফরম্যান্সের সঙ্গে নির্বাচকদের পারফরম্যান্স মেলাতে চান না বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। শক্তিশালী দল নির্বাচন করা হলেও মাঠে ভালো খেলার বিষয়টা যে পুরোপুরি খেলোয়াড়দের সেটাও মানছেন তিনি। আর সেই কারণেই নির্বাচকদের দোষও দিতে চাইছেন না বোর্ড প্রধান।

নান্নু ও বাশারের স্থলাভিষিক্ত হতে পারেন সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট আর সাবেক পেসার মঞ্জুরুল ইসলাম। পদ দুটো হলেও এই দৌড়ে জাভেদ ওমর বেলিমের নামও শোনা যাচ্ছে।এই তিনজন থেকে দুজনকে দায়িত্ব দেয়া হলেও তাঁদের উপরে থাকবেন বিসিবির উচ্চপদস্থ একজন কর্মকর্তা। যিনি সব কিছু তদারকি করলেও কোনো বিষয়ে জবাবদিহি করবেন না।

আগামী শনিবার ২৭ জুলাই বোর্ড সভার পরই এসব বিষয়ে সব জানা যাবে।অবশ্য  বিবেচনায় থাকতে পারেন হাবিবুল বাশার। প্রধান নির্বাচকের পদ থেকে নান্নুকে সরিয়ে দেয়া হলেও প্রধান নির্বাচকের পদে বাশারকে রেখে দেয়া হতে পারে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। অবশ্য বিসিবি বসের কথায় এমন সম্ভাবনার কোন ইঙ্গিত  মেলেনি।

লন্ডন থেকে ফিরে দীর্ঘদিন পর গণমাধ্যমের সঙ্গে বিসিবি প্রধান অনেক খোলামেলা আলাপ করেন। ভবিষ্যতের জন্য বাংলাদেশের ক্রিকেট কাঠামোকে শক্তিশালীভাবে গড়ে তুলতে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হাতে নিচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য অন্তত চার বছর সময় ব্যয় করতে চায় বিসিবি।

মানুষ হিসেবে সদ্য বিদায়ী কোচ স্টিভ রোডস অসাধারণ হলেও কোচ হিসেবে খুব বেশি কার্যকরী নন বলে মনে করেন বিসিবি  সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। ইংলিশম্যান রোডর্সের কোচিং নীতি  গ্রহণ করতে পারেনি বোর্ড ।কোচ হিসেবে যে কঠোর মানসিকতা বজায় রাখতে হয় তার যথেষ্ট ঘাটতি ছিল রোডসের মাঝে। আর সেকারণেই দলের ক্রিকেটাররাও তাকে মানতে চাইতেন না সেভাবে। অনুশীলনে না আসলেও তেমন কিছু বলতেন না তিনি ক্রিকেটারদের। এমনকি মাশরাফিদের ছুটির ব্যাপারেও বেশ শিথিল ছিলেন রোডর্স ।এখানেই আপত্তি বোর্ডের। প্রাক্তন কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের মতো একজন কড়া ‘হেডমাস্টার’ পছন্দ বিসিবির।

বিশ্বকাপে ভারত, পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের আগে ৫ দিনের ছুটির বিষয়টা কোন অবস্থায় মানতে পারেননি বিসিবি বস। বিসিবি প্রধান লন্ডনে অবস্থান করার পরও তাকে কোন কিছু না বলায় প্রচণ্ড রেগে ছিলেন তিনি কোচের ওপর। বিসিবি প্রধান মনে করেন ওখানেই খেলোয়াড়দের মনযোগ ব্যাহত হয়। পরবর্তী ম্যাচ দুটোতেই যার প্রভাব পড়ে।

বিশ্বকাপে নিজেদের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ইনজুরি নিয়েই খেলেছেন বাংলাদেশের অধনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম। দুজনেরই এই ম্যাচে খেলার কথা ছিল না।আগের রাতে পরিকল্পনা বাদ দিয়ে, পাকিস্তানের বিপক্ষে  তারা মাঠে নামায় কোচের ওপর চটেছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

এবার তাই কোচ বিষয় ২৭ জুলাই বোর্ডে নতুন  সিদ্ধান্ত আসছে না।কিছুটা সময় নিয়েই ফিজিও, বোলিং কোচ, ম্যাকেন্জি না ফিরলে ব্যাটিং কোচ সহ প্রধান কোচ নির্বাচন করা হবে বলে ইঙ্গিত দিলেন বিসিবি প্রধান।নাম প্রকাশ না করলেও বোলিং আর ফিজিওর বিষয়টা চূড়ান্ত পর্যায়ে আছে। প্রধান কোচের বিষয় কয়েকজনের সাথে কথা হলেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে কিছুটা সময় নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি করতে আগ্রহী বিসিবি।সম্ভাবত ভারতের কোচ নির্বাচনের পরই বাংলাদেশের প্রধান কোচ নির্বাচন করা হবে। লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড হাতুরাসিংকে পদত্যাগ করতে অনুরোধ করেছেন।সেক্ষেত্রে হাতুরাসিংও চাইলে হতে পারেন বাংলাদেশের পরবর্তী কোচ।হাতুরাসিংয়ের ব্যাপারে বিসিবি বসের দূর্বলতার প্রকাশও পেয়েছে বুধবার গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময়।

ছবিঃ গুগল

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]