শাস্তি পেলেন সাব্বির ও তামিম

আহসান শামীমঃ কিছু দিন আগে জাতীয় ক্রিকেট লিগের শেষ   রাউন্ডের ম্যাচে এক কিশোর দর্শককে পিটিয়েছিলেন সাব্বির। শুধু তাই নয় ম্যাচ অফিসিয়ালের সঙ্গে খারাপ আচরণও করেন জাতীয় দলের এই তরুণ ক্রিকেটার। ওই দুই অপরাধে বড় শাস্তিই পাওয়ার আশংকায় ছিলেন সাব্বির ।

বছরের প্রথম দিনে নিজের বেক্সিমকো কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের কাছে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানান, সাব্বিরের বিষয়ে আমাদের শৃঙ্খলা কমিটি ইতোমধ্যোই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে সাব্বির নতুন বছর থেকে বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আর থাকছেন না বলে এসময় তিনি নিশ্চিত করেন। দর্শকের গায়ে হাত তোলার মতো গুরুতর অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। শুধু কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়েই রেহাই পাননি সাব্বির। এর জন্য ২০ লাখ টাকা জরিমানার পাশাপাশি ৬ মাসের জন্য ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিষিদ্ধ হয়েছে তাকে।

পাপন আরও জানান, ‘শৃঙ্খলা কমিটির সুপারিশগুলো এখনই বিসিবির চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পরিণত হয়নি (কেবল কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পরার বিষয়টা ছাড়া)। আগামী বোর্ড সভায় বিসিবি সাব্বিরের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। পরবর্তীতে সাব্বিরের শাস্তি কমছে না, বরঞ্চ বাড়ছে।’

শুধু সাব্বির নন, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) চলাকালীন উইকেট নিয়ে বাজে মন্তব্য করায় তামিম ইকবালকে কী শাস্তি হচ্ছে, তা ঘোষণা করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এই অপরাধে ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা হয়েছে জাতীয় দলের এই ওপেনারের। শুধু জরিমানা করাই নয়, তামিম ইকবালকে একই সঙ্গে ভবিষ্যতের জন্য সতর্কও করে দেয়া হয়েছে। উইকেট নিয়ে তামিম যেসব কথা বলেছেন, সেগুলোকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ক্ষতিকর হিসেবে উল্লেখ করেন বিসিবি সভাপতি। নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘তামিমের কথাবার্তা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য ক্ষতিকর।’

 টাইগারদের ওয়ান ডে অধিনায়ক মাশরাফিও একই রকম মন্তব্য করার পরও তাঁর বিপক্ষে কোন শাস্তির সুপারিশ না থাকায় তিনি কোন শাস্তি পাচ্ছেন না।

বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়ার ফলে বড় ধরণের সাজা দিয়েই ২০১৮ সাল শুরু হলো সাব্বিরের । সাব্বিরের এই সাজার কারনে কেন্দ্রীয় চুক্তিতে সুযোগ পেতে পারেন উপেক্ষিত অলরাউন্ডার নাসির।

ছবিঃ গুগল