ফেঁসে যেতে পারে লঙ্কানরাঃ তদন্তে আইসিসি

আহসান শামীম

শেষই হচ্ছে না শুক্রবার লঙ্কানদের  বিপক্ষে বাংলাদেশের বিজয় আর মাঠের নাটকীয় ঘটনার রেশ। ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমের দরজার গ্লাস ভাঙ্গার সিসি টিভির ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখেছেন ম্যাচ রেফারী ক্রিস ব্রড। জানা যায় সিসি টিভির ফুটেজে বাংলাদেশের ড্রেসিংরুমের গ্লাসের দরজা ভাঙ্গার ঘটনায় বাংলাদেশের কোন খেলোয়াড়কে দেখা যায়নি। এর আগে ড্রেসিংরুম ভাঙ্গার জন্য বাংলাদেশের খেলোয়াড়ারাই দায়ী এমন  ইংগিত দিয়ে রিপোর্ট করেছিলেন লঙ্কান গনমাধ্যমগুলো। ম্যাচ রেফারী ক্রিস ব্রড ক্রিকইনফোকে জানিয়েছেন , ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের ড্রেসিংরুম ভাঙ্গায় কোন বাংলাদেশী খেলোয়াড়দের সিসি টিভিতে ধরা পরেনি।অবশ্য কাদের ফুটেজ পাওয়া গেছে সে বিষয় স্বচ্ছ কোন ধারনা তিনি দেননি।সূত্র মতে লঙ্কান নিরাপত্তারক্ষীরাও ঘটনার দায়িত্ব এড়াতে পারছেন না।

এদিকে আগামীকালের ফাইনালের আগে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে।টিম ম্যানেজমেন্ট ব্যাস্ত পরিকল্পনা সাজাতে। সূচনা থেকে আজ অবাধি টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশ ভারতকে হারাতে না পারলেও, ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে জয়ের স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ।

উত্তেজনার মুহূর্তে নুরুলের সঙ্গে কথার লড়াই হয়েছিল লঙ্কান খেলোয়াড়দের। ম্যাচ রেফারি বুঝতে পেরেছেন ঘটনার উৎপত্তি আসলে আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্ত । শেষ ওভারে বুকে সাহস নিয়েই উত্তেজনাপূর্ণ মূহুর্তে  বাংলাদেশের অধিনায়ক দলকে মাঠ ত্যাগের নির্দেশ দেন। মাঠে ছিলেন ঠান্ডা মেজাজীর মাহামুদুল্লাহ। তিনি এড়িয়ে গেলেন অধিনায়কের নির্দেশনা। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন মাঠ ছাড়লে লঙ্কানরা ফাইনালে উঠে যাবে। মাহামুদুল্লাহ মাঠেই যুদ্ধ করে জিতে চেয়েছিলেন আর ইচ্ছার জেদেই ব্যাট হাতে তিন বলে ১২ রান করে দলকে ফাইনালে নিয়ে যান।

মাহামুদুল্লাহ’র হলেন জয়ের নায়ক।সুন্দর কথামালা দিয়ে আইসিসি তাদের অফিসিয়াল পেজে বিশেষ টুইট বার্তা “চার বলে ১২ দরকার? কোনো সমস্যা নেই। আছে মাহমুদউল্লাহ। এই রান সে ৩ বলেই নিয়ে নিল, আর এতেই ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উঠে গেল বাংলাদেশ।”ঐ টুইটে মাহমুদউল্লাহর ছক্কা হাঁকানোর দৃশ্যটাও তারা যুক্ত করে দিয়েছে। আর এই টুইট প্রকাশের প্রথম ঘণ্টাতেই ৪৬ হাজার ভার্চুয়ালবাসী এতে লাইক দিয়ে মাহমুদউল্লাহ এবং বাংলাদেশকে শুভেচ্ছা জানান।

টুইট বার্তার পাশাপাশি শেষ ওভারে বাজে আম্পায়ারিং নিয়েও চলছে নিন্দার ঝড়। ম্যাচ রেফারী ক্রিস ব্রড আম্পায়ারিং এর বিষয় কোন সিদ্ধান্ত না নিলেও বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের ম্যাচ ফি‘র ২৫ শতাংশ কেটে রাখলেন সাথে একটা ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ করে দিলেন।আর একাদশের বাইরে থাকা সোহানেরও এক ডিমেরিট পয়েন্ট জরিমানা করলেন।

সেদিন মাঠে লঙ্কান দর্শকরা আবারও চড়াও হলেন বাংলাদেশী সমর্থকদের ওপর। গেল ম্যাচে ২১৪ রান করেও বাংলাদেশের কাছে হারার পর গ্যালারীর লঙ্কান সমর্থকদের হাতে নাজেহাল হয়েছিলেন,বাংলাদেশ ক্রিকেট সাপোর্টারস আ্যসোশিয়েশনের (বিসিএসের) সদস্য তুহিন।গতরাতের ম্যাচের পর লঙ্কান সমর্থকরা বাংলাদেশী সমর্থক শোয়েব আলীর উপর অতর্কিত হামলা করে  গ্যালারিতে থাকা শ্রীলঙ্কার সমর্থকরা।বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের ম্যাচগুলোতে বাঘ সেজে ক্রিকেট দলকে সমর্থন জুগিয়ে আসছেন হামলার শিকার শোয়েব। শোয়েব জানান, হামলার পর জায়গা নিরাপদ না হওয়ায় তিনি দৌড়ে কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের কাছে যান। এ সময়ও তাকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেন লঙ্কান সমর্থকরা। তিনি বলেন, “পুলিশেরা কিচ্ছু করেনি। আমার কষ্ট এখানেই। প্রশাসনের সামনে এভাবে হামলা করল, ওরা চেয়ে চেয়ে দেখল।বাংলাদেশ ম্যাচ জিতেছে এটাই আমার কাছে বেশি।” শুধু এখানেই ক্ষান্ত হননি লঙ্কান সমর্থকরা। তারা বিয়ারের ক্যান ছুঁড়ে মারতে থাকেন বাংলাদেশী সমর্থকদের দিক। বুলু নামের এক বাংলাদেশী সমর্থকে তারা  মারধোরও করেন লঙ্কান পুলিশ ও নিরাপত্তায় নিয়োজিত বাহিনীর সামনেই।

শ্রীলংকার ক্রিকেট বোর্ড এ বিষয় কোন দুঃখ প্রকাশ করেননি এখন পর্যন্ত।লঙ্কান বোর্ডের কর্মকর্তারা ব্যাস্ত ফাইনালের টিকিট ও গাড়ীর পাস পরির্বতনে। জানা যায় লঙ্কান বোর্ড নিশ্চিত ছিলেন ফাইনাল খেলবে ভারত- শ্রীলংকা।তাই বাংলাদেশের সাথে ম্যাচের আগেই যে টিকিট আর গাড়ীর স্টিকার ছাপার কাজ সমাপ্ত করে রাখেন তাঁরা। যেখানে লেখা ছিল “নিদাহাস কাপ ফাইনাল- শ্রীলংকা বনাম ভারত”। লঙ্কান বোর্ডের এ ধরনের কর্মকান্ড নজর কেড়েছে আইসিসি‘র। বিষয়গুলো নিয়ে দ্রুত তদন্তে নামবেন আইসিসির কর্মকর্তারা।

ছবি: গুগল