আজ মেসির পালা

পচা শামুকে পা কাটুক, এটা চান না সাম্পাওলি বা তার ফুটবলাররা। আগুয়েরো ও হিগুয়ানোর সামান্য ম্লান ফর্মটাও আর্জেন্টিনার কোচকে ভাবাচ্ছে। তবে তাই বলে শেষ ভরসা মেসির কাঁধেই  বোঝা চাপিয়ে দিতে হবে এমন মনে করছেন না সাম্পাওলি। মেসি নিজেও এর আগে বলেছেন, কোনও একজন দু’‌জনের পক্ষে জেতানো সম্ভব নয়। সাফল্য তখনই আসবে, যখন তারা একটা দল হয়ে খেলতে পারবেন।

তবে শুধু এক হয়ে লড়লেই কি চলবে?‌ চাপমুক্ত থাকাও তো জরুরি। বিশ্বকাপের আগে গুরুত্বপূর্ণ পরপর প্রতিযোগিতায় ব্যর্থতার ভূত তো তাড়া করছে মেসি ও আর্জেন্টিনা শিবিরকে। হয়তো সেটা মাথায় আছে বলেই প্রচারমাধ্যমকে এতদিন এড়িয়ে চলেছেন কোচ সাম্পাওলি ও তাঁর ফুটবলাররা।
আর তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে আছে আর্জেন্টিনা প্রচারমাধ্যম। যতই তাঁরা মুখে বলুন, দেশের জয় চাই, মেসির হাতে বিশ্বকাপ উঠুক, বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের মতো দলের কাছে আটকে গেলে বা খুঁড়িয়ে জিতলে সাম্পাওলির সমালোচনায় তারা মুখর হবেন এটা বলাই বাহুল্য। আর্জেন্টিনা কোচ নিজেও বেশ বুঝছেন সেটা। যোগ্যতা অর্জন পর্বে তাঁর দল যে ভাল খেলেনি সেটা সকলেরই জানা। বারবার ছক বদলে আপাতত ৪–‌২–‌৩–‌১ ছকে দলটাকে খেলাতে চাইছেন দলকে সাম্পাওলি।
আগুয়েরোর ঠিক পেছনে থাকবেন মেসি, হয়তো আড়ালে থেকেই আক্রমণ চালাবেন। গোলে উইলি কাবায়েরো। চার ব্যাকে তাগলিয়াফিকো, মার্কোস রোজো, নিকোলাস ওটামেন্ডি, সালভিও। মাঝে জেভিয়ার মাসচেরানো, লুকাস বিগলিয়া। উইংয়ে মেজা ও ডিমারিয়া।
অন্যদিকে, স্পার্টাক স্টেডিয়ামে আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হওয়ার আগে চাপের থেকেও বেশি রোমাঞ্চিত ‘‌বুম বুম’‌ আইসল্যান্ডের ফুটবলাররা। তাঁরা নিজেরাও মেসিতে মুগ্ধ। দলের কোচ হেইমির হেলগ্রিমসন তো বলেই দিলেন, ‘‌মেসিকে আটকাব বললেই কী আটকানো যায় নাকি?‌ সবাই অনেক আটকাতে চেষ্টা করলেও ও গোল করে চলে যায়। তাই মার্ক করার কথা ভাবাটা অর্থহীন। এটুকু বলতে পারি, চেষ্টা করবে আমার ফুটবলাররা ভাল খেলতে। শুধু মেসি নয়, গোটা আর্জেন্টিনা দলের বিরুদ্ধে লড়তে।’‌ মাত্র তিন লক্ষ তিরিশ হাজারের দেশ। চলে এসেছে বিশ্বকাপের মাঠে। এ–ও কি এক রূপকথা নয়?‌ হালগ্রিমসন হাসতে হাসতে বলে দিলেন, ‘‌আমরা একটা ছোট্ট দেশ। মানুষগুলোও বেশ ভাল। আপনারা ভাল না বেসে থাকতে পারবেন না।’‌

আইসল্যান্ডের ফুটবলাররাও ঘোরের মধ্যে রয়েছেন, প্রথমবার বিশ্বকাপে খেলবেন বলে। একইসঙ্গে মেসির মুখোমুখি হওয়ায় উত্তেজনায় টগবগ করে ফুটছেন। ‌

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

ছবিঃ ফিফা