রান্নাঘরে বৈশাখী আয়োজন

বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনের দুপুরবেলায়ই বাঙালির খাবার টেবিলে রাজ্যের রান্নার আয়োজন পাকস্থলী সেবা শেষ করে মুখ থুবড়ে পড়ে থাকবে। যেন ছিন্নপত্র। এক সপ্তাহ ধরে রান্নার মেন্যুর সন্ধানে বই ওলটপালট, টিভির সামনে রান্নার অনুষ্ঠানে মননিবেশ অথবা স্মৃতি হাতড়ে ফেরা সবই শেষ বৈশাখের প্রথম দুপুরেই। কিন্তু তবুও প্রতি বছর পয়লা বৈশাখে রান্না নিয়ে বাঙালীর আয়োজন অফুরান। কিছু একটা স্পেশাল রান্না, বিশেষ আয়োজন রান্নাঘর আলো করে রাখবেই। তবে বাংলা বছরের প্রথম দিনে দেশীয় রান্নার প্রতি আগ্রহটাই বেশী থাকে মানুষের। ভর্তা, ভাজা আর মাছ দিয়ে চলে অতিথি আপ্যায়ন।
এবার প্রাণের বাংলার রান্নাঘর থেকে পাঠকদের জন্য প্রচ্ছদ আয়োজনে রইলো তেমনি কয়েকটি দেশীয় রান্নার রেসিপি। সবার জীবনে বাংলা নতুন বছর বয়ে আনুক অপার শান্তি ও আনন্দ।

 

আলু দইয়ের দম

আলু দইয়ের দম

কী কী লাগবে

ছোট আলু: ৫০০ গ্রাম,
ঘন দই: আধ কাপ,
গুঁড়ো হলুদ: ১ চা চামচ,
লঙ্কা গুঁড়ো: ২ চা চামচ,
গোটা ধনে: ১ চা চামচ (শুকনো খোলায় ভাজা),
গরম মশলা গুঁড়ো: আধ চা চামচ,
হিং: আধ চা চামচ,
গোটা জিরে: ১ চা চামচ,
তেজপাতা: ১টা,
ধনেপাতা কুচি: ১ মুঠো,
ঘি: ১ টেবিল চামচ

কী ভাবে বানাবেন

এক কাপ পানি দিয়ে দই ফেটিয়ে নিন। এর মধ্যে হলুদ, ধনে গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো ও নুন দিন। আলু বেশি সিদ্ধ করবেন না যাতে গলে না যায় তারপর
খোসা ছাড়িয়ে নিন।

এবার কড়াইতে ঘি গরম করে জিরা, তেজপাতা, হিং ফোড়ন দিন। ফুটতে শুরু করলে আলু আর নুন দিয়ে হালকা আঁচে ভাজতে থাকুন। দু’মিনিট ভেজে নিয়ে ফেটানো দইটা দিন।এবার ভাল করে মিশিয়ে ঢাকা দিয়ে আঁচ কমিয়ে ৩-৪ মিনিট রান্না করুন। ঝোল যেন পাতলা হয়ে আলুর উপর ভাসতে থাকে।এবার উপরে গরম মশলা গুঁড়ো ও ধনেপাতা কুচি ছড়িয়ে দিন।

পটলের দো’পেঁয়াজা

পটলের দো’পেঁয়াজা

কী কী লাগবে:

পটল: আধা কেজি,পেঁয়াজ: ১ কাপ,কাঁচা মরিচ কুচি: স্বাদ অনুযায়ী
লবণ :পরিমান মতো,হলুদ: ১/৪ চা চামচ,মরিচের গুঁড়ো: ১/৪ চা চামচ
তেল।

কী ভাবে বানাবেন:

পটল খোসা ছাড়িয়ে দুইভাগ করে নিন। বীচি রেখে দিবেন, তাহলে পটলের শেপ নষ্ট হবে না।।
এবার প্যানে তেল দিন তেল গরম হলে কাঁচা মরিচের ফালি ছেড়ে দিন। কাঁচা মরিচ থেকে সুন্দর ঘ্রাণ ছড়ালে দিয়ে দিন পেঁয়াজ ও সামান্য লবণ।এবার পেঁয়াজ একটু চকচকে হলে হলুদ-মরিচ গুঁড়ো দিয়ে কষিয়ে পটল দিন এবং মাঝারি আঁচে ভাজতে থাকুন।ঢাকনা দেবেন না, এতে পটলের রঙ নষ্ট হয়ে যাবে। কেবল মাঝে মাঝে একটু নেড়ে দিয়ে ভাজলেই হবে। খেয়াল রাখবেন যেন পেঁয়াজ পুড়ে না যায়।
পটল সেদ্ধ হয়ে গেলে, পেঁয়াজও ভাজা ভাজা হয়ে যাবে।এবার একটু ধনে পাতা ছিটিয়ে দিতে পারেন। পরিবেশন করুন গরম গরম। ঠাণ্ডা হলেও ভালো লাগে। ফ্রিজে রেখেও বেশ কয়েকদিন খাওয়া যায়।

