শুভ জন্মদিন কবি

লুৎফুল কবির রনি

‘আমি শুধু একটি দিন তোমার পাশে তাকে
দেখেছিলাম আলোর নীচে অপূর্ব সে আলো
স্বীকার করি দুজনকেই মানিয়েছিল ভালো।
জুড়িয়ে দিলো চোখ আমার পুড়িয়ে দিলো চোখ
বাড়িতে এসে বলেছিলাম ওদের ভালো হোক।’

কলেজের ঝাঁকড়া চুলের সেইদিন গুলি মনে পড়ে, কবি তোমার কথা মনে হলেই। জয় গোস্বামী পড়তে পড়তে আর ধোঁয়ার রিং ছেড়ে উদাস নয়নে দিন কেটে যেতো! ঘোলা ঘোলা দুপুরে ‘ না-রে, কবিতা লিখেই এইজীবনটা পাক্কা কাটিয়ে দিবো’ সংকল্প গুলো মাঝে মাঝে এখনও মনে পড়ে। জীবন কেটে তো গেলো, কবিতা তো আর লেখা হলো না কবি।

রানাঘাটের পুরনো বাড়িতে মাত্র তেরো বছর বয়সে লিখেছিলেন প্রথম কবিতা ‘ফ্যান’। তাঁর কলম আজো প্রগাঢ় দাম্ভিকতায় চলমান। বাংলা ভাষার আধুনিক কবি জয় গোস্বামী কবিতাকে মিলিয়েছেন জনারণ্যে। তাঁর কবিতা চমৎকার চিত্রকল্পে, উপমা এবং উৎপ্রেক্ষায় ঋদ্ধ।

আমার পশ্চিমবঙ্গে কোথাও কোনো কবিতা সমাজে যাতায়াত নেই।কবি যখন কবিতা সমাজ থেকে দূরে থাকতে চান তখন এক বিষণ্ন সন্ধ্যা নামে। তিনি বলেন

‘আমি কোনোদিন যুদ্ধে যাই নি, জঙ্গল-সমুদ্রে যাই নি, নেহাত সাধারণ গৃহস্থ মানুষ। আমার বলার বিশেষ কিছু নেই, যা রোমাঞ্চিত হবার মতো। গান শুনতে ও কবিতা পড়তে গিয়ে উচ্ছ্বসিত হই।’ এমন কথা কজন মানুষ এত সহজ এবং সাবলীলভাবে উচ্চারণ করতে পারেন আজকাল! তিনি আরও বলেন, বেশিরভাগ কবিতা রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে বা ট্রামে চলতে গিয়ে লেখা হয়েছে এবং আজও যেকোনো লেখা লিখতে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলেন তিনি।

জয় গোস্বামীও কবিতার জন্য কম নিগৃহীত হননি। আমরা দেখেছি তার অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সাহস এবং অত্যাচারিতের পাশে দাঁড়ানো ক্ষমতা। গুজরাতের দাঙ্গার পর তার কবিতায় ধিক্কার এসেছে অবশ্যম্ভাবী রূপে। সিঙ্গুর ও নন্দীগ্রামে জমি বাঁচাও আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং মুখ্যমন্ত্রীকে সরাসরি তিনি তাঁর কবিতায় ধিক্কার জানিয়েছেন | এই কবিতা নিয়ে, ‘বিজল্প’ প্রকাশিত তাঁর ১৫টি কবিতার বই ‘শাসকের প্রতি’ বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা | কিন্ত— সিঙ্গুর নন্দীগ্রাম আন্দোলনে কবির প্রকাশ্য বিরোধী ভূমিকার ফলস্বরূপ তাঁকে তাঁর দীর্ঘদিনের নিশ্চিন্ত জীবিকার আশ্রয় ছেড়ে কাজে ইস্তাফা দিয়ে বেরিয়ে আসতে হয়েছে। সইতে হয়েছে অনেক লাঞ্ছনা গঞ্জনা।

উদ্দাম কৈশোরে আমার যন্ত্রনার ও সঙ্গী হয়েছিল যে শব্দেরা, সেসবের লিপিকার আটপৌরে মানুষ , চারপাশের জীবনের অদ্ভুত লিপিকার জয় গোস্বামী ।

শুভ জন্মদিন কবি , ভালবাসি তোমায় ।

ছবি: গুগল