বিদায় বের্নার্দো বের্তোলুচি

‘লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস’ ছবিতেই বাজিমাত করেছিলেন বের্নার্দো বের্তোলুচি। অবাধ যৌনতার প্রদর্শন নিয়ে ছবিটি ব্যাপক ভাবে বিতর্কিত হয়েছিলো। তারপর ‘লাস্ট এম্পেরর’ বানিয়ে জিতে নেন ৯টি অস্কার পুরস্কার। তাঁর ঝুলিতে আছে ‘দ্য কসফার্মিস্ট’-এর মতো ছবিও। ইতালীর প্রখ্যাত ও বিতর্কিত এই চলচ্চিত্র পরিচালক গত সোমবার রোমে নিজের বাড়িতে বিদায় জানালেন পৃথিবীকে। কিছু দিন ধরে ক্যান্সারে ভুগছিলেন তিনি।

লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস ছবির একটি দৃশ্য

‘লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস’, ‘দ্য কনফর্মিস্ট’, ‘দ্য লাস্ট এম্পেরর’-এর স্রষ্টা তাঁর কেরিয়ার শুরু করেন আর এক বিখ্যাত ও বিতর্কিত পরিচালক পিয়ের পাওলো পাসোলিনির সহকারী হিসেবে। পরের বছর, অর্থাৎ ১৯৬২ সালেই ২১ বছর বয়সে বের্নার্দোর প্রথম পরিচালনা ‘দ্য গ্রিম রিপার’। এর পরে ‘বিফোর দ্য রেভলিউশন’।

আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রে প্রথম সারিতে উঠে আসা ১৯৭০ সালে, ‘দ্য কনফর্মিস্ট’ ছবির সৌজন্যে। সেটাই তাঁর প্রথম অস্কার মনোনয়ন। পরের ছবি বহু বিতর্কিত ‘লাস্ট ট্যাঙ্গো ইন প্যারিস’, যেখানে মার্লন ব্র্যান্ডো এবং তরুণী অভিনেত্রী মারিয়া শ্নাইডারের অবাধ যৌনদৃশ্য অনেক দেশেই ছবিটিকে সেন্সরের কাঁচির মুখে ফেলে।

বিশ শতকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ছবি বলে গণ্য হলেও মার্লন এবং বের্নার্দো আগে থেকে কিছু না জানিয়ে মারিয়াকে একটি দৃশ্যে যৌন নির্যাতন দৃশ্যে অভিনয় করতে বাধ্য করেছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। পরে মারিয়া জানান, তিনি দীর্ঘদিন সেই ট্রমা কাটাতে পারেননি। বের্নার্দোও ঘটনাটা অস্বীকার করতে পারেননি, তবে পুরো ঘটনাটাকে ভুল বোঝাবুঝি বলে দাবি করেছিলেন। কিন্তু নৈতিকতা এবং লিঙ্গবৈষম্যের প্রশ্নে এখনও ঘটনাটি বারবার আলোচিত হয়।

এর পরে বের্তোলুচির সবচেয়ে নামকরা ছবি ‘দ্য লাস্ট এম্পেরর’ (১৯৮৭) ৯টি অস্কার জেতে। নব্বইয়ের দশকে ‘লিটল বুদ্ধ’ ছবির জন্য বের্তোলুচি ভারতেও কাটিয়েছিলেন কিছুটা সময়।

বিনোদন ডেস্ক

তথ্যসূত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা

ছবিঃ গুগল