মলা মাছে কাঁচা আমের চচ্চড়ি

মলা মাছে কাঁচা আমের চচ্চড়ি

কী কী লাগবে:
মলা মাছ ২৫০ গ্রাম, কাঁচা আম ২টি (কুচি), দেশি পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, কাঁচা মরিচ ৭-৮টি, লবণ পরিমাণমতো, জিরা বাটা আধা চা-চামচ, রসুন বাটা আধা চা-চামচ, হলুদের গুঁড়া পরিমাণমতো ও সরিষার তেল ৪-৫ টেবিল চামচ।

কী ভাবে বানাবেন:

মলা মাছ ভালো করে কেটে, ধুয়ে হলুদ ও লবণ মাখিয়ে রাখুন। কড়াইয়ে পেঁয়াজ কুচি, লবণ, কাঁচা মরিচের ফালি, জিরা বাটা, রসুন বাটা ও সরিষার তেল দিয়ে মাখাতে হবে। অল্প পরিমাণ পানি দিয়ে হলুদ ও লবণ মাখানো মাছগুলো আলতো করে বিছিয়ে দিতে হবে। তারপর চুলায় কড়াই চাপিয়ে ১০ মিনিট ঢেকে রাখতে হবে। মাছ সেদ্ধ হয়ে এলে আমের কুচি দিয়ে ৫ মিনিট ঢেকে রেখে অল্প সরিষার তেল দিয়ে নামিয়ে রাখতে হবে।

 

পাঁচমিশালী নিরামিশ

পাঁচমিশালী নিরামিশ

কী কী লাগবে:

সজনে ডাঁটা ৪টা, উচ্ছে বা করলা ৪টা, মিষ্টিকুমড়া ৬ টুকরা (লম্বা করে কাটা), সরিষা বাটা ২ টেবিল চামচ, সরিষার তেল পরিমাণমতো, হলুদ ও লবণ পরিমাণমতো, কাঁচা মরিচ ৬টি ও চিনি সামান্য পরিমাণ ।

কী ভাবে বানাবেন:

সব সবজি লম্বা করে কেটে নিতে হবে। কড়াইয়ে তেল দিয়ে সবজিগুলো ভালো করে নাড়াচাড়া করে আধা সেদ্ধ করে নিন। পরে সরিষা বাটা দিয়ে কাঁচা মরিচের ফালি দিতে হবে। কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে ঢেকে কষিয়ে নিন। নামানোর সময়
সামান্য পরিমাণে চিনি দেওয়া যেতে পারে।

পোস্ত লাউ শাক

পোস্ত লাউ শাক

কী কী লাগবে:

লাউ শাক: ১ আঁটি (৩০০ গ্রাম),পোস্ত বাটা: দেড় টেবল চামচ
কাঁচামরিচ: ২টো,চিনি: আধ টেবল চামচ,হলুদ গুঁড়ো: ১/৪ চা চামচ,
কালো জিরে: ১ চিমটি,লবণ: স্বাদ মতো,তেল: রান্নার জন্য

কী ভাবে বানাবেন:

লাউ শাক ভালো করে ধুয়ে কুচিয়ে নিন।এবার একটা  হাড়িতে করে ভাঁপে শাকটা সেদ্ধ করে নিন।কড়াইতে দেড় চা চামচ তেল গরম করে কালো জিরে ফোড়ন দিয়ে লাউ শাক দিয়ে ২ মিনিট নেড়ে হলুদ গুঁড়ো, পোস্ত বাটা ও কাঁচা মরিচ দিন। ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে, আঁচ কমিয়ে স্বাদ মতো লবণ, চিনি দিয়ে চাপা দিয়ে রাখুন যতক্ষণ না শাক নরম হচ্ছে। তবে খেয়াল রাখবেন শাক যেন গলে না যায়। যদি পানি বেশী থাকে তা হলে আঁচ একটু বাড়িয়ে পানি শুকিয়ে মাখা মাখা করে নিন।
পয়লা বৈশাখের দিন গরম ভাতের সঙ্গে প্রথম পাতেই খান পোস্ত দিয়ে লাউ শাক।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

তথ্যসূত্রঃ ইন্টারনেট

ছবিঃ গুগল