মুমিনুলের চমক,রেকর্ড

আহসান শামীম

অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান ওয়ারেন বার্ডসলে সর্বপ্রথম এই কীর্তি গড়েছিলেন। ১৯০৯ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ১৩০ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ১৩৬ রানের ইনিংস খেলেছিলেন অস্ট্রেলিয়ান  ব্যাটসম্যান বার্ডসলে।

এক সময়ের টাইগার দলের হেড কোচ মুমিনুলকে জাতীয় দলে খেলানোর বিষয় নেতিবাচক মনোভব দেখিয়েছিলেন।বিসিবি’র সভাপতির হস্তক্ষেপে দলে ঢুললেও মুল একাদশে ছিলেন উপেক্ষিত।চট্রগ্রাম টেষ্টে লঙ্কান দলের হেড কোচ হাথুরাসিংহের সামনেই তাঁর দলের বিপক্ষে মুমিনুল প্রমান করে দিলেন, কতটা পক্ষ শ্রীকাতর হাথুরা।জবাব দিলেন ব্যাট হাতে, গড়লেন প্রথম বাংলাদেশী হিসাবে টেষ্ট রেকর্ড।
বাংলাদেশের হয়ে টানা দুই ইনিংসে টেস্ট সেঞ্চুরির কীর্তি ছিল না কারও। টেস্ট স্পেশালিস্ট হিসেবে তকমা পাওয়া মুমিনুল রবিবার সেই আক্ষেপটা পূরণ করে দিয়েছেন অবশেষ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি করে প্রথম স্লিপে ১০৫ রানে সাজঘরে ফেরেন মুমিনুল।
চট্টগ্রাম টেস্টে অনন্য এক কীর্তি গড়লেন পকেট ডায়নামো খ্যাত মুমিনুল হক। প্রথম ইনিংসে ১৭৬ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও দেখা পেলেন ১০৫ রানের সেঞ্চুরির।দুই ইনিংসে টানা সেঞ্চুরি করে কিংবদন্তি ক্রিকেটার কুমারা সাঙ্গাকারা, ব্রায়ান লারা, সুনীল গাভাস্কারদের ছুঁয়ে ফেলেছেন মুমিনুল হক।
বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে মুমিনুল দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি পাওয়া একমাত্র ক্রিকেটার হলেও বিশ্ব ক্রিকেটে এমন কীর্তি অনেকেরই আছে। মুমিনুলসহ সবমিলিয়ে ৮৩ বার এমন রেকর্ড গড়েছেন টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোর ক্রিকেটাররা। কিছু কিছু ক্রিকেটার একাধিকবার দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি পেয়েছেন।
এছাড়াও ২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম টেস্টে দুই ইনিংস মিলিয়ে ওপেনার তামিম ইকবাল করেছিলেন ২৩১ রান। প্রথম ইনিংসে ২৫ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে এই বাঁহাতি খেলেছিলেন ২০৬ রানের ইনিংস। ম্যাচটা ড্র করেছিল বাংলাদেশ। দুই ইনিংস মিলে এক টেস্টে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ডটা এতদিন তামিমেরই ছিল।লঙ্কানদের বিপক্ষে বাঁচা মরা লড়াইয়ের দিনে মুমিনুল তামিমের রেকর্ড ভেঙ্গে গড়লেন নতুন রেকর্ড ।সেই সাথে লঙ্কানদের বিপক্ষে টেষ্ট হারের লজ্জা থেকে মুক্ত করল টাইগারদের।