সিমন্স আসছেন না হেড কোচের পদে

আহসান শামীমঃ টাইগারদের কোচের পদে দায়িত্ব নিতে ইতিমধ্যে বাংলাদেশে এসে পরীক্ষা দিয়েছেন বেশ কয়েকজন। টাইগারদের সাবেক কোচ রিচার্ড পাইবাস এসেছিলেন সবার আগে। পাইবাসের পর বাংলাদেশে আসেন ফিল সিমন্স।অবশ্য এই দুজনের কাউকেই দায়িত্ব দেয়া হবে না বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

বিসিবি’র  পাইবাসকে পছন্দ হয়েছিল।অবশ্য দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা আর রুক্ষ মেজাজের কারণে পাইবাসে আপত্তি বিসিবি পরিচালকদের। দলের সিনিয়র খেলোয়াড়াও তার ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাবের কথা জানিয়েছেন। ফিল সিমন্সের প্রতি ঝোঁক বেশি খেলোয়ারদের, দল নির্বাচনে নাক গলানোর কোন স্বভাব নেই। খেলোয়াড়দের সাথে আন্তরিক , টেকনিক্যাল জ্ঞানও প্রখর।সেখানেই ভয় ফিল সিমন্স কে নিয়ে বিসিবি’র । সিমন্স এলে সাকিব, তামিদের বেতন ভাতা আর সুযোগ সুবিধা নিয়ে এক ধরণের আশংঙ্কা থেকে তাঁর নামও হেড কোচের তালিকায় বাদ পড়ে যাচ্ছে । এ বিষয় পরিচালকদের কেউ স্পষ্ট বা পরিষ্কার করে কেউ কিছু না জানালেও বোর্ডের অতি উচ্চ পর্যায়ের নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করছে, পাইবাস কোচ হচ্ছেন না। অন্যদিকে পরিচয় গোপন রেখে বোর্ডের একাধিক শীর্ষ কর্তা জানিয়েছেন, ফিল সিমন্সকেও আদর্শ ভাবছে না বিসিবি।

 অন্যদিকে ব্যাটিং কোচ নিয়ে বরাবরই বিসিবি‘র আগ্রহ বরাবরই কম হলেও হঠাৎ করেই আজ বুধবার বেক্সিমকো কার্যালয়ে নাজমুল হাসান সাংবাদিকদের জানান , ‘প্রধান কোচের বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। কয়েকজনের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে, আজকেও কোচ হতে আগ্রহীদের মেইল পেয়েছি আমরা। ত্রিদেশীয় আর শ্রীলঙ্কা সিরিজে আমরাই চালিয়ে নেবো। আমরা অবশ্য একজন টপ ক্লাস ব্যাটিং পরামর্শক নেওয়ার চেষ্টা করছি, তার নাম বলা যাবে না।’

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় , দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে জন্ম নেয়া ম্যাকেঞ্জি, হচ্ছেন টাইগারদের ব্যাটিং কোচ। ম্যাকেঞ্জির ২০০০ সালে আফ্রিকা দলে অভিষেক হয়। তার বাবা কেভিন ম্যাকেঞ্জিও ছিলেন একজন ক্রিকেটার। ২০০০ সাল থেকে ২০০৯ পর্যন্ত আফ্রিকার হয়ে ৫৮ টেস্টে এক ডাবলসহ পাঁচ সেঞ্চুরি এবং ১৬  হাফসেঞ্চুরিতে ৩২৫৩ রান করেন। ৬৪  ওয়ানডে ম্যাচে দুই সেঞ্চুরি এবং ১০ অর্ধশতক মিলে ১৬৮৮ রান করেন এবং ২ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

সেই সাথে শ্রীলংকার বিপক্ষে দল নিয়েও তিনি মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এবং মুশফিকুর রহিমকে দারুণ ভরসা করছেন বিসিবির সর্বোচ্চ পর্যায়ের অভিভাবক।শুধু ব্যাটসম্যানদের ক্ষেত্রে নয়, বোলারদের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন আসছে না বলে জানিয়েছেন তিনি।বোলিং নিয়ে বিসিবি সভাপতি  পাপন জানিয়েছেন,”আপনি বোলিংয়েও খুব বেশি পরিবর্তন আনতে পারবেন না। যদি ওয়ানডে হয়, মাশরাফিকে বাদ দেয়ার প্রশ্নই উঠে না। একটা দুইটা পেসার নিলে, মোস্তাফিজ তো খেলবেই।তার সঙ্গে কে খেলবে তাসকিন, রুবেল বা অন্য কেউ; এখানে কিন্তু সুযোগ কম। নতুন কারো জন্য জায়গা পাওয়া কঠিন। স্পিনারদের মধ্যে মিরাজ, তাইজুল আছে। হয়তো আর একটা নাম ঢুকবে।”

ছবিঃ গুগল