সেই ম্যাচের আরো অনেক কিছু

আহসান শামীম

কব্জিভাঙ্গা হাত নিয়ে হাসপাতাল থেকে শেষ ব্যাটসম্যান হিসাবে শনিবার লঙ্কানদের বিপক্ষে মাঠে নামার পর ক্রিকেট বিশ্বে এখন আলোচিত নাম তামিম।তামিমে এই বীরত্বের গল্পের আলোচনায় সেই মুশফিকের ক্যারিয়ারের ১৫০ বলে ১৪৪ রানের সেরা ইনিংস, দীর্ঘদিন জাতীয় দলে সুযোগ না পাওয়া মিথুনের ঠান্ডা মাথায় অনবদ্য ৬৪ রানের ইনিংস, অধিনায়ক মাশরাফির পাকিস্তানের `স্পিড মাষ্টার’ নামে খ্যাত সোয়েব আক্তারের রেকর্ড স্পর্শ করা আর ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের সমর্থকদের গ্যালারি পরিস্কার করে দিয়ে আসার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত চাপা পরে গেছে।শেষ ১৩ ম্যাচে লঙ্কানদের বিপক্ষে জয়ের পাল্লাটাও এখন বাংলাদেশের দিকেই ভারী। লঙ্কানদের বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় এখন ৬ আর বাংলাদেশের জয় ৭ ম্যাচ।

শনিবার বাংলাদেশের ২৬২ রানের জবাবে লঙ্কানরা সব উইকেট হারায় ৩৫.২ ওভারে ১২৪ রান, বাংলাদেশ জয় পায় ১৩৭ রানের।বাংলাদেশের বিপক্ষে এটাই লঙ্কানদের সবচেয়ে কম রানের রেকর্ড।পরাজয়ের ব্যবধানের দিক থেকে এটা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।এর আগে চলতি বছরে দেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে শ্রীলঙ্কাকে ১৬৩ রানে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। সেবার টাইগারদের ছুঁড়ে দেয়া ৩২১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে মাত্র ১৫৭ রান অলআউট হয়েছিল লঙ্কানরা।

তারপরও লঙ্কান কোচ হাতুরাসিংহ মনে করেন লঙ্কানরা ভাল খেলেছে বাংলাদেশের তুলনায়।যদিও ভারতের সাবেক ক্রিকেটার আকাশ চোপরার মতে, “বাংলাদেশ অগ্রগামী, শ্রীলংকা পশ্চাৎগামী দল”। পাকিস্তানের রমিজ রাজা এবার এশিয়া কাপে বাংলাদেশকে ভয়ংকর দল হিসাবে অখ্যায়িত করেছেন।জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার ও সাবেক কিউই ক্রিকেটার সাইমন ডুল মনে করেন এশিয়া কাপ থেকে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে থেকে যেকোনো এক দলকে বিদায় করে দেয়ার সামর্থ্য রাখে বাংলাদেশ দল।

তামিম আর সাকিবের পর পাঁচ হাজারি ক্লাবে নাম লেখাতে মুশফিকের প্রয়োজন আর মাত্র ২৮ রান। লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচের পর বর্তমানে টাইগার উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যানের রান সংখ্যা ৪৯৭২।২৮ রানের দূঃখটা অপ্রকাশিত রাখেননি মুশফিক।শুধু তাই নয়, মুশফিকের এই ইনিংসটা ওয়ানডে ফরম্যাটের এশিয়া কাপে এখন পর্যন্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। ২০১২ সালের এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৮৩ রানের ইনিংস খেলেছিলেন ভারতের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলি। এখন পর্যন্ত সেটাই এশিয়া কাপের সেরা ব্যক্তিগত স্কোর। কোহলির পরেই এখন অবস্থান মুশফিকের।

আজ ডেথ গ্রুপে লঙ্কানরা মাঠে নামছেন আফগানদের বিপক্ষে , গ্রুপ ফোরে পা রাখতে হলে আজ জেতার কোন বিকল্প নেই লঙ্কানদের সামনে। শুধু জিতলেই হবে না অপেক্ষায় থাকতে হবে ২০ তারিখে বাংলাদেশের বিপক্ষে আফগানদের খেলার ফলাফলের ওপর।

ছবিঃ গুগল