যৌন হেনস্থার অভিযোগে ডগলাস

সুজান ব্রাউডি

হলিউডে যৌন হেনস্থার অভিযোগের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। শুরু হয়েছিলো বিখ্যাত প্রযোজক হার্ভে ওয়েনেস্টাইনকে দিয়ে। সর্বশেষ সেই অভিযোগ উঠলো ‘বেসিক ইন্সটিঙ্কট’, আনফেইথফুল’, ‘ব্রোকেন ডাউন’-এর মতো একগাদা নামকরা সিনেমার মূখ্য অভিনেতা মাইকেল ডগলাসের বিরুদ্ধে। অভিযোগকারিনী সাংবাদিক-লেখিকা সুজান ব্রাউডি। এককালে ডগলাসের প্রযোজনা সংস্থার নিউইয়র্ক শাখার দায়িত্বে ছিলেন এই সুজানা।

সুজি হলিউডের প্রতিবেদককে জানান, ১৯৮৯ সালে তার সঙ্গে এসব হেনস্থার কাণ্ড ঘটিয়েছিলেন ডগলাস। সুজি অভিযোগে বলেন, ডগলাসের কথাবার্তাই ছিলো বেশ অসংলগ্ন। একজন সহ অভিনেত্রীর বিবরণ দিতে গিয়ে একদিন তিনি এমন সব বাক্য ব্যবহার করছিলেন যে কান খোলা রাখাই দায় হয়ে উঠেছিল।

সুজানার পোশাক এবং শরীর নিয়েও আপত্তিকর মন্তব্য করতেন ডগলাস। এই কারণে সুজি অফিসে ঢিলেঢালা পোশাক পড়তে বাধ্য হন। এই সাংবাদিক-লেখিকার অভিযোগ, একদিন তার সামনে বসেই হস্তমৈথুন করতে শুরু করেন এই খ্যাতিমান অভিনেতা। এই ঘটনায় বোবা হয়ে যান সুজি। তারপর ভয় পেয়ে অফিস থেকে ছুটে বের হয়ে গেলে ডগলাসও তার পিছু নেন।

এসব ঘটনা ঘটার পর সুজি সেই চাকরিটি ছেড়ে দেন। অবশ্য চলে আসার সময় তাকে দিয়ে  গোপনীয়তার চুক্তি স্বাক্ষর করিয়ে রাখা হয়।মাইকেল ডগলাস অবশ্য তার বিরুদ্ধে সুজির সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি উত্তরে বলেন, তাঁর এক বন্ধুর সঙ্গে এ ধরণের আলোচনা করছিলেন তিনি। কথাগুলো শুনে সম্ভবত সুজির খারাপ লেগেছে।তাঁর দাবি, এই বিষয়টিকে তো হেনস্থা বলা যায় না। ডগলাস সুজিকে খোঁচা দিয়ে বলেন, ‘ নিজের ক্যারিয়ার সঠিক পথে না চলায় হতাশ হয়েই তিনি এমন কথা বলেছেন।’

বিনোদন ডেস্ক
তথ্যসূত্রঃ হলিউড নিউজ
ছবিঃ গুগল