হারটা হজম করা সত্যি কষ্টকর

আহসান শামীমঃ হারটা হজম করা সত্যি কষ্টকর। টস জেতার পর ফিল্ডিং এর সিদ্ধান্ত, ৪৯ তম ওভারে রুবেলের অনিয়ন্ত্রিত বলিং থেকে বের হয়ে যাওয়া ২২ রান, তামিমের উইকেট বির্সজন, মাহামুদুল্লার পাগলমী করে রান আউট, শেষ প্রান্তে ফুলটস বল খেলতে গিয়ে সাব্বির-মুশফিকের একই কায়দায় পরপর আউট হওয়া-সব জগাখিচুড়ি পাকিয়ে শেষে তিন রানে হার। সত্যিই এই পরাজয় মেনে নেয়া কষ্টকর।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাশরাফি আক্ষেপ করে জানালেন, “খেলা শেষ বল পর্যন্ত-ই ছিল। তারপরও রিয়াদের ওই সময় রান আউটটা না হলে হয়ত খেলা সহজ হয়ে যেত। আরও আগেই শেষ করা যেত।” অধিনায়কের কথা হয়ত অনেকখানিই সঠিক।তারপরও শুধু রিয়াদের দিকেই আঙ্গুল ওঠানোটা অনেকেই যুক্তিসঙ্গত বলে মনে করছেন না।

১৩ বলে ১৪ রান লাগবে, ৬ উইকেট হাতে, সেখান থেকে ম্যাচ হারার আসলেই কথা না।তারপরও ম্যাচটা হেরেছে বাংলাদেশ মাত্র ৩ রানে।এমন ঘটনা বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে নতুন নয়। বেশ কয়েকবার সম্ভাবনা জাগিয়েও এমন কাছে থেকে খালি হাতেই ফিরতে হয়েছে বাংলাদেশকে। দিনদিন শেষ মুহূর্তে শেষ করতে না পারার সংখ্যাটা বেড়েই চলছে। অধিনায়ক মাশরাফির মনে হচ্ছে তার দলের এমন ম্যাচগুলো উইকেটে থাকা ব্যাটসম্যানদের মাধ্যমেই ফলের মধ্য দিয়ে শেষ করে আসা উচিত। যা করে দেখাতে ব্যর্থ হলেন মুশফিক-সাব্বির।

বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের শুরুটা ছিল মারমুখি ।মাত্র ৪.৪ ওভারে প্রথম দলীয় অর্ধশত রান, যা বাংলাদেশের ক্রিকেটে ইতিহাসে নতুন রেকর্ড ।ওপেনিং এ বিজয়ের ৯ বলে ২৩ রান। তারপরই বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন বিজয়। তামিম-সাকিব জুটির শতরানের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে তামিমের অস্থিরতায় ৮৪ বলে ৫৪ করে তাকে ফিরতে হয়েছে সাজঘরে।তামিম সাজঘরে ফেরার পর ৭২ বলে ৫২ রান করা সাকিবও আউট।বাংলাদেশের দলীয় রান তখন ১৪৩/৩ উইকেটে।

বিজয়, তামিম, সাকিব আউট হওয়ার পর জয়ের জন্য রান রেটটা বেশ বড়ই ছিল।মুশফিক, রিয়াদের জুটি নতুন করে বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখান।দেখে শুনে বড় একটা জুটি গড়ার পর হঠাৎ করে জোর করে প্রয়োজনহীন রান নিতে গিয়ে যেভাবে আউট হলেন সেটা মেনে নেওয়াটা কঠিন। মাঠে সাব্বির নামলেও জয়টা হাতের মুঠোয় নিয়ে আসেন ডিপেন্ডেবল ব্যাটসম্যান মুশফিক।৪৮ তম ওভারে মুশফিকের মারমুখী ব্যাটিং ওয়েস্ট উইন্ডিজের পরাজয়টা ছিল সময়ের অপেক্ষা।এরপরই দূঃস্বপ্ন ছুঁয়ে দিলো গেলে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলেকে। ফুলটস বল উড়িয়ে মারতে গিয়ে আউট সাব্বির, পরের বলে সাব্বিরে ভুলেই একই শর্ট খেলে মুশফিকের বিদায়।জয়ের স্বপ্নটা তখন ঘোলাটে। এরপরও জয়টা সম্ভব ছিল, হলো না। নিজেদের জয়টা হাতে বদল করে উপহার দিয়ে এলেন ওয়েষ্ট উইন্ডিজকে মোসাদ্দেক আর মাশরাফি জুটি।

 

ছবিঃ গুগল