শুরু হচ্ছে ওয়ান ডে সিরিজ

আহসান শামীম

টেস্ট সিরিজে হারার পরও ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল শক্তভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর সামর্থ্য রাখে, এমনটাই মনে করেন বাংলাদেশের প্রধান কোচ স্টিভ রোর্ডস।ওয়েষ্ট উইন্ডিজের বিপক্ষে ৯ ডিসেম্বর রোববার ওয়ানডে সিরিজে সতর্কতার সঙ্গেই মাঠে নামতে চান তিনি।

তামিমের সঙ্গে ওপেনিং জুটি নিয়ে  কোচ, অধিনায়ক, প্রধান নির্বাচকের কাপালে চিন্তার ভাঁজ আছে। লিটন দাশ, সৌম্য না ইমরুল, এই মধুর প্রতিযোগিতা চলছে এই তিন জনের মাঝে। জয়ের বিকল্প কিছুই ভাবছেন না অধিনায়ক মাশরাফি। নির্বাচনের মাঠ ছেড়ে কঠোর অনুশীলনে ব্যাস্ত তিনি।দেশের মাঠে এটাই আন্তর্জাতিক শেষ সিরিজ অধিনায়ক মাশরাফির জন্য। এর পর নিউজিল্যান্ড আর আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় ওয়ান ডে  শেষে আন্তর্জাতিক  ক্রিকেট জীবনের ইতি টানবেন এই অসাধারণ ক্রিকেটার। মাশরাফি মনে করছেন, ‘ছোট ফর্মেটে ওয়েষ্ট ইন্ডিজ অসাধারন দল।জিতে হলে দলে সবাইকেই শতভাগ প্রতিভা উজার করে দিতে হবে।’

ইনজুরি কাটিয়ে উইন্ডিজদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে আবারও মাঠে ফিরছেন টাইগার ওপেনার তামিম ইকবাল।এই ওয়ান ডে সিরিজে সবমিলিয়ে ৫৯ রান সংগ্রহ করলেই প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১২ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করবেন তিনি। অন্যদিকে আড়াইশ উইকেটের প্রতীক্ষায় সাকিব।সিরিজে মোট ৬ উইকেট তুলে নিতে পারলেই সাকিব দ্বিতীয় বাংলাদেশী বোলার হিসাবে আড়াই’শ উইকেটের মালিক হবেন। অধিনায়ক মাশরাফির বাংলাদেশের একমাত্র বোলার যিনি ইতিমধ্যেই এই যোগ্যতা অর্জন করেছেন।৪.৮০ ইকোনমি রেটে মাশরাফির উইকেট সংখ্যা বর্তমানে ২৫১।

বিকেএসপিতে প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাটিং সহায়ক উইকেট দিলেও ওয়ানডে সিরিজের উইকেট স্পিনবান্ধব হবে। স্বাগতিক দেশ হিসেবে সফরকারীদের বোকা বানানোর জন্যই এমন উইকেট তৈরি করা হয়েছে, এমন ধারনা উইন্ডিজ কাপ্তান রভম্যান পাওয়েলের। প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশের ওপেনার, সৌম্য শতরানে জিতছে বাংলাদেশ।তারপরও অখুশি নন ওয়েষ্ট উইন্ডিজের অধিনায়ক। টেস্ট সিরিজে রান খরায় থাকা উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানরা মাশরাফিদের বিপক্ষে রানের দেখা পেয়েছে। টপ অর্ডারে কাইরন পাওয়েল, শাই হোপের পর মিডেল অর্ডারে রান পেয়েছেন রস্টন চেইজ। একই সাথে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে উইন্ডিজ স্পিনাররা দারুন বোলিং করেছে, বিশেষ করে রস্টন চেইজ।

স্পিনারদের সাথে সাথে বাংলাদেশের পেসারদেরকেও সামাল দিতে হবে শাই হোপ-কার্লোস ব্রাথওয়েটদের। ওয়েষ্ট   উইন্ডিজ ব্যাটসম্যান শাই হোপ জানালেন, ‘পরীক্ষার জন্যই নিজেদের প্রস্তুত করছেন তাঁরা। বাংলাদেশ দলের পেসাররা অনেক কোয়ালিটিসম্পন্ন।

বিকেএসপির এই উইকেটে ব্যাটসম্যানরা রান পেলেও বোলাররা ছিলেন একবারেই অসহায়। দুই দল মিলে ১৪ উইকেট নিতে সক্ষম হয়েছে বোলাররা, যেখানে নিজেদের ভুলেও আউট হয়েছেন কয়েকজন ব্যাটসম্যান। মিরপুরের উইকেট কেমন হবে সেটা নিশ্চিত নন নান্নু। সেখানের উইকেট দেখেই প্রথম ওয়ানডের একাদশ গঠন করা হবে বলে মনে করছেন নান্নু।যদিও বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপন মনে করেন, ওয়ানড়ে উইকেট স্পোর্টিং উইকেট হবে। বিশ্বকাপ মাথায় রেখেই উইকেট তৈরি হচ্ছে।

ছবিঃ গুগল