শীতকাল বড় নিষ্ঠুর, বড্ড স্মৃতি কাতর…

শ্বেতা চট্টোপাধ্যায়

(কলকাতা থেকে): শীতকাল বড় অদ্ভুত,বড্ড নিষ্ঠুর,বড্ড স্মৃতি বিজড়িত..। নভেম্বরের এই সময় টায় একদিকে যেমন ঠোঁটের বয়স হু হু করে বেড়ে যাওয়ার তাড়া, তেমনিই যেন তুলে রাখা গরম জামা কাপড় গুলোর ভাঁজ খুলে বেরিয়ে আসে একগাদা পুরোনো স্মৃতি..। যেগুলোর সঙ্গে সঙ্গোপনে দেখা হয়ে যায় আমাদের..। একা একা মুহুর্ত যাপনের চোরা স্বাদ পেতে পেতে আমরা ভাসতে থাকি ফেলে আসা স্মৃতির সমুদ্রে..।

আর তারপর আমার এই ছোট্ট ঝুড়ি থেকে কত কি বেরিয়ে আসে আস্তে আস্তে..। বাড়ির সামনের মাঠে এই শীতকালের স্পোর্টস এর দিনগুলোর স্মৃতি গুলো..খেলাধুলো তে ভালো ছিলাম না তেমন, সহজেই হিটের পরে বাদ পরে গিয়ে চুপি চুপি পৌঁছে যেতাম মাঠের পাশে অপেক্ষমান ফেরিওয়ালাদের কাছে..। জমানো সামান্য পয়সায় ছোট্ট ছোট্ট কুলের আচার বা কালো হজমি, অথবা বাদামভাজা, বা বিলিতি আমড়া..। টকাস টকাস করে স্বাদ নিতে নিতে দুর থেকে বাকিদের খেলা দেখা..। এমনিই ছিল ছোটবেলার শীতের রোদ্দুর গুলো..।

আরেকটু বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যখন মাথার অ্যান্টেনা তে নতুন নতুন রঙিন অনুভূতি আর শব্দগুলো ঢুকে তাদের রাজ্যপাট বিস্তার করতে শুরু করছে, যে সময়ের অভিমানী বিকেলগুলো তে একা একা কত কি ভাবতে ভাবতে ছাদ থেকে সামনের মাঠটা কে দেখতাম, সেই সময় আমায় সঙ্গ দিতো গান..। নাহ্ ! টিভি দেখার সুযোগ একদমই হতো না, বদলে পাশের বাড়ি থেকে ভেসে আসত নানা রকম স্বাদের হিন্দি বাংলা 90’s এর গান..।

ভাসা ভাসা অনুভূতির পালে ভর দিয়ে সেসব গান শুনে কত রকম ভাবনা আসতো মনে..। ছাদের অলস রোদ পিঠে মেখে সেই সময় প্রিয় গল্পের বই আর ঠোঁটের সঙ্গে কমলালেবুর কোয়ার ছোঁয়াছুঁয়ি খেলার কত অলস স্মৃতি ঘুরঘুর করতে থাকে একটু উত্তুরে হাওয়ার পরশ পেলেই..!

আজ হঠাৎ 90’s আর তার আগের কিছু পুরোনো গানগুলো শুনতে শুনতে সেই মাথা নামক আলমারীর তাক থেকে গরম জামার ভাঁজে রাখা স্মৃতি গুলো বেরিয়ে পড়ছিলো, যেন শীতের আদুরে নরম বিছানায় বসে একটু খোলা রোদ্দুরের মতো রঙ বেরঙের বাহারী স্মৃতি গুলো পর্দা নাড়িয়ে টুকি দিয়ে যাচ্ছিলো আমায়..। আর ছোটবেলার সেই স্মৃতি ফেরত পাব বলে আমিও লোভাতুর হয়ে ঘাঁটতে বসে পড়েছিলাম সেই বেঁধে রাখা গাঁটরি..।

সাধে কি আর বললাম, শীতকাল বড় নিষ্ঠুর, বড্ড স্মৃতি কাতর..!

ছবি: তারেকুল ইসলাম