বাজলো বিশ্বকাপের বাঁশি

আহসান শামীম

 ঘড়ির কাটা পৌঁছে গেছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণে। আর মাত্র কিছুক্ষণ, তারপরেই রাশিয়ায় পর্দা উঠবে দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ নামে খ্যাত বিশ্বকাপ ফুটবলের মঞ্চের। বাজবে বিশ্বকাপের বাঁশি। ৩২টি দেশের ফুটবল যোদ্ধারা রাশিয়ার ১২টি স্টেডিয়ামের সবুজ ঘাসের চাদরে ঢাকা মাঠে শুরু করবেন তাদের লড়াই। ঝরাবেন ঘাম, শক্তি আর নৈপুণ্যের শেষ বিন্দুটুকু। ফুটবলের উন্মাদনায় মেতে উঠবে গোটা বিশ্ব।

কারা জিতে নেবে ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ ফুটবল প্রতিযোগিতার শিরোপা? এই কোটি টাকার প্রশ্ন মাথায় নিয়ে ঘুরছেন গোটা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ ফুটবলপ্রেমী। চারদিকে ছড়াছড়ি ভবিষ্যতবাণীর। কমতি নেই সমর্থকদের বিবাদেরও। চায়ের কাপে তুমুল তুফান উঠেছে বাংলাদেশেও। শহর থেকে গ্রাম সবজায়গাতেই উড়ছে সমর্থিত দেশের পতাকা। আলোচনায় এগিয়ে যথারীতি ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনা। ফুটবল-ঝগড়ার কেন্দ্রে মেসি আর নেইমার। সেই উত্তেজনা চাক্ষুস করতে আজ টিভি পর্দার সামনে ঝুঁকে থাকবে মানুষ। মস্কোর লুজিনিকি স্টেডিয়ামের গ্যালারীতে উত্তেজনার ঢেউ আছড়ে পড়বে দর্শকদের। ফুটবল হয়তো এমনি এক ভালোবাসার ডাকনাম।

এবার বিশ্বকাপ ফুটবলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান জমকালোই হবে। উদ্বোধনী ম্যাচের আধ ঘণ্টা আগে শুরু হবে মিউজিক কনসার্ট ৷ বিশ্বকাপের এই আয়োজন উদ্বোধন করবেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। মঞ্চে গান গাইতে উঠবেন বৃটিশ পপ তারকা রবি উইলিয়ামস আর রাশিয়ান জনপ্রিয় গায়িকা আইদা গারিফুলিনা৷ তাদের সঙ্গে এই উদ্বোধনী মঞ্চকে আরো রঙীন করতে হাজির থাকবেন দু’বারের বিশ্বকাপ জয়ী ব্রাজিলীয় ফুটবল তারকা রোনাল্ডো ৷ রুশ গায়িকা আইদা মন্তব্য করেছেন, ‘আমি কখনও কল্পনা করিনি, এই রকম অনুষ্ঠানে পারফর্ম করার সুযোগ পাবো।’

বাংলাদেশ সময় রাতে ৮.০০ টায় উদ্বোধনী ম্যাচে আজ মুখোমুখি হচ্ছে আয়োজক রাশিয়া ও সৌদি আরব৷
সমাজতন্ত্রের উত্থান ও পতন দুটোই দেখেছে রাশিয়া। পারমাণবিক শক্তিধর দেশটির রাজনৈতিক মঞ্চে পালাবদল ঘটেছে বহু রাজনৈতিক অধ্যায়ের। এবার প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ফুটবলের আসর বসছে রাশিয়ায়৷ ৬৪ ম্যাচের লড়াইয়ে শিরোপা ছিনিয়ে নেবে একটা দেশ ৷ ১৫ জুলাই মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে চ্যাম্পিয়নদের হাতে উঠবে বিশ্বসেরার ফুটবল দেশের ট্রফি ৷
ফুটবলের এই মহা আয়োজন উপলক্ষ্যে রাশিয়াকে আগেই ঢেকে ফেলা হয়েছে নিরাপত্তার চাদরে। এরই মধ্যে নিরাপত্তা নিয়ে মহড়া দিয়েছে আয়োজকরা। আকাশ ও জলপথের চরম পরিস্থিতি মোকাবিলার প্রস্তুতি সেরেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। অংশগ্রহণকারীদের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রতি দেশ থেকে দেড়শ পুলিশ সদস্যকে আমন্ত্রন করেছে রাশিয়া। তারা সকল খেলোয়াড় আর আগত সমর্থকদের জন্য নিরাপদ করতে চান রাশিয়ার মাটি।

