সমরেশ বসু : জন্মদিনের শ্রদ্ধাঞ্জলি

আবদুল্লাহ আল মোহন

কথাসাহিত্যিক সমরেশ বসু ১৯২৪ সালের ১১ ডিসেম্বর বাংলাদেশের ঢাকা জেলার মুন্সিগঞ্জ মহকুমার অন্তর্গত রাজনগর গ্রামে পৈতৃক বাস্তু ভিটায় জন্মগ্রহণ করেন। যাঁদের লেখনী বাংলা গদ্য সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে, বলা যেতে পারে সমরেশ বসু সেই শীর্ষ সারির প্রতিভাবান লেখকদের মধ্যে একজন। বিচিত্র স্বাদের বহু কথাকাহিনির, উপন্যাসের জনক তিনি। বাংলা কল্পকাহিনীরও

একটি অনুষ্ঠানে বুদ্ধদেব বসু ও সন্তোষ ঘোষের সঙ্গে

প্রথম সারির লেখক তিনি। কালকূট ও ভ্রমর তাঁর ছদ্মনাম। তাঁর রচনায় রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, শ্রমজীবী মানুষের জীবন এবং যৌনতাসহ বিভিন্ন অভিজ্ঞতার সুনিপুণ বর্ণনা ফুটে ওঠে। প্রবল দারিদ্র্যের মধ্যেও লেখালেখিই ছিল তাঁর একমাত্র পেশা। নিজ আদর্শ থেকে কখনো বিচ্যুত হননি তিনি।

