আবেদনময়ী প্রেসিডেন্ট ফাইনালে থাকবেন

আহসান শামীম: বিশ্বকাপের নতুন চমক তিনি। ফুটবল খেলার বাইরের মানুষ হয়েও এখন প্রবল আলোচনায় আছেন।  তার আবেদনময় বিষ্ফোরক ছবি  ইতিমধ্যেই ঝড় তুলেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। খবরের ঝোড়ো হাওয়া জানান দিচ্ছে বিশ্বকাপের মাঠে তারকা ফুটবলারদের চেয়েও তিনি এখন বড় তারকা। বিশ্বের সবচেয়ে আবেদনময়ী প্রেসিডেন্ট কোলিন্ডা গ্রাবারের কথাই লিখছি। তিনি ক্রোয়েশিয়া নামের দেশটির প্রেসিডেন্ট। তার দেশের দল এক চমকপ্রদ ফুটবল খেলে প্রথমবারের মতো পৌঁছে গেছে বিশ্বকাপের ফাইনালে।  তাদের খেলা উপভোগ করতে  ১৫ জুলাই কোলিন্ডা থাকবেন লুঝনিকি স্টেডিয়ামে।

ক্রোয়েশিয়ার প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট কোলিন্ডা ফুটবলের একজন অন্ধ ভক্ত। রাশিয়াকে টাইব্রেকারে হারানোর পরই, ক্রোয়েশিয়ার এই আবেদনময়ী প্রেসিডেন্ট প্রোটোকল ভেঙ্গে রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদের সামনেই নেচে ওঠেন। সামাজিক মাধ্যমে মূহুর্তের মধ্যেই প্রেসিডেন্ট কোলিন্ডার এই ভিডিওটা ভাইরাল হয়ে যায়।

মোট ৮ ভাষায় কথা বলতে পারেন পৃথিবীর কনিষ্ঠতম প্রেসিডন্ট কোলিন্ডা। দেশটির প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগে তিনি  ছিলেন ন্যাটোর গুরুত্বপূর্ণ পদে। প্রায় দুই দশকের ক্যারিয়ারে সামলেছেন নানা কূটনৈতিক পদ,কাজের স্বার্থেই রপ্ত করেছেন ৮ টি দেশের ভাষা। ৫০ বছর বয়স্ক প্রেসিডন্ট কোলিন্ডা ২০১৫ সালে ক্রোশিয়ার প্রেসিডেন্টের চেয়ারে বসেন। ১৯৯৬ সালে তিনি বিয়ে করেন। তার বড় মেয়ে ক্যাটরিনা একজন প্রফেশনাল স্কেটার, ক্রোয়েশিয়ার জাতীয় স্কেট দলের সদস্য।

র‌্যাকেটিচ,  মানজুকিচদের ফুটবল স্কিলে যখন সম্মোহিত ফুটবল ভক্তরা  তখন ক্রোয়েশিয়ান সুন্দরী প্রেসিডেন্টের প্রাণোচ্ছলতায় মজেছে নেট দুনিয়া। সমুদ্র সৈকতে তার বিকিনি পড়া ছবি ছড়াচ্ছে বাড়তি উত্তাপ। সংক্ষিপ্ত পোশাকের নারী প্রেসিডেন্টকে নিয়ে লোকজনের কৌতুহল সীমা ছাড়িয়েছে। প্রেসিডেন্ট হয়েও তিনি থাকেন না সে দেশের প্রেসিডেন্ট হাউজে। বসবাস করেন তার অফিস ভবনেই।বিশ্বের অনেক রাষ্ট্রপ্রধানকে ঘিরে যখন নিরাপত্তার বাড়বাড়ন্ত, তখন তিনি প্রেসিডেনশিয়াল প্রোটোকলের বালাই করেন না। সেলিব্রেট করতে কখনো ঢুকে পড়েন খেলোয়াড়দের ড্রেসিং রুমে, কখনও উঠে পড়েন প্লেনের ইকোনমি ক্লাসে, শোনেন হার্ড রক। বিশ্বকাপের বাড়তি উত্তেজনা প্রেসিডেন্ট কোলিন্ডা, ক্রোয়েশিয়া -ফান্স ফাইনালে কি করেন সেটা দেখতে এখন মুখিয়ে আছে গোটা ফুটবল দুনিয়া।

ছবি: গুগল