বিশ্বকাপ নিয়ে ২০১০ এ অক্টোপাস পল হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল। সবশেষ ব্রাজিল বিশ্বকাপে আলোচনায় ছিল কচ্ছপ। আর এবার রাশিয়া বিশ্বকাপের দলগুলোর ভবিষ্যত জানাবে বিড়াল।সেইন্ট পিটার্সবার্গের হার্মিটেগ জাদুঘরে ম্যাচ প্রেডিক্টর বিড়ালের আস্তানা। বিড়াল কিন্তু এরই মধ্যে কনফেডারেশন্স কাপের সবগুলো ম্যাচে নির্ভুল ভবিষ্যতবাণী করে যোগ্যতা প্রমাণ করেছে।
প্রতিবারের মত এবারও রাশিয়া বিশ্বকাপে চলছে বল বির্তক। বলের ওজন, রং, বল কতটা গতিতে ছুটবে জল্পনা এসব নি। ২০১৪ বিশ্বকাপের বল ব্রাজুকা নিয়ে আলোচনা খানিকটা কম হয়েছিলো। এখন রাশিয়ার ফুটবল রণাঙ্গনে গোলরক্ষক বল ঠিকমতো গ্রিপ করতে পারবেন কিনা, দূরপাল্লার শট কতটা বিপজ্জনক হবে এসব নিয়ে চলছে বির্তক। স্পেনের গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়া রাশিয়া বিশ্বকাপের বল ‘টেলস্টার ১৮’ সম্পর্কে বলেন, “বলটা বেশ অদ্ভুত।” কারণও ব্যাখ্যা করেছেন স্পেনের আরেক গোলরক্ষক পেপে রেইনা। তার মতে গোলরক্ষকদের এই বল ধরতে বেশ কষ্ট হবে।’ বল নিয়ে গবেষণা করে গোলরক্ষকদের জন্য আশঙ্কার কিছু নেই বলে আশার বাণী শোনাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, বল ধরার ব্যাপারে আগের বলগুলোর তুলনায় খুব আলাদা কিছু নয় এই ‘টেলস্টার ১৮’।তবে বিশেষজ্ঞদের মতে কিছু আশঙ্কা থাকছে স্ট্রাইকারদের জন্য। এই বলে ৯০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টায় শট মারলে তা গেল বিশ্বকাপের ব্রাজুকার তুলনায় ৮-১০ শতাংশ কম দূরত্ব যাবে। যার মানে, দূর থেকে মারা শট গোলের কাছে যখন পৌঁছবে, তখন তার গতি ব্রাজুকার তুলনায় কম থাকবে। বলের গতি কম থাকলে গোলরক্ষকদের জন্য সেটা হবে ভালো খবর। খারাপ খবর স্ট্রাইকারদের। কারণ গোল করতে হলে আরও জোরে বল মারতে হবে স্ট্রাইকারদের।
‘সুইস ফেডারেল ল্যাবরেটরিজ ফর মেটেরিয়ালস সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি’ বলটা নিয়ে নানা পরীক্ষা করে দেখিয়েছে অনেক বল প্রয়োগেও বলটির গোল আকৃতি নষ্ট হয়নি। তারা বলটিকে একটা স্টিলের দেয়ালে ৫০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে ২০০ বার আঘাত করে দেখেছেন অবিকৃতই থাকছে বলের আকৃতি। তারা আশ্বাস দিচ্ছেন, ফ্রি কিক কিংবা কর্নার মারার পর বলের গতি অনেক ধারাবাহিক থাকবে। মাঝারি দূরত্বের শটের ক্ষেত্রেও গতি কমার সম্ভাবনা নেই।
ব্রাজিল দলের জার্সিতে নেইমার ডি সিলভা কাটিয়ে দিয়েছেন এক দশক। অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে গোল করে ছুঁয়েছেন রোমারিওকে। ব্রাজিলের হয়ে সর্বাধিক গোলের রেকর্ডে নেইমার ও রোমারিও দুজনেরই রয়েছে এখন সমান ৫৫ করে গোল। অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে ৫৪ গোল নিয়ে নেইমার ছিলেন ব্রাজিলীয় ফুটবলের আরেক তারকা জিকোর উপরে। এবার এক গোল পেয়েই নেইমার ছুঁয়ে দিয়েছেন রোমারিওকে। নেইমারের সামনে এবার সুযোগ রোনালদোকে টপকে যাবার। সাবেক এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে ছাড়াতে আর মাত্র ৮ গোল দরকার নেইমারের। ব্রাজিলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি গোল করার রেকর্ড গড়া পেলের ৭৭ গোলকে পেছনে ফেলতে ২৬ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ডের দরকার আর ২২ গোল।
অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে শেষ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে ফেলেছে ব্রাজিল। নিজেদের ঝালাই করে নেওয়ার পালা শেষ করে গত সোমবার রাশিয়া পৌঁছে গেছেন পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ‘ই’ গ্রুপে ব্রাজিল দল লড়বে সুইজারল্যান্ড, সার্বিয়া ও কোস্টারিকার সঙ্গে। ১৭ জুন বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামবে নেইমাররা।
বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের বিপক্ষে আগামী ১৬ তারিখ মাঠে নামবে দর্শকজনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা।সেই ম্যাচে সার্জিও আগুয়েরোকে পেছনে ফেলে শুরুর থেকেই মাঠে দেখা যাবে গঞ্জালো হিগুয়াইনকে।মুন্দো আলবেসিলেস্তে পত্রিকার ভাষ্যমতে আর্জেন্টাইন বস হোর্হে সাম্পাউলি তার স্টার্টিং ইলেভেন ঠিক করে ফেলেছেন।পত্রিকাটি জানিয়েছে আহত লানজিনির স্থানে খেলবেন ম্যাক্সি মেজা। হিগুয়াইনের শুরু থেকেই দলে থাকা অনেকটায় নিশ্চিত।মেসি জানালেন, সেমিফাইনাল নিশ্চিত করতে চায় তাঁর দল। দারুণ ফর্মে থাকা মেসিই বর্তমানে আর্জেটিনার মূল কান্ডারী।রাশিয়া বিশ্বকাপের পর আর্জেন্টিনার হয়ে আর নাও খেলতে পারেন বলে জানিয়েছেন তারকা ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসি।
আর্জেন্টিনার খেলোয়াড়দের গড় বয়স এবার ২৯.৬ বছর। ২৩ জনের স্কোয়াডের ১৪ জনেরই বয়স ৩০ কিংবা তারও বেশি। গোলরক্ষক উইলি কাবায়েরোর বয়স ৩৬ বছর। হাভিয়ের মাসেরানোর বয়স ৩৪ বছর। দলের সবচেয়ে তরুণ দুই খেলোয়াড়ের বয়স ২২ বছর। ক্রিস্তিয়ান পাভন ও জিওভানি লো চেলসো।

