তিন‘শ উইকেট নিয়ে রেকর্ড ছুঁলেন সাকিব

আহসান শামীম

টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে ৪০০০ রান পূর্ন করেছিলেন আগেই , প্রয়োজন ছিল তিন’শ উইকেটের । সেটাও মঙ্গলবার রাতে, সানরাইজ হায়দ্রাবাদের জার্সি গায়ে মুম্বাই ইন্ডিয়ানেক অধিনায়ক রহিত শর্মার উইকেট নিয়ে পূর্ন করলেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

সাকিব ছাড়া টি-টুয়েন্টির এই এলিট ক্লাবে আছেন কেবল ডোয়াইন ব্রাভো। ব্রাভোর রেকর্ড গড়তে প্রায় তিনশ ম্যাচ খেলতে হয়েছে। আর সাকিব আল হাসান মাত্র ২৬০ ম্যাচেই ব্রাভোর সঙ্গী হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন। ম্যাচ পরিসংখ্যানের হিসাবে দুই সদস্যের এই এলিট ক্লাবে সেরা সাকিবই।

একদশকের ক্যারিয়ারে তিনশ উইকেট ও চার হাজার রানের রেকর্ড কবে ছুঁয়ে ফেললেন সাকিব, সেটা ভেবে উঠতে পারছেন না তিনি। এমন রেকর্ড অর্জনের পর সাকিব জানালেন , “আমারও কাল থেকে এটাই মনে হচ্ছে,  টি-টোয়েন্টিতে উইকেট তো বেশি পাওয়া যায় না। চার ওভার বোলিংয়ের ক্রিকেটে ৩০০ উইকেট মানে অনেক উইকেট।

নিজের এমন পারর্ফমেন্সে নিজেই বিস্ময় প্রকাশ করেছেন তিনি।সাকিবের বললেন, “ভালো লাগছে তো বটেই। অবাকও লাগছে। নিজেও বুঝলাম না কিভাবে ৩০০ উইকেট হয়ে গেল! সত্যি বলতে, এখন হয়তো এসবের মাহাত্ম্য পুরো বুঝতেও পারবো না। আশা করি আরও অনেক দিন খেলব।”

সাকিবের এমন রেকর্ডের দিনে, ইন্ডিয়ার মাটিতে সবচেয়ে অল্প রান করে জয়ের রেকর্ডে সবার উপরে এখন সাকিবরা। এই তালিকায় দুইবার রয়েছে হায়দ্রাবাদের নাম। এর আগে ২০১৩ সালে পুনের বিপক্ষেও এই রেকর্ড করেছিল হায়দ্রাবাদ।যদিও আইপিএলে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে অল্প রান করে জয় পেয়েছে চেন্নাই ২০০৯ সালের আইপিএলে। সেবার আইপিএল হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে।কিংস এলেভেন পাঞ্জাব ও ২০০৯ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে মুম্বাইকে ১১৯ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়ে ম্যাচ জিতেছিল। আফ্রিকার মাটিতে অনুষ্ঠিত আইপিএল ছাড়া ঘরের মাঠে এই রেকর্ডে সবার উপর এখন সাকিবদের সানরাইজ হায়দ্রাবাদ।

ছবিঃ গুগল