ঘৃণ্য জেমস বন্ড

অ্যাকশন হিরো জেমস বন্ড। সিনেমার পর্দা অথবা বইয়ের পাতায় স্রষ্টা আয়ান ফ্লেমিংয়ের এই চরিত্রটি রবিনহুডের মতোই রোমাঞ্চকর। পৃথিবী জুড়ে নারীরা তার প্রেমে উন্মাদ। তরুণদের কাছে ফ্যাশন আইকন জেমন বন্ড। বন্ডের চশমা থেকে শুরু করে সিগারেট ধরানোর ভঙ্গী ফ্যাশনের উপকরণ। কিন্তু সেই জেমস বন্ডের নামে এতো বছর পরে অভিযোগ উঠেছে। এক জরিপে দেখা গেছে প্রায় ৫৭ ভাগ মানুষ জেমস বন্ডকে ঘৃণ্য চরিত্র হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। আঁতকে ওঠার মতো খবরই বটে!
সম্প্রতি জনপ্রিয় ডিজিটাল মিডিয়া নেটফ্লিক্স বন্ডের সবগুলো সিনেমা একসঙ্গে রিলিজ করেছে। এ উপলক্ষ্যে আগে বন্ড সিরিজের সিনেমা দেখেনি এমন প্রজন্মের ওপর তা্রা এক জরিপ চালায়। আর তাতেই উঠে আসে এমন মন্তব্য। বন্ডের ২৬ টি সিনেমা দেখে নতুন জমানার দর্শকরা বলেছেন, জেমস বন্ড ঘৃণ্য চরিত্ররে মানুষ। স্বার্থ উদ্ধারের জন্য যে সবাইকে ব্যবহার করতে পারে। মহিলার সঙ্গে প্রেমের ভাণ করে তাদেরও কাজে লাগাতেন। উনি একজন দুশ্চরিত্র।
জরিপে অংশগ্রহণকারীরা বলেন, কথার জালে ফাঁসিয়ে মহিলাদের বিছানায় নিয়ে যাওয়া জেমস বন্ডের স্বভাব। যা ধর্ষণের চেয়ে কম কিছু নয়। তাছাড়া কৃষ্ণাঙ্গদের সঙ্গে জেমসের ব্যবহার অত্যন্ত অপমানজনক।’ ১৯৬২ থেকে ১৯৮২ সালের বন্ডের সিনেমাগুলিতে প্রধান চরিত্রে দেখা গিয়েছিল শন কনোরিকে। তার অভিনীত চরিত্র সম্পর্কে দর্শকদের মূল্যায়ন ‘লিঙ্গবৈষম্যকারী এবং সমকামীদের ঘৃণাকারী।’ দর্শকরা রজার মুরকেও ছেড়ে কথা বলেনি। রজার মুর সম্পর্কে দর্শকদের মতামত, ‘জাতিবিদ্বেষে ভরা একটি চরিত্র।’ ড্যানিয়েল ক্রেগের সম্পর্কে বিশ্লেষণ, ‘প্রচারপ্রিয়’।

বিনোদন ডেস্ক
তথ্যসূত্রঃ হলিউড নিউজ
ছবিঃ গুগল