শুভ জন্মদিন দিয়েগো ম্যারাডোনা

লুৎফুল কবির রনি

‘ভ্যাটিকানে গিয়ে আমি দেখেছি সোনায় মোড়া ছাদগুলো। এদিকে পোপ বলছেন দরিদ্রদের ব্যাপারে তাঁরা সত্যিই খুব উদ্বিগ্ন। তাহলে ওই ছাদগুলো বেচে দিচ্ছেন না কেন? দিন না ! অন্তত কিছু তো একটা হবে !’

-দিয়েগো ম্যারাডোনা

এক পা দিয়ে পৃথিবীকে বিভক্ত করার ক্ষমতা যার , সেতো পাগলাটে হবেই । হাজার রকম রটনা, অপবাদ সব মিলিয়েই তো সে ম্যারাডোনা, প্রকৃতির খেয়ালী রাজপুত্র। এক পলকে বদলতে দিতে পারতেন পৃথিবীর মুখ।

ম্যারাডোনা মানে১৯৮৬ সালের মেক্সিকো বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড রক্ষণভাগকে বিধ্বস্ত করা, অথবা ১৯৯০ সালে কিভাবে নেপোলি ফুটবল ক্লাবের সমর্থকরা নিজ দেশকে সমর্থন না করে ম্যারাডোনার পক্ষে জয়ধ্বনি দেয়া, কিংবা ১৯৯৪ সালে এই ফুটবল ঈশ্বর নাইজেরিয়ার বিপক্ষে জেতার পর কি রকম প্রাণবন্ত উদযাপন !

ছোট্ট ম্যারাডোনার ছোটবেলায় স্বপ্ন ছিল ফুটবল খেলে তার মায়ের জন্য একটি বাড়ি কিনবেন। পাশাপাশি আর্জেন্টাইন জাতীয় দলের হয়ে খেলে বিশ্বকাপ জেতারও স্বপ্ন ছিল ম্যারাডোনার। এই অভিষ্ট লক্ষ্য নিয়েই ফুটবলে ডিয়োগো ম্যারাডোনার পথ চলা শুরু। এক সময় ছোট্ট ম্যারাডোনার সব স্বপ্ন পূরণ হলে।মাকে ঘিরে যে ছেলের বেড়ে উঠা তাকে কেউ রুখতে পারে নি।

মা বিশ্বাস করতেন আমি সেরা । সেই বিশ্বাস থেকে আমি সেরা হয়ে উঠেছি ।

-ডিয়েগো ম্যারাডোনা

মানুষ হয়ে জন্মে পৃথিবীতে আসলে ম্যারাডোনাকে অস্বীকার অসম্ভব।

শুভ জন্মদিন খেয়ালী রাজপুত্তুর …,..,

ছবি: গুগল