ভালোবাসা আজও আছে

আলতাফ শাহনেওয়াজ

ফেইসবুক এর গরম আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে। প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতিক্রিয়া।

২০০৫ সা‌লে আমি যখন ছ‌াত্র হওয়ার বাসনা নি‌য়ে প্রথমবা‌রের ম‌তো জাগাঙ্গীরনগর বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ে গমন ক‌রি, সে সময় উ‌ঠে‌ছিলাম শুভাশিস সিনহার বিখ্যাত রুম ৩২৭/ ভাষানী হ‌লে। বস্তুত সে সময়ই শুভা‌শিসদার সঙ্গে আমার প্রথম সাক্ষাৎ; ক‌বিতা লেখার সূ‌ত্রে য‌দিও চেনাজানা আ‌গে থে‌কেই ছিল।

তৈরী হচ্ছে নট মণ্ডপ

প‌রে আমা‌দের সম্পর্ক‌টি যতই গাঢ় হ‌য়ে‌ছে, শুভা‌শিসদা আমা‌কে ততই ব‌লে‌ছেন, কমলগ‌ঞ্জে এ‌সে আমা‌দের ঘোড়ামারা গ্রাম‌টি ঘু‌রে যাও নয়ন, আমা‌দের ম‌নিপুরী থি‌য়েটার দে‌খে যাও। ম‌নিপুরী থি‌য়েটা‌রের নতুন কো‌নো নাট‌কের প্রদর্শনী হ‌লেই তাঁর ফোন পাই, এক‌দি‌নের ছু‌টি নি‌য়ে চ‌লে আসবা না‌কি? কখ‌নো বা তি‌নি ব‌লেন, রাশ‌মেলা হ‌চ্ছে, চ‌লে এ‌সো।
ত‌বে এত আমন্ত্র‌ণের পরও আমার আর কমলগ‌ঞ্জে, ঘোড়ামারায়, ম‌নিপুরী থি‌য়েটা‌রে আসা হয় না।
এরপর তাৎক্ষ‌ণিক সিদ্ধা‌ন্তে হুট ক‌রে আ‌মি আর ফাতেমা আবেদীন যখন এই ১৬ ফেব্রুয়া‌রি প্রা‌তে শ্রীমঙ্গল এলাম, শ্রীমঙ্গ‌লে পা রাখার পর থে‌কেই ম‌নে হ‌লো, এত কা‌ছে এ‌সে ম‌নিপুরী থি‌য়েটার আর শুভা‌শিস সিনহা‌কে না দে‌খেই চ‌লে যাব! ফোন দিলাম শুভা‌শিসদা‌কে। বললাম, শ্রীমঙ্গল আ‌ছি, মি‌নিট ত্রি‌শের ভেত‌রে আপনার ওখা‌নে আস‌ছি।
‌সব সময় তি‌নি স্বল্পবাক, বল‌লেন, আ‌সো; ত‌বে দ্রুত আসো, এখন বালক‌দের এক‌টি রাসলীলার প‌রি‌বেশনা হ‌চ্ছে, দ্রুত এ‌লে দেখ‌তে পা‌বে।
‌তো, দ্রুতই গেলাম। রাশলীলা দেখা হ‌লো। সেই অ‌ভিজ্ঞতা মধুর।
প‌রে গেলাম শুভা‌শিসদার বা‌ড়ি‌তে, ম‌নিপুরী থি‌য়েটা‌রের সেই নটমণ্ড‌পে।

বর্তমান নট মণ্ডপ

এই নটটমণ্ড‌পে কী আ‌ছে? আ‌ছে মায়া। নাট‌কের প্র‌তি ভা‌লোবাসা থে‌কে শুভা‌শিস সিনহা এই প্রত্যন্ত গ্রা‌মে গ‌ড়ে তু‌লে‌ছেন এই মণ্ডপ, ভাবা যায়!
‌দেখলাম, পু‌রো‌নো নটমণ্ড‌পের পা‌শে পাকা, নতুন এক‌টি নটমণ্ডপ গ‌ড়ে তোলার কাজ শুরু করে‌ছেন শুভা‌শিসদা। তাঁ‌কে জি‌জ্ঞেস করলাম, কত টাকা লাগ‌বে মণ্ড‌পের কাজ শেষ কর‌তে?
বল‌লেন, ৬০ লাখের বে‌শি।
বললাম, কোথা থে‌কে পা‌বেন এত টাকা?
বল‌লেন, ভারতীয় হাই ক‌মিশন থে‌কে কিছু টাকা পে‌য়ে‌ছি। আর দে‌খি কোথায় পাওয়া যায়, কী হয়…।
‌কিন্তু আ‌মি জা‌নি, শুভা‌শিসদা পার‌বেন, তি‌নি পার‌বেন। কেন না, তাঁর আ‌ছে একাগ্রতা; আর নাটক ও শিল্পসা‌হিত্য‌কে তি‌নি অন্তর থে‌কেই ভা‌লোবা‌সেন।
এই ঘোড়ামারা ভ্রম‌ণে মিস ক‌রে‌ছি একজন‌কে,জ্যোতি সিনহা। বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ে তি‌নি আমার খা‌নিক সি‌নিয়র হ‌লেও আমরা ছিলাম বন্ধুর মতো। তা‌কে পে‌লে আড্ডা আরও বে‌শি ঘন হ‌তো। কথাবার্তায় ফি‌রে আসত আমা‌দের সেই সব (একা‌ধিক জাহাঙ্গীরনগর একত্র হ‌লে যা হয় আর‌কি) হারা‌নো দিনগু‌লো।
ত‌বে ঘোড়ামারা ঘু‌রে আজ যা পেলাম তাও কম নয়। পেলাম শুভা‌শিসদা,শর্মিলা’দিসহ অন্য‌দের প্রবল আন্ত‌রিকতা ও ভা‌লোবাসা।
আবার, আবার, অআবার…প্রা‌ণের টা‌নে অবশ্যই আবার আস‌তে হ‌বে কমলগ‌ঞ্জে, ঘোড়ামারায়। কারণ, এখা‌নে ভা‌লোবাসা আ‌ছে।

ছবি: লেখক
.