বিশ্বকাপে ছোট আর বড়

আহসান শামীম: এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড়টির নাম এসাম এল-হায়দারি। এক ম্যাচ খেললেই তিনি ভেঙে দেবেন বিশ্বকাপের সর্বকালের রেকর্ড। ২০১৪ বিশ্বকাপে জাপানের বিপক্ষে কলম্বিয়ার হয়ে ৪৩ বছর ৩ দিন বয়সে মাঠে নেমেই রেকর্ড গড়েন ফরিদ মনদ্রাগন। ক্যামেরুনের রজার মিলাকে পেছনে ফেলে হয়ে যান বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড়। উরুগুয়ের বিপক্ষে মিসরের এবারের বিশ্বকাপ অভিযান শুরুর দিন গোলরক্ষক এসাম এল-হাদারির বয়স হবে ৪৫ বছর ৫ মাস। ‘উঁচু বাঁধ’ ডাকনামের এল.হাদারির বয়স বিশ্বকাপের তিন বয়স্ক কোচ আলিউ সিসে (সেনেগাল, ৪২ বছর), ম্লাদেন ক্রস্তাইচ (সার্বিয়া, ৪৪) ও রবার্তো মার্টিনেজ (বেলজিয়াম , ৪৪)-এর চেয়েও বেশী।

বিশ্বকাপের সবচেয়ে তরুণ খেলোয়াড় ড্যানিয়েল আরজানি। তিনি অবশ্য বিশ্বকাপের সর্বকালের রেকর্ড ভাঙতে পারবেন না। সবচেয়ে কম বয়সে বিশ্বকাপ খেলার রেকর্ড উত্তর আয়ারল্যান্ডের নরম্যান হোয়াইটসাইডের। ১৭ বছর ৪১ দিন। ১৭ বছর ২৪৯ দিন বয়সে ফাইনাল খেলার কীর্তি গড়েছিলেন পেলে। এটিও কম বয়সে ফাইনাল খেলার একটি রেকর্ড। ২১ বছর বয়সে দলের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন টনি মেওলা। আর ১৩ বছর ৩১০ দিন বয়সে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচ খেলেছিলেন সুলেমানে মামাম।

সবচেয়ে কম বয়স্ক দলের গড় বয়সের চার্টটা অনেকটা এরকমঃ নাইজেরিয়া- ২৫.৯ বছর, ইংল্যান্ড- ২৬ বছর, ফ্রান্স- ২৬ বছর, তিউনিসিয়া-২৬.৫ বছর, সার্বিয়া- ২৬.৮ বছর আর সবচেয়ে বেশি বয়স্ক পাঁচ দলের তালিকায় আছে, আর্জেন্টিনা-২৯.৬বছর,কোস্টারিকা-২৯.৫ বছর,মেক্সিকো-২৯.৪ বছর,পানামা-২৯.২ বছর, মিসর-২৯ বছর।

 

ছবিঃ ফিফা