ভালোবাসা দিবস…

তিয়াষ মুখোপাধ্যায়

(কলকাতা থেকে): এমন তো নয়, যে তুমুল ভালবাসাবাসির এক পৃথিবীতে বাস করছি…।
এমন তো নয়, যে সদ্য-বসন্তের হাওয়ায় হাওয়ায় একটুও লাশ-পোড়া গন্ধ ভাসছে না…।
এমন তো নয়, যে সন্দেহের আলপিনের খোঁচাটা ছাড়াই পাশের মানুষকে বিশ্বাস করে ফেলছে মানুষ…।
এমন তো একেবারেই নয়, যে দিনভর প্রবল ব্যস্ততায় ভুল করেও কোথাও কোনও নিঃশর্ত সহানুভূতির স্পর্শ-বিনিময় হচ্ছে এ যন্ত্র-বিশ্বে…।

তা হলে…?!

এক দিনই সই, একটা দিনই সই…। 
একটা দিনই না-হয় নিয়ম মেনে ভালবাসাবাসি হোক…। যার যেমন করে ইচ্ছে, যে ভাবে ইচ্ছে, যতটা ইচ্ছে…।
সেই ইচ্ছেতে না-হয় মিশলোই কিছু আদিখ্যেতা…। না হয় বিক্রি বাড়লোই কিছু ফুল-চকলেট-বেলুনের…। ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি অথবা জাপানি তেল তো সারা বছর রমরমিয়ে বিক্রি হয়…। সেখানে আর কতটা ক্ষতি বৃদ্ধি করতে পারে একটা প্রেম-দিবসের বেচাকেনা…?
যে দেশে বৃদ্ধ বাবা-মাকে দেখভাল করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের রায়ের প্রয়োজন পড়ে, সেখানে কিছু হাত-ধরাধরি আর কয়েকটা চুমুর কারণে ঠিক ক’আউন্স সংস্কৃতি ক্ষয়ে যায়…?
যে মিডিয়ায় নারী-পুরুষ-শিশু-বৃদ্ধকে নির্বিশেষে যৌন-পণ্য হিসেবে ট্রিট করে মিম বানিয়ে হাজার হাজার লাইক পাওয়া যায়, সেই মিডিয়া আর কত অশ্লীল হয় ভালবাসা উদযাপনের কিছু ছবির বাহুল্যে…?

ভালবাসার দিন হয় না, সবাই জানে…।
সবাই জানে, একটা দিনের মুখ চেয়ে ভালবাসা হয় না…।
কিন্তু ভালবাসার মুখ চেয়ে যদি একটা দিন হয়ই বা…খুব ক্ষতি বোধ হয় বিশ্বের কোনও প্রান্তেই হয় না…।

উদযাপন ভাল না-ই লাগতে পারে…। এড়িয়ে যাওয়া যায়…। কিন্তু ভাল না-লাগাতে পারলে বা ভাল না-বাসতে পারলেই অসম্মান করা যায় না বোধ হয়…।

যে কোনও বিষয় নিয়েই আদিখ্যেতা অসহ্য, মানি।
সেই আদিখ্যেতার শো-অফ করা অসহ্যতর, তা-ও মানি।
কিন্তু সমালোচনার উগ্র ঝাঁঝটা যেন সব কিছু ছাপিয়ে অসহ্যতম হয়ে উঠছে…।

❤❤

ছবি: গুগল