শীতে লন্ডভন্ড গোটা দেশ

শীতে লন্ডভন্ড গোটা দেশ। নগর অথবা গ্রাম সবখানেই শীত যেন তার ভয়ঙ্কর নখ  ঢুকয়ে দিয়েছে। তাপমাত্রা কমছে ক্রমাগত। কুয়াশায় আচ্ছন্ন চারপাশ। কোথাও কোথাও সূরযের দেখা নেই। সন্ধ্যা হলে মানুষের ভীড়ে অস্থির রাজধানীও হয়ে পড়ছে জনশূণ্য। পথঘাটের অবস্থা দেখলে মনে হয় লোকালয়ে বাঘ বের হয়েছে।

শীত নিয়ে আমাদের জীবনে নানা কাব্য আছে। আছে উৎসবের আয়োজন, বাহারি খাবারের বিলাস। জনজীবনের এই ভোগান্তি বোধ হয় সবকিছুই ম্লান করে দিয়েছে।

গত শনিবারের চেয়ে রোববার তাপমাত্রার সামান্য হেরফের হলেও আবহাওয়া দফতর আভাস দিচ্ছে শীতের এই কামড় চলবে কমপক্ষে আরো তিন দিন। তাই সহসাই কমছে না শীতের এই ভোগান্তি। এ যেনো প্রকৃতির কাছে মানুষের অসহায় আত্নসমর্পন।

এ চিত্র কেবল ঢাকাতেই নয়। সারা দেশই এখন পৌষের তীব্র শীতের দখলে। ঠান্ডা বাতাসের দাপটে মানুষের অবস্থা একেবারেই নাস্তানাবুদ। খুব বেশী প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বাড়ি থেকে বেরও হচ্ছে না। বাড়ছে অসুস্থতা। এই বৈরী আবহাওয়ায় সবচেয়ে বিপদে পড়েছে ছিন্নমূল খেটে খাওয়া মানুষ ও শিশুরা।কাজের আশায় এই মানুষগুলোকে তীব্র ঠান্ডার মধ্যেই বের হতে হচ্ছে নিজেদের সামান্য আশ্রয় ছেড়ে। পথের পাশে ছোট ছোট আগুনের কুন্ড বানিয়ে শিশ ও বয়ষ্ক মানুষদের দেখা যাচেছ সামান্য উষ্ঞতার ব্যবস্থা করতে। কিন্তু পরাক্রমশালী শীতের কষ্ট তো সেই আগুনে দূর হবার নয়।

শীতের প্রকোপে শিশুরো অসুস্থ হয়ে পড়ছে। দেখা দিচ্ছে জ্বর আর নিউমনিয়ার মতো রোগ।

শীতের এই রাজত্ব অবশ্য খানিকটা দূর্বল বাজার এলাকায়। সেখানে দ্রব্যমূল্যের পাগলা ঘোড়া আগে থেকেই উত্তাপ জমিয়ে রেখেছে। একে শীতের দাপট অন্যদিকে বাজারে আগুন-সব মিলে সাধারণ মানুষের জীবনের বেশ বেহাল দশা চলছে।

শীতের প্রতাপ কমে আসবে বলে আশা করা যায় দু এক দিনের মধ্যে। এখন তো বাংলাদেশে শীত প্রায় ক্ষণস্থায়ী অতিথি-ই হয়ে গেছে। তবুও অল্প সময়ে শীতের আক্রমণে সাধারণ মানুষের বেহাল অবস্থা। আমাদের এই গ্রীষ্ম প্রধান দেশে তো শীতের প্রস্তুতি এমনিতেই একটু কম থাকে।তোরওপর শীতের তান্ডব তো কঠিন হয়েই দেখা দেয়। অবশ্য গোটা পৃথিবতেই এখন আবহাওয়া এমনই উল্টোপাল্টা আচরণ করছে। বদলে যাচ্ছে জলবায়ু।

শীতের যন্ত্রণা কমে গেলে আবার হয়তো খোলস কেটে বের হয়ে আসবে সেই উৎসবের চেহারা। গ্রামে সামান্যে আনন্দিত মানুষ আবার ফিরবে পিঠে-পুলির উৎসবে।ঘরে ঘরে তখন নতুন ধানের সুবাস ছড়াবে। শহুরে মানুষ বেড়াতে বের হবে, মেতে উঠবে নানা আনন্দ অনুষ্ঠানে। এই শীতের ক্ষতর কথা ভুলে সবাই পথ চলবে নতুন আশায়।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

ছবিঃ গুগল