মুশফিকের ইচ্ছাটা পূরণ হতেও পারতো

আহসান শামীম

বিশ্ব ক্রিকেটে একমাত্র টেষ্ট ক্রিকেটে দুইবার ডবল সেঞ্চুরীর রেকর্ডধারীর মুশফিকের ইচ্ছা ছিলো জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দ্বিতীয় ইনিংসে আর ব্যাট না করা।তৃতীয় দিন শেষে তাইজুলের ৫, মিরাজের ৩ উইকেটে আর অভিষেকে মাঠে নেমে আরিফের ১ উইকেটে ইনিংস বিপর্যয় থেকে ১৯ রান দূরে শেষ হয়ে গেলো জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংস।জিম্বাবুয়েকে এমন অবস্থায় আগামীকাল সকালে আবার ব্যাটিং করতে হবে কিনা সেই প্রশ্নের উত্তরটা আগামীকালই বলে দেবে। বর্তমান ক্রিকেট বিশ্বের ট্রেন্ড অনুসরন করলে হয়ত বা মুশফিকের ইচ্ছা পূরনটা হবে না।আগামীকাল হয়তো বা বাংলাদেশ প্রথম দুইটা সেশন ব্যাট করে ম্যাচটা জয়ের জন্যই নতুন টার্গেটও দিতে পারে জিম্বাবুয়ে দলকে।তৃতীয় দিনে বাংলাদেশ যে ভাবে ক্যাচ ড্রপ করেছে সেটা না হলে হয়তো বা মুশফিকের ইচ্ছাটা পূরন হতেও পারতো।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বল হাতে জ্বলে উঠেছেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম। সিলেট টেস্টে ১১ উইকেট শিকারের পর ঢাকা টেস্টেও বল হাতে প্রথম ইনিংসে পাঁচ উইকেট তুলে নিলেন তাইজুল।এর আগে এই রেকর্ড গড়েছেন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান আর এনামুল হক জুনিয়র।ব্যাট হাতে জ্বলে ওঠা মিরাজ দিন শেষে বল হাতেও যথেষ্ট দক্ষতার পরিচয় দিয়ে দ্রুত তিন উইকেট তুলে নেন। মিরাজের এমন অলরাউন্ড পারর্ফরমেন্সে সাকিবের অভাবটা কিছুটা উপক্ষিতই হয়েছে।

টেস্ট ক্রিকেটে ক্যাচ লুফে নেয়ার দিকে সবার নিচে অবস্থান বাংলাদেশের।২০১৬ থেকে  টেস্টের পরিসংখ্যান দুই বছরে টেস্টে ৭১.০ শতাংশ ক্যাচ ধরতে পেরেছে বাংলাদেশ।টেস্টে ক্যাচ ধরার দিকে বাংলাদেশ থেকেও সফল দল জিম্বাবুয়ে। পাঁচ দিনের এ খেলায় ৭২.৩ শতাংশ ক্যাচ লুফে নিয়ে নয় নম্বর অবস্থানে জিম্বাবুয়ে।সবচেয়ে বেশি ক্যাচ ধরে টেস্ট খেলুড়ে দলগুলোর মাঝে শীর্ষে নিউজিল্যান্ড। শতকরা প্রায় ৮২.৪ ভাগ ক্যাচ ধরতে সক্ষম হয়েছে কিউইরা।পাকিস্তান,টেস্টে  ৮১.১ শতাংশ ক্যাচ লুফে নিয়ে দুই বছরে দ্বিতীয় অবস্থানে।দক্ষিণ আফ্রিকার আবস্থান তৃতীয় ,৮১.০ শতাংশ ক্যাচ ধরে।এরপরের অবস্থানে অস্ট্রেলিয়ার, ২০১৬ সাল থেকে টেস্টে শতকরা ৭৮.৭ ভাগ ক্যাচ ধরতে সক্ষন হয়েছে তারা। অজিদের পরেই আছে ভারতীয়রা। ৭৭.৫ শতাংশ ক্যাচ ধরে এ তালিকায় পাঁচে রয়েছে উপমহাদেশের সবচেয়ে শক্তিশালী দলের অবস্থান।ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ইংল্যান্ড  আর শ্রীলঙ্কা রয়েছে যথাক্রমে ছয়, সাত এবং আট নম্বর অবস্থানে।দুই বছরে তারা যথাক্রমে ৭৭.২, ৭৬.৫ এবং ৭৫.৫ শতাংশ ক্যাচ ধরতে সক্ষম হয়েছে।

ছবিঃ ইএসপিএন