বিক্রি হয়ে যাচ্ছে আর.কে স্টুডিও

এবার বিক্রি হতে চলেছে ভারতীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সাত দশকের ঐতিহ্য ‘আর.কে স্টুডিও’। ‘বরসাত’, ‘আওয়ারা’, ‘বুট পোলিশ’, ‘শ্রী ৪২০’, ‘জাগতে রহো’, ‘জিস দেশ মে গঙ্গা বেহতি হ্যায়’, ‘মেরা নাম জোকার’, ‘ববি’, ‘সত্যম শিবম সুন্দরম-এর মতো সিনেমা থেকে রাজ কাপুরের শেষ ছবি ‘রাম তেরি গঙ্গা ময়লি’। এমনি সব আইকনিক সিনেমা নির্মাণের সাক্ষী এই স্টুডিও বিক্রি করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলিউডের কাপুর পরিবার। সিদ্ধান্তের কথা প্রকাশ্যে জানিয়েছেন ঋষি কাপুর। জানিয়েছেন, পরিবারের সমস্ত সদস্য মিলিতভাবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তবে সম্প্রতি ল্যাকমে ফ্যাশন উইকে গিয়ে এই পরিবারের সদস্য কারিনা কাপুর অবশ্য সাংবাদিকদের কাছে বলেছেন, এ বিষয়ে তেমন কিছু তিনি জানেন না। বাবা রণধীর কাপুরের সঙ্গে গত চার-পাঁচদিন দেখাই হয়নি তার। তবে যেটুকু শুনেছেন, তাতে এ সিদ্ধান্ত বড়দেরই। তাঁরা যা ভাল মনে করছেন, তাই-ই করেছেন।

তিনি কষ্ট জড়ানো গলায় বলেন, ‘ওই স্টুডিওর করিডোরেই মানুষ হয়েছি। অজস্র স্মৃতি রয়েছে সেখানকার। এটা কষ্টের তো বটে, তবে একদিন না একদিন তো সিদ্ধান্ত নিতেই হবে’।

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে ভয়াবহ আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল মুম্বাইয়ের এই ঐতিহ্যবাহী স্টুডিও। আগুনে ভষ্মীভূত হয়ে যায় রাজকাপুরের হাতে তৈরী স্টুডিওটির বহু পোশাক এবং দামি সরঞ্জাম। ঋষি কাপুর জানান, সেই ঘটনার পর প্রথমে ঠিক হয়েছিল, আগুনে পুড়ে যাওয়া আর কে স্টুডিওকে ফের ঢেলে সাজানো হবে। কিন্তু তাতেও লাভের মুখ দেখার কোনও আশা ছিলো না। তারপর একটা সময় ঠিক হয় অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ফের নতুন করে সাজানো হবে বাবার তৈরী এই স্বপ্ন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে পরিকল্পনাও আর বাস্তবায়নের মুখ দেখেনি। নানা প্রচেষ্টার পরও আগের অবয়বে ফেরানো সম্ভব হয়নি এই জনপ্রিয় স্টুডিওকে। তাই ভারাক্রান্ত হৃদয়ে এ সিদ্ধান্ত নিতেই হয়েছে বলে জানান ঋষি।

বিনোদন ডেস্ক

তথ্যসূত্র ও ছবিঃ সংবাদ প্রতিদিন, কলকাতা, গুগল