মহাকালের যাত্রায় স্টিফেন হকিং

বর্তমান সময়ের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং ৭৬ বছর বয়সে মারা গেছেন। ক্যামব্রিজে নিজের বাড়িতে বুধবার সকালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার পারিবারিক সূত্রে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি।

মহাবিশ্বের সৃষ্টি রহস্যের তাত্ত্বিক ব্যাখায় কৃষ্ণবিবর ও বিকিরণতত্ত্বের ব্যাখা দিয়ে স্টিফেন হকিং এই সময়ের শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানীর স্থান দখল করেছিলেন।

১৯৪২ সালের ৮ জানুয়ারি তিনি যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডে জন্মগ্রহণ করেন। ২১ বছর বয়স থেকেই তিনি দুরারোগ্য মটর নিউরন রোগে ভুগছিলেন। শারীরিক অক্ষমতা কিন্তু তাঁর কাজে বাধা হয়ে থাকেনি। একটি আধুনিক ব্যবস্থাসম্পন্ন হুইলচেয়ারের পৃথিবীতে বসেই তিনি মহাবিশ্ব সৃষ্টির রহস্য ‘বিগ ব্যাং থিওরি আবিষ্কার করেন।

১৯৮৮ সালে ‘অ্যা ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম’ বইয়ের কারণে তিনি বিশ্বব্যাপী পরিচিতি লাভ করেন। বইটিতে তিনি মহাবিশ্বের সৃষ্টি রহস্য নিয়ে তত্ত্ব দেন।  গোটা পৃথিবীতে বেস্ট সেলার হিসেবে বইটির কয়েক কোটি কপি বিক্রি হয়। মহাবিশ্ব নিয়ে প্রকাশিত তাঁর সর্বশেষ বই ‘দ্য গ্র্যান্ড ডিজাইন’।

আইনস্টাইনের পর হকিংকে বিখ্যাত পদার্থবিদ হিসেবে গণ্য করা হয়। তার কর্মময় জীবনে প্রিন্স অব অস্ট্রিয়ান্স পুরস্কার, জুলিয়াস এডগার লিলিয়েনফেল্ড পুরস্কার, উলফ পুরস্কার, কোপলি পদক, এডিংটন পদক, হিউ পদক, আলবার্ট আইনস্টাইন পদকসহ বহু ডিগ্রি লাভ করেছিলেন তিনি।

হকিংয়ের বাবা ফ্র্যাঙ্ক হকিং ছিলেন জীববিজ্ঞানের গবেষক। আর মা ইসাবেল হকিং ছিলেন একজন রাজনৈতিক কর্মী। বাবা চেয়েছিলেন হকিং বড় হয়ে চিকিৎসক হোক, কিন্তু ছেলেবেলা থেকেই হকিংয়ের আগ্রহ ছিল বিজ্ঞানে আর গণিতে।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

ছবি: গুগল