সন্দেশ ১০০

একশ বছরের কিছু বেশি সময় পার করে দিলো সন্দেশ পত্রিকা। ছোটদের জন্য এই অবিষ্মরণীয় পত্রিকাটি প্রথম প্রকাশ করেছিলেন প্রখ্যাত সাহিত্যিক সুকুমার রায়ের বাবা উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী। তখন ১৯১৩ সালের এপ্রিল মাস। সন্দেশ প্রকাশিত হয়েই বাচ্চাদের পৃথিবীতে সাড়া ফেলে দিলো। কিন্তু ১৯১৫ সালেই চলে গেনে উপেন্দ্রকিশোর জীবনের ওপারে। পত্রিকার হাল ধরলেন সুকুমার রায়। কিন্তু তিনিও থাকলেন না। ১৯৩৪ সাল থেকে দীর্ঘ সাতাশ বছরের বিরতি নামলো এই পত্রিকাটির উপরে। কিন্তু পারিবারিক পরম্পরা আর ঐতিহ্য নিয়ে কিন্তু বেঁচে রইলো সন্দেশ।

১৯৬১ সালে এসে রায় পরিবারের আরেক উজ্জ্বল সন্তান সত্যজিৎ রায় সম্পাদক হলেন সন্দেশের। তাঁর সঙ্গে যৌথ সম্পাদকের দায়িত্বে থাকলেন প্রখ্যাত কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়। টগবগিয়ে আবার যাত্রা শুরু সন্দেশ পত্রিকার।

বাচ্চাদের জন্য প্রকাশিত এই পত্রিকার বয়স এখন একশ। সম্প্রতি এই ঐতিহ্যবাহী পত্রিকাটির একশ বছরের কথা মনে রেখে কলকাতায় তৈরী হয়ছে ‘সন্দেশ ১০০’ নামে তথ্যচিত্র। এক ঘন্টার এই তথ্যচিত্রে সন্দেশের বহু লেখকদের বক্তব্য স্থান পেয়েছে। তথ্যচিত্রে দেখা যাবে সুকুমার রায় এবং সত্যজিৎ রায়ের আঁকা সন্দেশের প্রচ্ছদ, অলংকরণ, হেডপিস, সেই সময়ের প্রেসে ছাপার ব্লক, পাণ্ডুলিপি, অজস্র দুর্লভ ছবি এবং তথ্য।

এই তথ্যচিত্রটি নির্মাণ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের দুজন তরুণ চলচ্চিত্র পরিচালক সৌম্যকান্তি দত্ত ও সৌ্রদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় । তথ্যচিত্র তৈরী করতে মূল অর্থের জোগান এসেছে নানাজনের কাছ থেকে সাহায্য হিসেবে। এগিয়ে এসেছেন সত্যজিৎ রায়ের পুত্র চলচ্চিত্র নির্মাতা সন্দীপ রায়ও।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

তথ্যসূত্র ও ছবিঃ বঙ্গদর্শন