স্মৃতিচারণ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পোস্টবক্স। ফেইসবুকের একটি জনপ্রিয় গ্রুপ। এবার প্রাণের বাংলার সঙ্গে তারা গাঁটছড়া বাঁধলেন। প্রাণের বাংলার নিয়মিত বিভাগের সঙ্গে এখন থাকছে পোস্টবক্স-এর রকমারী বিভাগ। আপনারা লেখা পাঠান পোস্টবক্স-এ। ওখান থেকেই বাছাইকৃত লেখা নিয়েই হচ্ছে আমাদের এই আয়োজন। আপনারা আমাদের সঙ্গে আছেন। থাকুন পোস্টবক্স-এর সঙ্গেও।

উম্মে রাবেয়া শাম্মী

যুগের হাওয়ায় এখন আমাদের সবার হাতেই ফোন শোভা পায়। কিন্তু একসময় এই ফোনই ছিল বেশ দূর্লভ এক বস্তু। বেশ কম বাড়ি বা পরিবারের ড্রইং রুমে কিংবা বেডরুমের বেড সাইড টেবিলে শোভা পেতো এই টেলিফোন। যার দেখা পেলাম প্রায় ২২/২৩ বছর পর আমেরিকার নিউ হেভেনের গ্র্যাজুয়েট হোটেলে যেয়ে।

মনে পড়ে গেল আমাদের বাসার কথা। আমাদের ক্যান্টনমেন্টের বাসায় ঠিক এমনই একটি ফোন ছিলো। যার নাম্বার এখনও মনে আছে ৬০০৮২০. এর আওয়াজ এতই তীক্ষ্ণ ছিলো যে নির্জন কোন দুপুরে এটা বেজে ওঠলে দু/ তিন বাসা দুর হতে তা শোনা যেতো। আমাদের বাসায় ফোন আছে সেটাও একটা ভাবের বিষয় ছিলো। সে সময়টায় ফোন / গাড়ি থাকা মানে বেশ সম্ভান্ত্র পরিবাবের ছাপ।

আশপাশের বিভিন্ন বাসার লোকজন আমাদের নাম্বার জানতো। তাই বিদেশ থেকে বা দুরের কোন আত্মীয়র কল এলেই তাদের ডেকে আনার কাজ থাকতো আমাদের। জানা হতো নানা পরিবারের সুখ
দুঃখের গল্প। কত আনন্দ – বেদনার স্বাক্ষী ছিলো আমাদের সেই ফোন। কত রং নাম্বারের আনাগোনা। নায়ক নায়িকাদের ফোন নাম্বার জোগাড় করে অনাহেতুক কল দেয়া কিংবা উল্টা পাল্টা নাম্বারে ফোন করে বিরক্ত করা ছিলো বেশ উপভোগ্য বিষয়।

আগের এক গল্পে বলেছিলাম আমার বাবার ইলেকট্রনিক ডিভাইসের প্রতি ছিলো বেশ আগ্রহ। তাই ১৯৯৮ সালে আব্বা দিলেন এই এনালগ ফোনটি বিক্রি করে। নিয়ে এলেন ০১৯ ডিজিটের সেবার মোবাইল সিমেন্সের সেট। কলরেট অনেক ছিলো ঠিক কত মনে নেই তবে ইনকামিং ও আউটগোয়িং সবকিছুতে টাকা কাটতো।

ধীরে ধীরে পরিবর্তন হলো যুগের। বাসায় এলো ডিজিটাল ফোন। তারও কিছু পরে শুরু হলো ডিজুসের যুগ আর এখনতো ২ জিবি, ৪ জিবির যুগ। সামনে আরও কত কি দেখে যাবো।

কিন্তু সেই আভিজাত্যের প্রতীক আর রইরো না। হারিয়ে গেল কালের গর্ভে।।

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন [email protected]