প্রিয় জাদুকর, তুমি কি জানো…

মোর্জিনা মতিন কবিতা

প্রেম ব্যাপারটা রীতিমতো প্রাতিষ্ঠানিক। একে প্রতিষ্ঠা দিতে আপনাকে প্রথমেই স্বীকার করে নিতে হবে, যে, আপনি একজনের প্রেমে পড়েছেন। যে জনের প্রেমে পড়লেন, সেই জনকে এবার প্রেম নিবেদনের পালা। কিন্ত, আপনি কি একজন মেয়ে? সর্বনাশ! জি হ্যাঁ, মেয়ে, আপনাকেই খুঁজছি আমি।
মেয়ে মানুষ হয়ে প্রেমে পড়েছেন! তার চাইতে, কোন ছেলে আপনার প্রেমে পড়তো, আপনাকে প্রস্তাব দিতো, আপনি হয় তাকে গ্রহণ করতেন, নয় বর্জন করতেন। ঝামেলা কম হতো। কিন্তু, ভিকটিম আপনি নিজে! রাস্তা মাপুন, রাস্তা। তারপর বিয়ের জন্য পাত্র খুঁজুন।
এই হলো কন্যার যৌবণসংক্রান্তি।
কন্যা, তোমার চোখের পাতা কাঁপে তার সাথে দেখা হলে, বুকের ভিতর ধুকপুক শব্দ হয়, কান দিয়ে গরম ধোঁয়া বের হয়- তুমি নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করো।
তোমার ইচ্ছে করে ভীষণ, তাকে কলি-কাঁটা-পাতা-ডাঁটা সমেত একটা লাল গোলাপ, পথ চলি অকষ্মাৎ দেখা হয়ে গেলে, তার হাতে গুঁজে দিতে- বাদ দাও ওসব।
তুমি কল্পনায় দেখো, সে তোমার চিবুকে আঙ্গুল ছুঁয়ে বলছে ‘আমার সোনাপাখি’, আর তুমি আবেশে চোখ বুঁজে ফেলছো- কল্পনা বন্ধ করো।
এবার তোমার ইচ্ছে করে, একটা প্রেমপত্র লিখি- ‘প্রিয় জাদুকর, তুমি কি জানো, আমি কত খুশি তোমাকে জীবনে পেয়ে! আমাকে এমন সম্মোহিত করে, মন্ত্রমুগ্ধ করে রেখো সারাজীবন, হু? আমি জন্মের পর থেকে তোমাকে খুঁজে এসেছি, একটু ভালোবাসবার জন্য, তোমাকে পেয়েছি, একটু ভালোবাসবো, তুমি আমার ভালোবাসা গ্রহণ করো, হু? কখনো ফিরিয়ে দিও না, কখনো হারিয়ে যেও না, হু? সুখে থেকো, শান্তিতে থেকো।
-তোমার জানপাখি।’
কিন্তু হায়, মুখ তো ফোটে না, বুক ফাটলেও।
কন্যাকুল তাই প্রেম নিবেদন করে না, কন্যারা ভেবে ক্ষান্ত দেয়, শ্রীকান্ত কেন গায়- ‘মেঘ কালো, আঁধার কালো, আর কলঙ্ক যে কালো, যে কালিতে বিনোদিনী হারালো তার কুল, তার চেয়ে বেশি কালো, কন্যা তোমার মাথার চুল।’
শ্রীকান্তর গানে তারা আরো শোনে, ‘কন্যার হাতের শাঁখা হলো জগতের সাদা সব জিনিসের চাইতে সেরা সাদা, তার আলতার দাগ দুনিয়ার সব রাঙা বস্তুর চাইতে বেশি রাঙা, তার অবুঝ মন পৃথিবীর সব ধরণের সবুজের চাইতেও গাঢ় সবুজ।’
কন্যাদের কথা দুনিয়ার আরো অনেক গানে বলা আছে।

আচ্ছা, দুনিয়াতে এমন একজন পুরুষও কি পাওয়া যায়নি যাকে কোন নারীর পছন্দ! পুরুষের চুল চোখ হাসি হাত পা চিবুক বুকের দিকে কোন নারী তাকায়নি! তাকালেও গান-টান কিছুই মাথায় আসেনি!
নারী তাই মাথা কুটে মরে আর ভাবে, কোন একদিন একটা ছড়া লিখে ফেলবে এমন-
‘কেমন আছিস, আবুল হাসান?
তোর বুকের দুর্বাঘাস, মধ্যমার তিল,
কেমন আছে তোর রঙ-পেন্সিল?
আমার যৌবণে তুই যে পদ্মঝিল,
তা কি তুই জানিস রে পাষাণ?’

প্রেম বড় বেশি প্রাতিষ্ঠানিক। একে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে আপনাকে, প্রিয় নারী জাতি, আপনাকে হতে হবে প্রকাশভঙ্গিতে যথেষ্ট।

ছবিঃ গুগল