পাঁচশ রানের রেকর্ড অর্জন করলো টাইগাররা

আহসান শামীম

চট্রগ্রাম টেষ্টের দ্বিতীয় দিনে শুঘু ঘাম ঝড়ালো সাদা পোশাকের টাইগররা।বড় স্কোর গড়ার পর বল হাতেও ভালো শুরু করে বাংলাদেশ দল।শ্রীলংকান ইনিংসের মিরাজ প্রথম ওভার করতে এসেই উইকেটের দেখা পান।বাঁহাতি ওপেনার দিমুথ করুনারত্নে ফ্রন্ট ফুটে এসে ড্রাইভ করতে গিয়ে স্লিপে ইমরুলের দারুন ক্যাচে আউট হন। শুন্য রানেই লঙ্কানদের প্রথম উইকেটের পতন ঘটে।এরপর  মুস্তাফিজের করা পঞ্চম ওভারে লেন্থ থেকে বের হয়ে যাওয়া বল মেন্ডিসের ব্যাট ছুঁয়ে সেকেন্ড স্লিপে থাকা মিরাজের হাত ফসকে যায়।দিন শেষে টাইগারদের তিন রিভিউ আর আম্পায়ারদের অনুরোধে আরও তিনবার থার্ড আম্পায়ার কল, এগুলোর কোনটাই টাইগারদের ভাগ্যসূপ্রসুন্ন করতে পারেনি।

দিনের শেষে লঙ্কানরা ৩৩ ওভারে ৪.১৫ রান রেটে ১৮৭ রান তুলেছে ।শ্রীসেঞ্চুরিয়ান ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ১০৪ রানে অপরাজিত ।অন্য প্রান্তে থাকে মেন্ডিসের ব্যাট থেকে এসেছে অপরাজিত ৮৩ রান।

ব্যাট হাতে টাইগরা প্রত্যাশা পূর্ন করতে না পারলেও ,৫১৩ অল আউট হয়। মমিনুল ১৭৬, মুশফিক ৯২, মাহমুদুল্লাহ ৮৩*।বাই কিংবা লেগ বাই ছাড়া ৫১৩ রানের এই দলীয় ইনিংসটা এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর।আর এরই সঙ্গে নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে সপ্তম বারের মতো পাঁচশ রানের কোটা পার করার রেকর্ড অর্জন করলো টাইগাররা।এই রেকর্ড গড়ার ক্ষেত্রে টাইগাররা পেছনে ফেলেছে ক্রিকেট পরাশক্তি অস্ট্রেলিয়াকেও। ২০১৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্টে বাই ও লেগ বাই ছাড়া ৭ উইকেটে ৪৯৪ রান সংগ্রহ করেছিলো অজিরা।

শুধু তাই নয়, রেকর্ড হয়েছে আরো।টেস্টের প্রথম দিনই দ্রুততম দুই হাজারি রানের ক্লাবে পা রেখেছেন মমিনুল হক।চট্টগ্রামের মাটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছেন উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। দ্বিতীয় দিন খেলতে নেমে আরেক মাইলফলকে পা রেখেছেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও।অধিনায়ক হিসেবে অভিষেক মাচেই অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি ষষ্ঠ বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে দুই হাজার রানও তুলে নিয়েছেন তিনি। ১ রান যোগ করে মমিনুলের বিদায়ের পর শক্ত হাতে অধিনায়ক রিয়াদ হাল ধরে রাখলেও অন্যপ্রান্তে শুধু ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ায় রিয়াদের শতরানের স্বপ্ন ভেস্তে যায়।

টেষ্টের দু’দলে জন্যই আগামীকাল শুক্রবারে প্রথম সেশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।

ছবিঃ গুগল