‘সাহিত্যের যা কিছু দায় সে তো জীবনের কাছেই’-এই ছিল সমরেশ বসুর কথা। তাঁর বই যে খুব বেশি বিক্রি হতো তা নয়। খুব যে জনপ্রিয় ছিলেন তিনি এমনও বলা যাবে না। তবু কয়েক দশক ধরে সিংহের মতোই তিনি বিচরণ করেছেন সাহিত্যের অঙ্গণে।
‘কালকূট ’ছদ্মনামে লেখা ‘শাম্ব’ উপন্যাসের জন্য তিনি ১৯৮০ সালের সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পেয়েছিলেন। কালকূট মানে তীব্র বিষ। এটি তাঁর ছদ্মনাম। ‘অমৃত কুম্ভের সন্ধানে’, ‘কোথায় পাব তারে’ সহ অনেক উপন্যাস তিনি এ নামে লিখেছেন। তাঁর লেখা ছোট গল্পের সংখ্যা ২০০ এবং উপন্যাসের সংখ্যা ১০০।
সমরেশ বসুর বাবার নাম মোহিনী মোহন বসু। মায়ের নাম শৈবলিণী বসু।সমরেশ বসুর জন্মের সময় বাবার এক মাসিমা সদ্যজাত সমরেশকে দেখতে এসে বলেছিলেন, ‘এ যে তড়বড় কইরা আইয়া পড়ল’। এতেই ডাক নাম দাঁড়াল ‘তড়বড়ি’। পরে উচ্চারণ পরিবর্তে তরবরি। বাবার দেওয়া নাম ‘সুরথনাথ’। সমরেশ বসুর শৈশব কাটে বাংলাদেশের বিক্রমপুরে আর কৈশোর কাটে কলকাতার উপকণ্ঠ নৈহাটিতে।
বিচিত্র সব অভিজ্ঞতায় তাঁর জীবন ছিল পরিপূর্ণ। এক সময় মাথায় ফেরি করে ডিম বেচতেন। ১৯৪৩-৪৯ সাল পর্যন্ত ইছাপুরের কামান ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন। প্রবল দারিদ্র্যের মধ্যেও লেখালেখিই ছিলো তাঁর একমাত্র পেশা। নিজ আদর্শ থেকে কখনো বিচ্যুত হননি তিনি। এক সময় ট্রেড ইউনিয়ন ও কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য ছিলেন। কমিউনিস্ট পার্টি অবৈধ ঘোষিত হলে ১৯৪৯-৫০ সালে তাকে জেল খাটতে হয়েছিলো। জেলে অবস্থানকালে তিনি প্রথম উপন্যাস ‘উত্তরঙ্গ’ লিখেন। জেল থেকে মুক্ত হয়ে সমরেশ বসু লেখালেখিকে পেশা হিসেবে নেন। ২১ বছর বয়সে উপন্যাস ‘নয়নপুরের মাটি’ লিখেন। তার প্রথম ছোটগল্প ‘আদাব’।
বিচিত্র বিষয় এবং আঙ্গিকে নিত্য ও আমৃত্যু ক্রিয়াশীল লেখকের নাম সমরেশ বসু। দেবেশ রায় তাঁর মৃত্যুতে লেখা রচনাটির শিরোনামই দিয়েছিলেন, ‘জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তিনি লেখক এবং পেশাদার লেখক’ (প্রতিক্ষণ, ৫ম বর্ষ, ১৭ সংখ্যা, ২-১৬ এপ্রিল ১৯৮৮)। লিখেছিলেন, ‘তিনি আমাদের মতো অফিস-পালানো কেরানি লেখক ছিলেন না যাঁদের সাহস নেই লেখাকে জীবিকা করার অথচ ষোল আনার ওপর আঠারো আনা শখ আছে লেখক হওয়ার।’ স্মৃতিতাড়িত সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদারের কথায়, ‘ওঁর জীবনযাপন, ছেলেমানুষি আচরণ অনেকটাই ছিল ফরাসিদের মতো।’ সেই সমরেশ বসু পরকীয়ার জেরে আপন দুই বোনকে বিয়ে করে একসঙ্গে সংসারও করেছিলেন।
তার প্রকাশিত গল্প ও উপন্যাস সমূহঃ উত্তরঙ্গ, গঙ্গা, বিবর, প্রজাপতি, দেখি নাই ফিরে, সওদাগর, কোথায় পাবো তারে, নয়নপুরের মাটি, বাঘিনী, চলো মন রুপনগরে, পাতক, মুক্তবেণীর উজানে, টানাপোড়েন, স্বীকারোক্তি, অপদার্থ, সুচাঁদের স্বদেশযাত্রা, যুগ যুগ জীয়ে, মহাকালের রথের ঘোড়া, শেকল ছেঁড়া হাতের খোঁজে, বাঘিনী, বিপর্যস্ত, শাম্ব, বিটি রোডের ধারে, শ্রীমতি কাফে, অবশেষে, আম মাহাতো, কামনা বাসনা, কে নেবে মোরে, খন্ডিতা, গোগোল চিক্কুস নাগাল্যান্ড, ছায়া ঢাকা মন, জঙ্গল মহলের গোগোল, জবাব, তিন পুরুষ, দাহ, নাটের গুরু, নিঠুর দরদী, পথিক, প্রাণ প্রতিমা, বাঘিনী, বিদেশী গাড়িতে বিপদ, ভানুমতী ও ভানুমতীর নবরঙ্গ, মহাকালের রথের ঘোড়া, রক্তিম বসন্ত, শিমুলগড়ের খুনে ভূত, সেই গাড়ির খোঁজে, স্বর্ণচঞ্চু, হৃদয়ের মুখ ইত্যাদি।
বিচিত্র বিষয় এবং আঙ্গিকে নিত্য ও আমৃত্যু ক্রিয়াশীল ক্ষণজন্মা লেখক সমরেশ বসু ১৯৮৮ সালের ১২ মার্চ ৬৩ বছর বয়সে মারা যান। লেখক হিসেবে সমরেশ আমৃত্যু যে লড়াই করেছেন তার কোনো তুলনা নেই। তাঁর নিজের জীবনই আরেক মহাকাব্যিক উপন্যাস। মৃত্যুকালেও তার লেখার টেবিলে ছিল ১০ বছরের অমানুষিক শ্রমের অসমাপ্ত ফসল শিল্পী রামকিংকর বেইজের জীবনী অবলম্বনে উপন্যাস ‘দেখি নাই ফিরে ’। সমরেশ বসুর নিজের জীবনই আরেক মহাকাব্যিক উপন্যাস। প্রায় ৫ লাখ শব্দের ‘চিরসখা’ নামের বিশাল উপন্যাসে সেই লড়াইকে স্মরণীয় করে রেখেছেন তারই পুত্র নবকুমার বসু।আজ তাঁর জন্মদিনে প্রাণের বাংলার পক্ষ থেকে তাঁকে জানাই শুভেচ্ছা।

(তথ্যসূত্র : উইকিপিডিয়া, দেশ, বইয়ের দেশ, দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকাসহ বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, ইন্টারনেট)