শালিক শালিক

ফেইসবুক।সবার কাছেই জনপ্রিয় এই শব্দটি। তাই প্রাণের বাংলায় আমরা সংযুক্ত করলাম ফেইসবুক কথা বিভাগটি।এখানে ফেইসবুকের আলোচিত এবং জনপ্রিয় লেখাগুলোই  আমরা পোস্ট করবো।আপনার ফেইসবুকে তেমনি কোন লেখা আপনার চোখে পড়লে আপনিও পাঠিয়ে দিতে পারেন আমাদের ই-মেইলে।

প্রদীপ কুমার ঘোষ

এই তো সেদিন বৌমার অনুরোধে ঠিক হলো বেলুড়মঠে যাওয়া হবে। বৌমা মানে আমার বৌ আর আমার মেয়ের মা।দুইয়ে মিলে বৌমা। বাসের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছি কিন্তু বাসের দেখা নেই।
বিরক্ত বৌ এই সময় একটা গাড়ি থাকা কতটা জরুরি এই বিষয়ে একটা ছোট করে বক্তব্য পেশ করছেন। আমিও মুখ কাঁচুমাচু করে সেই বক্তব্য হৃদয় দিয়ে উপলব্ধি করার চেষ্টা করছি। হঠাৎ আমার পাশে প্রিয়তমার মুখের পরিবর্তন আমাকে চিন্তিত করে তুললো।
গম্ভীর মুখে রক্তের আভা। বুঝতে পারছিনা গাড়ির কথা শোনার ব্যাপারে আমি কি অমনোযোগী ছিলাম নাকি বাস আসছেনা সেই কারণে।কিছুতেই আর কারণ খুঁজে পাচ্ছিনা। কী মনে হলো হঠাৎ দেখি একটা শালিক একটুখানি দূরে ক্যাটওয়াক করতে করতে যাচ্ছে।
মেয়ের মাকে বললাম (মুখের অবস্থা দেখে বউ বলতে সাহসে কুলালোনা) ‘ওই দেখ এক শালিক।’
ব্যস সেই রক্তচক্ষু গোমড়ামুখ এবার আমার দিকে ঘুরে গেল, ‘তুমিও দেখলে? ব্যস আজ হয়ে গেল!’ বলেই শালিকের উদ্দেশ্যে, ‘এই পুজোর দিনে কেন একা একা বেড়িয়েছিস? হ্যাঁ! বরকে নিয়ে বেড়োতে পারিসনি?’
আমি বললাম, ‘ দেখ বরটা বোধহয় কাল বন্ধুবান্ধব নিয়ে সারারাত মাল খেয়ে ফুর্তি করেছে আর এখন পড়ে পড়ে ঘুমাচ্ছে!’
মেয়ে শালিকটার যে কোনো দোষ নেই বোঝাতে গিয়ে বললাম,‘ আর এ বেচারিকে দেখ এই সাতসকালে পোকা খুঁজতে বেড়িয়েছে!’
তাতেও মেয়ের মায়ের মুখের কোনো পরিবর্তন না দেখে বললাম, ‘জানো চোখে একটা বিশেষ জায়গায় আঙ্গুল দিয়ে টিপে রাখলে সবকিছু দুটো দুটো দেখা যায়।একবার চেষ্টা করে দেখবে?’ তিনি বললেন, ‘এসব আমাকে শেখাতে হবেনা, আমি জানি।’
আমি কত বললাম জানো, ‘ছোটোবেলায় আমরা দু’শালিখ দেখলে বলতাম টোপোরজা, টোপোরজা।পরে বড় হয়ে জানলাম ওটা হবে টু ফর জয়, টু ফর জয়!’ তবুও তার মুখে ভাবান্তর নেই।
আচ্ছা এতক্ষণ এই অধম কি শুধু কথাই বলে গেল? না মোটেও না! চোখের সব শক্তি প্রয়োগ করে আকাশে বাতাসে গাছের পাতায় পাতায় ডালে ডালে আশে পাশের সমস্ত বাড়ির কার্ণিশে কার্ণিশে সেই ল্যাদখোর স্বামীর খোঁজে জিপিএস চালু রাখলো।
সদিচ্ছা কখনো বিফলে যায়না বলেই জেনে এসেছি।হঠাৎ দেখি এক পাঁচিলের ওপরে দু‘টি শালিক।বুকে একটু বল পেলাম বউকে বললাম, ‘ওই দেখ মেয়েটা পোকা নিয়ে বরের ঘুম ভাঙিয়ে খাওয়াচ্ছে।’ বউয়ের মুখে হাজার ওয়াটের আলো জ্বলে উঠলো।
বুঝলাম একটা শালিকের ক্ষমতার ধার কাছ দিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা আমার নেই।

ছবি: গুগল