সাবা একা!

saba (4)

দশ বছরের সংসার জীবনে ঢুকে পরেছিলো ঘুনপোকা। কুঁড়ে কুঁড়ে শেষ করে দিল সাজানো সংসার। এখন চলছে ডিভোর্স প্রক্রিয়া। প্রায় ছ’বছর ধরেই আলাদা বসবাস করছেন সাবা- মুরাদ দম্পতি। হঠাৎ করেই এই ঝড়ের কারণ জানতে চাইলে সাবা বলেন, আসলে আমি আমার ব্যক্তিগত বিষয় গুলো কাছের মানুষজনের কাছেও শেয়ার করি না। শুধু এটুকু বলবো দশ বছর সংসার করেছি তারও যেমন কারণ ছিলো সংসার ছেড়ে আসার পেছনেও তেমনি কারণ আছে।

আচ্ছা আপনি কিছু বলতে চাইছেন না কিন্তু মুরাদ যদি কোথাও কারণটা বলে দেন? দেখুন, অনেকদিন তো হলো কোথাও তো মুরাদ কিছু বলনি। দশ বছর সংসার করেছি এতটুকু বোঝাপড়া তো আমাদের আছে।

শুদ্ধ স্বরবর্ণের ব্যপারে কিছু বলেন? ও আমাদের সন্তান। এখন আমার কাছে আছে, থাকবেও। তবে সন্তানের জন্য বাবা-মা দুজনই প্রয়োজন। আমরা দুজনই ওর সঙ্গে থাকবো। মুরাদ সব সময়ই ওর খোঁজ খবর করে। দেখতে আসে।

আপনার সঙ্গে কি এখন মুরাদের দেখা হয়?  আসলে আমি আমার কাজ নিয়ে খুব ব্যস্ত। সব সময় বাসায় থাকি না। তবে মাঝে মধ্যে যে দেখা হয় না তা কিন্তু নয়

’বৃহন্নলা’ ছবিটা নিয়ে চারিদিকে যে আলোচনা সমালোচনা চলছে এ বিষয়ে আপনার পতিক্রিয়া কি? এটা একান্তই মুরাদের বিষয় ।আমি কিছু বলতে চাই না। এখন সময়ের ব্যাপার । সময়ই সব কিছু প্রমান করে দিবে। তবে ব্যক্তিগত ভাবে সব সময় আমি মুরাদের ভালো চাই। ও যেন সব সময় ভালো থাকে।

শোনা যায় কলকাতার পত্রপত্রিকা অনেক আগেই মুরাদের এই কাহিনী চুরির বিষয়ে লেখালেখি করেছে। আপনার হস্তক্ষেপে নাকি বাংলাদেশের মিডিয়া চুপ ছিলো? বাব্বা আমার এত ক্ষমতা!!  এটা ভেবেইতো আমি অবাক হলাম।

আগামী ২০ অথবা ২৭ মে কলকাতায় মুক্তি পাচ্ছে সাবা অভিনিত “ষড়রিপু” ছবিটি। এতে সাবার সঙ্গে অভিনয় করেছেন, ইনদ্রনীল সেনগুপ্ত, রজতাভ দত্ত, চিরন্জিত প্রমূখ।

এখন নতুন কোন ছবিতে কাজ করছেন কি? কয়েকটা ছবির কথাবার্তা চলছে। তবে এই মূহুর্তে বলার মত তেমন কিছুনা। এখন ব্যস্ত আছি অনিরূদ্ধ রাসেলের ধারাবাহিক নাটক ‘টাইম’ নিয়ে।

সাবা এখন ব্যস্ত আছেন থাইল্যান্ডে ‘টাইম’ এর শুটিং নিয়ে। ফিরবেন ১লা অথবা ২রা এপ্রিল। তাছাড়া দীপ্ত টিভির ‘খেলাঘর’ নামক একটা ধারাবাহিকেও  অভিনয় করছেন।

একাকী এই জীবনে ভবিষ্যত কোন পরিকল্পনা আছে কি জানতে চাইলে বলেন, এখনও কিছু ভাবিনি। নাটক এবং ছেলে নিয়েই ব্যস্ত সময় কাটছে। কিছু ভাবা বা বোঝার সুযোগ পাচ্ছি না। তবে  আমি কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকতে চাই।

প্রাণের বাংলা প্রতিবেদক