বছরের সেরা ১০ স্মার্টফোন

বড় বড় সব স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানি নিয়মিত বিরতিতেই নতুন নতুন মডেলের ফোন বাজারে আনছে। এই মুহূর্তে প্রভাবশালী স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলোর প্রতিটিরই লেটেস্ট ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস বাজারে  আছে। অ্যাপলের আছে আইফোন ১০, আইফোন ৮ এবং ৮ প্লাস, স্যামসাংয়ের আছে গ্যালাক্সি নোট ৮, ওয়ানপ্লাসের রয়েছে ফাইভ-টি, গুগলের পিক্সেল ২ প্রভৃতি। এই বছরের সব স্মার্টফোন গুলোতে বেজেললেস এবং ডুয়েল ক্যামেরা একটা প্রধান বৈশিষ্ট ছিল। তো, চলুন জেনে নিই এই মুহূর্তে বিশ্বের সেরা এবং সবচেয়ে ভাল স্মার্টফোন কোনগুলো।

১০. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৮ এবং গ্যালাক্সি এস৮ প্লাস

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৮ এবং এস৮+ দেখতে অ্যাপল আইফোন ৮ এবং ৮+ এর চেয়ে ভাল বলে মনে করেন অনেকে। এর অসাধারণ ডিজাইন এবং শক্তিশালী স্পেসিফিকেশন আপনার ভাল লাগতে বাধ্য। ইনফিনিটি স্ক্রিনের গ্যালাক্সি এস৮ এবং এস৮ প্লাস তাই স্থান পেলো এই টপ-টেন লিস্টে।

৯. আইফোন ৭ এবং আইফোন ৭ প্লাস

আইফোন ৭ বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ফোন এবং ব্যবহারকারীদের ফোনটির সর্বোচ্চ অভিজ্ঞতা প্রদানে বদ্ধপরিকর। ফোনটিতে আইফোন ৬এস থেকে কিছু উন্নত ফিচার রয়েছে যেমন, পানি নিরোধক প্রযুক্তি, অল্প আলোতে ছবি তোলার জন্য উন্নততর ক্যামেরা, আরো শক্তিশালী প্রসেসর প্রভৃতি। ডুয়েল লেন্স ক্যামেরা হচ্ছে আইফোন ৭+ এর অন্যতম আকর্ষণীয় ফিচার যা আইফোন ৭ এর সঙ্গে ফোনটির পার্থক্য তৈরি করেছে। এটি ছবি তোলায় আপনাকে প্রফেশনাল ফটোগ্রাফারের অনুভূতি প্রদান করবে। যেমন, ডিভাইসটি সাবজেক্টের বাহিরের অংশ ব্লার করে দেবে। এর টেলিফটো লেন্স আপনাকে দ্বিগুন জুম করতে সাহায্য করবে।

৮. রেজর ফোন

বিশ্বখ্যাত গেমিং পিসি নির্মাতা রেজর মাসখানেক আগে সবাইকে অবাক করে দিয়ে উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন স্মার্টফোন ‘রেজর ফোন’ লঞ্চ করেছে, যেটি ভালভাবে গেম খেলার জন্য অন্যান্য স্মার্টফোনের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ ডিসপ্লে ফ্রেম রেট নিয়ে এসেছে। রেজর ফোনের স্ক্রিনে আপনি পাবেন ১২০ ফ্রেম/সেকেন্ড। এতে আছে ৫.৭ ইঞ্চি স্ক্রিন, দুটি ১২ মেগাপিক্সেল ব্যাক ক্যামেরা, ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা, স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর, ৮ জিবি র‍্যাম, ৬৪ জিবি স্টোরেজ, ৪০০০ এমএএইচ ব্যাটারি প্রভৃতি। বিজনেস ইনসাইডারের মতে, রেজর ফোনের স্ক্রিন এবং গ্রাফিক্স অন্য যেকোনো ফোনের জন্য স্ট্যান্ডার্ড বলা যায়।

৭. স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৮

গ্যালাক্সি নোট হচ্ছে স্যামসাংয়ের ফ্ল্যাগশিপ প্রিমিয়াম স্মার্টফোন সিরিজ। এই মুহূর্তে এর সর্বশেষ সংস্করণ হল গ্যালাক্সি নোট ৮, যাতে আছে চোখ ধাঁধানো ডিজাইন, চমৎকার ৬.৩ ইঞ্চি (১৪৪০ x ২৯৬০পি) ডিসপ্লে, দ্রুততর পারফরমেন্স, পেছনে ১২ মেগাপিক্সেল ডুয়াল লেন্স ক্যামেরা, ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা, ৬জিবি র‍্যাম, স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর/এক্সাইনস ৮৮৯৫ প্রসেসর, স্টাইলাস এবং আরও অনেক কিছু।

