ফোকাল্টের বই কনফেশন অফ ফ্লেশ

প্রখ্যাত ফরাসী দার্শনিক মিচেল ফোকাল্ট মৃত্যুবরণ করেন এখন থেকে ৩৪ বছর আগে। তাঁর প্রস্থানের এতো বছর পর তার লেখা গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ ‘দি হিস্ট্রি অফ সেক্সুয়্যালিটি’-এর চতুর্থ খন্ড প্রকাশিত হতে যাচ্ছে। এই খন্ডের নাম ‘কনফেশন অফ ফ্লেশ’। অসমাপ্ত এই পান্ডুলিপি বই আকারে প্রকাশ করছে ফরাসী প্রকাশনা সংস্থা গিলমার্ড। পৃথিবী জুড়ে নারীর ওপর যৌন নিগ্রহের বিরুদ্ধে যখন নারীরাই প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠেছেন, প্রকাশ্যে এসে অপরাধীদের মুখোশ খুলে দিতে চাইছেন ঠিক তখনই মিচেল ফোকাল্টের এই বই সাড়া জাগাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। প্রকাশকও মনে করছেন ফোকাল্টের চিন্তা এই গ্রন্থের মাধ্যমে আলোড়ন তৈরী করবে চিন্তার জগতে।

ফোকাল্ট মারা যান ১৯৮৪ সালে। এডস রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। আশির দশকের একেবারে গোড়ার দিকে আলোচিত এই দার্শনিক মানুষের যৌন চেতনার ইতিহাস নিয়ে কাজ করতে শুরু করেন। খ্রিস্টধর্মের সূচনায় ধর্মগুরুদের যৌনচিন্তা, তখনকার সাধারণ সমাজে মানুষে মানুষে যৌন সম্পর্কের অবয়বকে তিনি পুনরায় তুলে আনার চেষ্টা করেছেন তার বইতে। তবে সেই প্রাচীন সমাজেও ধর্ষণের ব্যাপারে বেশী সংখ্যক মানুষ নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গী ধারণ করতো তাওি ফোকাল্ট তার গবেষণায় উল্লেখ করেছেন।

বইয়ের আগের তিন খন্ডে লেখক প্রাচীন যুগ থেকে শুরু করে বিংশ শতাব্দী পরযন্ত মানুষের যৌন সম্পর্কের নানা দিক তুলে ধরেছেন। তিনি গবেষণা করেছেন প্রাচীন, গ্রীস ও রোমের মানুষদের এই বিষয়ক চিন্তা নিয়ে।

এই দার্শনিকের আলোচিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে, ‘ম্যাডনেস অ্যান্ড সিভিলাইজেশন’, ‘দি অর্ডার অফ থিংস’। আমেরিকার প্রখ্যাত বার্কলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপত ফোকাল্টের এই বই একবিংশ শতাব্দীতে নারী আন্দোলন, নারীর ওপর যৌন নিগ্রহ প্রভৃতি বিষয়ে নতুন করে আলো ফেলবে বলে আলোচকরা মনে করছেন।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

তথ্যসূত্রঃ নিউইয়র্ক টাইমস

ছবিঃ লোকাল ম্যাগাজিন