এবার নিঝুম দ্বীপে…

মাসুদুল হাসান রনি

অনেক তো হল ঘোরাঘুরি কিন্তু কখনো যাওয়া হয়নি নিঝুম দ্বীপে। এবার ক’যজন মিলে যাচ্ছি নিঝুম দ্বীপে। যাবার আগে কিছু প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহ করছি। যারা ভ্রমন পিয়াসী তাদের জন্য সংগৃহীত তথ্য শেয়ার করছি।
নিঝুম দ্বীপে যেতে হলে, ঢাকা থেকে আপনাকে প্রথমে হাতিয়া যেতে হবে। সদরঘাট থেকে হাতিয়ার উদ্দেশ্যে নিয়মিত স্টীমার ছেড়ে যায়, এম.ভি.ফারহান ,এমভি পানামা অথবা এম.ভি.টিপু হলে খুব ভালো হয়, ভোর নাগাদ আপনি হাতিয়া পৌছে যাবেন। এমভি পানামা, ফোন- ০১৯২৪০০৪৬০৮ এবং এমভি টিপু-৫, ফোন-০১৭১১৩৪৮৮১৩। এম.ভি.ফারহান-৪ ফোনঃ০১৭৮৫৬৩০৩৬৮,০১৭৮৫৬৩০৩৬৯,০১৭৮৫৬৩০৩৭০,এম্ভি ফারহান লঞ্চ ছাড়ার সময় বিকেল ৫ঃ৩০ মিনিট।ডেকে ভাড়া ৩৫০ টাকা।কেবিন সিংগেল ১২০০টাকা।
এমভি টিপু-৫ ও এমভি পানামা ছাড়ে ৬ঃ৩০ মিনিটে। এ দুটো ভোলা হয়ে তারপর যায় মনপুরা।এখান হতে এমভি ফারহানে যেতে হয় হাতিয়া।
হাতিয়া তমুরুদ্দী ঘাট থেকে ভাড়া করা ইঞ্জিন বোটে করে নিঝুম দ্বীপ যেতে হবে, ২-৩ ঘন্টা সময় লাগবে। নিঝুম দ্বীপে থাকার জন্য একমাত্র হোটেল হচ্ছে, হোটেল অবকাশ। হোটেল অবকাশে থাকার ব্যবস্থা ভালো, খাওয়া আরো ভালো কেননা প্রচুর টাটকা মাছ পাবেন, বড় চিংড়ি মাছও।অবকাশের ম্যানেজার মিঃ সবুজ খুব ভালো মানূষ ও হেল্পফুল। নিঝুম দ্বীপ অফিসঃ সবুজ ভাইঃ ০১৭২৪-১৪৫৮৬৪, ০১৮৪৫৫৫৮৮৯৯ , ০১৭৩৮২৩০৬৫৫।
কিছু বোর্ডিং রয়েছে, কিন্তু সেগুলোর অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। মসজিদ বোর্ডিং, নামার বাজার। এটা সবচেয়ে সস্তায় থাকার ব্যবস্থা। স্থানীয় মসজিদ থেকে এই ব্যবস্থা করেছে, এক্সট্রা দুটা সিঙ্গেল এবং দুটা ডবল রুম আছে, আর সব ডরমেটরি । ডরমেটরি – ভাড়া ২০০ – ৩০০ টাকা।এই বোর্ডিং-এ থাকার জন্য বুকিং করতে যোগাযোগ করুন: মোঃ আব্দুল হামিদ জসিম, কেন্দ্রিয় জামে মসজিদ, নামার বাজার, হাতিয়া, নোয়াখালী। ফোনঃ ০১৭২৭-৯৫৮৮৭৯

খুব ভালো হয় যদি সাথে ক্যাম্পিং এর জিনিসপত্র নিয়ে যেতে পারেন। খাওয়া-দাওয়ার জন্য ওখানে কিছু রেস্টুরেন্ট পাবেন। চাইলে হোটেল অবকাশ থেকে বাবুর্চি ভাড়া করতে পারেন। বার.বি.কিউ. করার জন্য হোটেল অবকাশের নিজস্ব ভালো ব্যবস্থা রয়েছে।
নিঝুম দ্বীপে যাবার সবচেয়ে ভালো সময় হচ্ছে, অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারী। যদি বড় বড় ঢেউয়ের রোমাঞ্চ পেতে চান, তাহলে জুন-জুলাই মাসে যেতে পারেন।

এছাড়া যারা সড়কপথে যেতে চান ,তারা জেনে নিন-

ঢাকার যাত্রাবাড়ী থেকে প্রতিদিন ভোর থেকে রাত পর্যন্ত অনেকগুলো চেয়ারকোচ সরাসরি নোয়াখালী, মাইজদী সোনাপুর যাতায়ত করে। নোয়াখালী সোনাপুর পৌঁছে সেখান থেকে যেতে হবে চেয়ারম্যান ঘাট। বাস, টেম্পু বা বেবীতে সরাসরি ৪০ কিঃমিঃ দক্ষিণে সুধারামের শেষ প্রান্তে চর মজিদ স্টিমার ঘাট। তার পরেই হাতিয়া যাবার চেয়ারম্যান ঘাট। চর মজিদ ঘাট থেকে ট্রলার কিংবা সী-ট্রাকে করে হাতিয়া চ্যানেল পার হয়ে যেতে হবে হাতিয়ার নলচিরা ঘাটে। নলচিরা বাজার থেকে যেতে হবে হাতিয়ার দক্ষিণে জাহাজমারা। জাহাজমারা থেকে ট্রলারে সরাসরি নিঝুম দ্বীপ।

ছবি: গুগল