আর্জেটাইনদের জন্য এবার প্রথম প্রতিপক্ষ দেশ আইসল্যান্ড। বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো জায়গা পাওয়া দেশটার অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এই দলের অধিকাংশ খেলোয়াড়দের উচ্চতা।
এই জন্যই শনিবারের প্রথম খেলা নিয়ে চিন্তায় আছে আর্জেন্টিনা দল। বিশ্বকাপে খেলোয়াড়দের উচ্চতার দিক দিয়ে শীর্ষ পাঁচ দলের একটি হচ্ছে আইসল্যান্ড। আইসল্যান্ডের খেলোয়াড়দের গড় উচ্চতা ৬ ফুট ১ ইঞ্চি। কেবলমাত্র সার্বিয়া, সুইডেন, জার্মানি ও ডেনমার্কের খেলোয়াড়দের গড় উচ্চতা তাদের থেকে বেশি। যেখানে আর্জেন্টিনা আইসল্যান্ডের থেকে অনেক পিছিয়ে। আইসল্যান্ডের সাত ডিফেন্ডারের ভেতর ৬ জনেরই উচ্চতা ৬ ফুট ১ ইঞ্চির বেশি। আইসল্যান্ডের বেশিরভাগ গোলেই আসে হেড থেকে। বাছাই পর্বের ১৬ গোলের ৫ টি জালে ঢুকেছে হেড থেকে।
রক্ষণভাগের ফাজিও ৬ ফুট ৪ ইঞ্চি, মার্কস রোহো ৬ ফুট ১ ইঞ্চি এবং স্ট্রাইকার হিগুয়াইনের উচ্চতা ৬ ফুট ১ ইঞ্চি।
অন্যদিকে আর্জেন্টিনা দলের গড় উচ্চতা ৫ ফুট ৮ ইঞ্চি। মোটা দাগে বলা যায়, এবারের বিশ্বকাপে প্রথম খেলায় আইসল্যান্ডের উচ্চতা বেশ ভোগাবে আর্জেন্টিনাকে।

এবার বিশ্বকাপে থাকছে ৪০০ মিলিয়ন ডলারের প্রাইজমানি।কেউ ফিরবে না খালি হাতে। প্রত্যেক দলই টুর্নামেন্টে তাদের অবস্থান অনুযায়ী প্রাইজ মানি পাবে। চ্যাম্পিয়ন দল প্রাইজ মানি হিসাবে পাবে ৩৮ মিলিয়ন ডলার আর রানার আপ দল পাবে ২৮ মিলিয়ন ডলার। তৃতীয় স্থান অর্জনকারী দল পাবে ২৪ মিলিয়ন ডলার। চতুর্থ স্থান অর্জনকারী দল পাবে ২২ মিলিয়ন ডলার।কোয়ার্টার ফাইনাল পর্ব থেকে বিদায় নেওয়া দলগুলো পাবে ১৬ মিলিয়ন ডলার করে।দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায় নেয়া দলগুলো পাবে ১২ মিলিয়ন ডলার। গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়া প্রতিটা দলের ঝুলিতে ঢুকবে আট মিলিয়ন ডলার।

ছবিঃ ফিফা