৬. ওয়ানপ্লাস ফাইভ-টি

চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানি ওয়ানপ্লাসের নতুন ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস ওয়ানপ্লাস ৫টি ফোন। এতে আছে চমৎকার সব স্পেসিফিকেশন, ডিজাইন ও ফিচার। এর স্ক্রিনের উপরে ও নিচে খুবই কম জায়গা আছে, যা একে চলতি সময়ের ট্রেন্ডের সঙ্গে মানিয়ে নেয়। ডিভাইসটির দাম ৫০০ ডলার থেকে শুরু।

৫. গুগল পিক্সেল ২

পিক্সেল ২ হচ্ছে গুগলের নিজস্ব ব্র্যান্ডের লেটেস্ট ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন। এতে আছে কম বেজেলের ৫ ইঞ্চি স্ক্রিন, ১২.২ মেগাপিক্সেল ব্যাক ও ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা, স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর, ৪ জিবি র‍্যাম, ৬৪/১২৮জিবি স্টোরেজ, ২৭০০ এমএএইচ ব্যাটারি প্রভৃতি।

৪. গুগল পিক্সেল ২ এক্সএল

গুগল পিক্সেল ২ ফোনে যত সুবিধা আছে, পিক্সেল ২ এক্সএল ফোনে তার থেকেও বেশি সুবিধা পাওয়া যায়। এতে আছে কম বেজেলের ৬ ইঞ্চি স্ক্রিন, ১২.২ মেগাপিক্সেল ব্যাক ও ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা, স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর, ৪ জিবি র‍্যাম, ৬৪/১২৮জিবি স্টোরেজ, ৩৫২০ এমএএইচ ব্যাটারি প্রভৃতি।

৩. অ্যাপল আইফোন ৮

সেপ্টেম্বর ২০১৭তে অ্যাপল প্রকাশ করেছে নতুন ৩টি স্মার্টফোন। একটি হচ্ছে আইফোন ৮। অন্য দুটি আইফোন ৮ প্লাস এবং আইফোন ১০। আইফোন ৮ এর স্ক্রিন সাইজ ৪.৭ ইঞ্চি (১৩৩৪ x ৭৫০পি, ৩২৬ পিপিআই), আইফোন ৮ এ রয়েছে ৭ মেগাপিক্সেল ফুল এইচডি ফ্রন্ট ক্যামেরা। পেছনের দিকে একটি ১২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা আছে। মূল ক্যামেরায় পাচ্ছেন ডুয়াল টোন কোয়াড এলইডি ফ্ল্যাশ।

২. অ্যাপল আইফোন ৮ প্লাস

আইফোন ৮ প্লাসের স্ক্রিন সাইজ ৫.৫ ইঞ্চি (১০৮০ x ১৯২০পি, ৪০১পিপিআই), আইফোন ৮+ এ রয়েছে ৭ মেগাপিক্সেল ফুল এইচডি ফ্রন্ট ক্যামেরা। পেছনের দিকে দুটি ১২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা আছে। মূল ক্যামেরায় পাচ্ছেন ডুয়াল টোন কোয়াড এলইডি ফ্ল্যাশ।

১. অ্যাপল আইফোন ১০

আইফোন ১০ হচ্ছে অ্যাপলের পরবর্তী প্রজন্মের আইফোন, যাতে বেশ কিছু চোখে পড়ার মত পরিবর্তন এসেছে। এতে সামনের দিকে প্রায় পুরোটা জায়গা জুড়েই স্ক্রিন দেয়া হয়েছে। বাদ পড়েছে হোম বাটন ও ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার। আইফোন ১০ এ এসেছে ফেস আইডি বা ফেইস স্ক্যানার যা ব্যবহারকারীর মুখমণ্ডল স্ক্যান করে ফোন আনলক করবে। অ্যাপল বলছে, ফেস আইডি হবে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানারের চেয়েও নিরাপদ।

EMI সুবিধা ও ১ বছরের ওয়ারেন্টিতো সহ পাবেন অ্যাকুয়া গ্যাজেটে।

সাইফ তনয় (টেক ব্লগার)
ছবিঃ গুগল