বসন্ত শুধু রাঙিয়েই দেয় না লুট করে নিয়েও যায়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফেইসবুক।সবার কাছেই জনপ্রিয় এই শব্দটি। তাই প্রাণের বাংলায় আমরা সংযুক্ত করলাম ফেইসবুক কথা বিভাগটি।এখানে ফেইসবুকের আলোচিত এবং জনপ্রিয় লেখাগুলোই  আমরা পোস্ট করবো।আপনার ফেইসবুকে তেমনি কোন লেখা আপনার চোখে পড়লে আপনিও পাঠিয়ে দিতে পারেন আমাদের ই-মেইলে।

সুমন সুপান্থ

জগতে এরকম করে ফুল ফলে মফস্বল ভ’রে উঠে কেবল মধুমাস নেমে এলে। তখন পাখিদের শিসে্, নদীর কলধ্বনিতে ক্ষণকালের আভাস হতে নেমে আসে চিরকালের সব প্রেম। তখনই কেবল সব রঙের সব ফুলেদের প্রফুল্ল রূপ ফোটে। তাতে হৃদি থেকে হৃদয়ে, ইনবক্স থেকে ওয়ালে মনস্কামের সব রোদ গলে পড়ে! আর যাবার আগে ভালোবাসার মাঘ-কুয়াশা আবার এসে ভিজিয়ে দিয়ে যায়।
একদিন সেই তরাস আমাকেও স্পর্শ করতো। মুগ্ধ করে, মাতাল করে নিয়ে, সারাটি নির্জন দুপুর বসিয়ে রাখতো নদী তীরের শ্মশানঘাটে।

এরকম পহেলা ফাল্গুনের দিনেই গলায় দড়ি দিয়ে মরেছিলেন গ্রামের এক তরুণী বধূ। আর পালিয়ে গিয়েছিলেন সেই বাড়ির লজিং মাস্টার। কি কাহিনী, কি বৃত্তান্ত সেসব বুঝে উঠবার বয়স হয়নি তখনো। কিন্তু বসন্ত যে কেবল রাঙিয়ে দিয়ে যাবার নয়, লুট করে নিয়ে যাবারও ঋতু— সেটা সেবারই জেনেছিলাম প্রথম।

আজ বুঝতে পাই। এই হুল্লোড় দেখি, আশেপাশে, জাকারবার্গের দুনিয়ায়। লালে লাল। হলুদে হলুদ। ও রকম কাল তো ছিলো না আমাদের! আজ যেমন চৈত্র‍্যে নয় ফাগুনেই সর্বনাশ। বইমেলায়, সোহরাওয়ার্দীতে, টিএসসিতে, কিংবা দুর মফস্বলে রিক্সারোহিনীর আর্ম পিট থেকে ভেসে আসা প্রিয় সুগন্ধ, তাতে আস্ত একটা শহর মাতাল হয়ে রইবে — তেমন স্মৃতি আমাদের কই! তাও এক ভর সন্ধ্যায়, সাহস জমিয়ে, ঠিক এরকম বসন্ত খোলার দিনেই আমরা যারা খুলে ফেলেছিলাম হৃদয় দুয়ার; তারা বড় হয়ে, আরো অনেক পরেই না ক্লিওপেট্রার নাম জেনেছি। আলেকজান্দ্রিয়ার আভিজাত্য, রোমান শঠতা, আর যৌনতার চিরকালীন প্রতীক ক্লিওপেট্রার ঠোঁটকে নিয়ে প্রচল কথা — ‘ইটারনিটি সিটস অন ইয়োর লিপস্’

আমাদের মুসলিম কোয়ার্টার হোক, শান্তিবাগ হোক, কিংবা বনশ্রী, তা যতোই মফস্বলি হোক, যতোসব ক্লিওপেট্রারা ছিলো, কবেই বা আঙুলে একটু আবির নিয়ে তাদের ঠোঁটের কাছে, থুক্কু, তাদের ইটারনিটির কাছে পৌছাতে পারলাম এই জীবনে!
আমার জীবনে এমনতরো হাহাকারের বহুদুরগামী মানে আছে।

মানে আছে, কারণ, বসন্ত আর চারটা পাঁচটা ঋতু তো নয়। বসন্ত ভালোবাসার কলংক নিয়ে মরে যাওয়া গ্রাম্য বধূর বিদ্রোহ। বসন্ত, যখন, মধ্য চল্লিশে এসে আবার ভালোবাসার সাধ জাগানো মধুঋতু। তাহলে কেন ডাকবো না তাকে যে আছে অন্তরে! অকারণের সুখে কেন লাগবে না গো অলক্ষ রঙ! কেন জনারণ্যে বলবো না আমিই সেই পলাতক লজিং মাস্টার। তাই মর্মরিয়া উঠছে কেবল আজ দুঃখ রাতের গান…

ছবি : আনসার উদ্দিন খান পাঠান

 


প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না, তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]


Facebook Comments