শিশুর ত্বকের যত্ন…

ডা. মিজানুর রহমান কল্লোল

ডা. মিজানুর রহমান কল্লোল

নতুন যারা বাবা-মা হন তাদের নবজাতকের ত্বক সম্পর্কে কোন ধারণা থাকে না্। মসৃন, সুন্দর ত্বক সব বাবা-মা-ই আশা করেন। তবে বাচ্চা জন্ম নেওয়ার প্রথম সপ্তাহে বা প্রথম মাসের মধ্যে তার কিছু চর্মরোগ দেখা দিতে পারে।এসব সমস্যার অধিকাংশই সাময়িক।এ সমস্যাগুলি সাধারণত ত্বকে স্থায়ী দাগ সৃস্টি করে না।তবে কখনও কখনও ত্বকে আরও কিছু সমস্যা দেখা দেয় যার জন্য শিশুকে চিকিৎসকের কাছে নেয়া অপরিহার্য্ হয়ে পড়ে।তবে সঠিক ভাবে শিশুর ত্বকের যত্ন নিলে পরবর্তি সময়ে তাদের বিভিন্ন ত্বকের সমস্যায় আক্রান্ত হতে হয় না।এখন প্রশ্ন হলো কিভাবে যত্ন নিবেন নতুন শিশুর।

cb1সব সময় পরিস্কার রাখুন শিশুর ত্বকঃ নবজাতক শিশুদের ত্বক অনেক সময় সাদা আবরনে আবৃত থাকে যার নাম‘বার্নিস কেজিওসা’ এ আবরণ গঠিত হয় মৃত চর্মকোষ এবং তেলগ্রন্থির নিঃসরণদ্বারা।এগুলো আপনা আপনি মিলিয়ে যাবে প্রথম কিংবা দ্বিতীয় সপ্তাহে।প্রথম সপ্তাহে আপনার শিশুকে কেবল মাত্র স্পন্জবাথ করাবেন।একটি নরম কাপড় কুসুম গরম পানিতে ভিজিয়ে কাপড় নিংড়ে শরীর মুছিয়ে দিবেন। কোন সাবান ব্যবহার করা যাবে না।যদি আপনার শিশুকে খাৎনা করানো হয় তাহলে ক্ষত না সারা পর্য্ন্ত তার লিঙ্গ ধুবেন না।শিশুর মুখমন্ডল পানি দিয়ে দিনে একবার পরিস্কার করুন।নাভি এলাকা ‘কটন সোয়াব’ এ হালকা স্পিরিট বা স্যাভলন পানিতে মিশিয়ে দিনে দুইবার পরিস্কার করুন যতক্ষন না নাভি এলাকার ক্ষত না সারে। প্রতিবার তোয়ালে পরি বর্তনের সময় যৌনাঙ্গ এলাকা পরিস্কার করুন।বাচ্চাকে যখন শৌচকাজ করাবেন, খেয়াল রাখবেন সেটা যেন সামনে থেকে পেছনের দিকে হয়। এতে সংক্রমণ দূর হবে।কুসুম গরম পানি বা পরিস্কার ভেজা কাপড় দিয়ে মুছিয়ে দিতে পারেন।এসময় বাচ্চাকে সুগন্ধি বা সিনথেটিক পরানো যাবে না।এসব পোশাক বাচ্চার ত্বকে এলার্জি সৃস্টি করতে পারে।বাচ্চাকে পাউডার মাখানোর সময় সতর্ক হতে হবে।খেয়াল রাখবেন নিঃশ্বাসের সঙ্গে সে যেন তা টেনে না নেয়।সব ধরণের ট্যালকম পাউডার বাচ্চার নাগালের বাইরে রাখুন।বাচ্চাকে পাউডার মাখানোর আগে প্রথমে নিজের হাতেঢেলে পাউডার নিন।বাচ্চার ত্বকে পাউডার দিবেন হালকা করে।

গোসলে সতর্ক হোনঃ বাচ্চাকে প্রতিদিন গোসল করানো জরুরী কিছু না। বাচ্চাকে গোসল করাতে হবে বাচ্চার নাভিকুন্ডের ক্ষত উপশমের পর। জন্মের প্রায় ২ সপ্তাহ বা ১০ দিন পর থেকে।যদি শিশুর ত্বক শুষ্ক হয় সে ক্ষেত্রে তার শরীর ভেজা নরম তোয়ালে দিয়ে মুছিয়ে দিয়ে হাইপোএলার্জেনেক ময়েশ্চারাইজার মাখানো যেতে পারে।