ইজরায়েলকে না বললেন মেসি

আহসান শামীম

ইজরায়েলের বিপক্ষে মাঠে নামলে প্রতি মিনিটের জন্য ৫০ হাজার ডলার করে পেতেন লিওনেল মেসি। নিজের টুইটারে এই তথ্যটা জানিয়েছেন আর্জেন্টাইন ফুটবল সাংবাদিক রয় নেমার।

ফুটবল বিশ্বকাপ মাঠে গড়ানোর আগে ৯ জুন ইসরায়েলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার কথা ছিলো মেসিদের।

ইসরায়েলের গণহত্যা এবং খেলোয়াড়দের অনাপত্তির মুখে আর ইসরায়েলে যায়নি মেসির আর্জেন্টিনা।এ বিষয় মেসি জানান, ‘একজন ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে আমি কখনো তাদের বিপক্ষে খেলতে পারি না, যারা বিনা অপরাধে নিরীহ ফিলিস্তিনিদের হত্যা করে। ইউনিসেফের হয়ে কাজ করতে আমাকে এমন দায়িত্ব দেওয়া হয়নি। খেলার আগে আমার কাছে সবসময় মানবিকতা বড়। আমি মানবিকতাকেই সবচেয়ে সম্মানের চোখে দেখি।’

বিশ্বকাপের আগে জেরুজালেমে ম্যাচটা আয়োজন করতে আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে এরই মধ্যে ১ মিলিয়ন ডলার দিয়েছে ইসরায়েল ফুটবল ফেডারেশন। চুক্তি ছিল ম্যাচের পর আর্জেন্টিনার হাতে আরও ৩ মিলিয়ন ডলার তুলে দেওয়ার। সফর বাতিল হয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই সেটা আর পাচ্ছে না। উল্টো ১ মিলিয়ন ডলার ফেরত দিয়ে দিতে হবে তাদের।

ম্যাচ বাতিলের খবরের পর পরই আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে ধন্যবাদ জানিয়েছে পিএফএ। পিএফএ এর আন্তর্জাতিকবিষয়ক পরিচালক সুসান শালাবি জানান, “আমরা যে খবর পেয়েছি, তা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে। তারা প্রমাণ করেছে খেলা হানাহানি, কাটাকাটি ও রাজনীতির ঊর্ধ্বে। তাদের অকৃত্রিম ধন্যবাদ। বাকি সময়ে ওদের চলার পথ সুগম হোক। শুভকামনা সবসময়।”

এই ব্যাপারে ইসরায়েল কোচ আলোন হাজান বলেন, ‘আসলে ফিলিস্তান কোন ইস্যু না। আর্জেন্টিনা মূলত আমাদের সঙ্গে খেলতে ভয় পাচ্ছে। আমাদের সঙ্গে হারবে বলেই আর্জেন্টিনা দল খেলতে চাচ্ছে না।’ হাজান আরো বলেন ,‘আর্জেন্টিনা দল বর্তমানে ফর্মে নেই। স্পেনের বিপক্ষে ৬-১ গোল হেরেছে তারা। আর আমাদের সাথে যদি তারা বিশ্বকাপের আগে হারে তাহলে সেটা হবে তাদের জন্য বড় ধাক্কা। তাই আমার মনে হচ্ছে ম্যাচ হারার ভয়ে তারা এই ম্যাচ খেলতে চাচ্ছে না। এখানে ফিলিস্তান কোন ইস্যুই না।’

এই ম্যাচটা না খেলার জন্য প্রথমে থেকেই ফিলিস্তিনরা আর্জেন্টিনার কাছে অনুরোধ করে।ম্যাচ বাতিলের কারণে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার আগে মেসিবাহিনীকে একটা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেই মাঠে নামতে হবে।

ছবিঃ ফিফা সংগ্রহ