এবার সিনেমা ছিনতাই

মহরত অনুষ্ঠানে পরিচালক রাশেদ রাহার সঙ্গে শাকিব খান ও ববি

‘নোলক’ ছবিতে মাত্র দুটি গান আর কিছু দৃশ্যের শুটিং বাকি থাকা অবস্থায় ছবিটি পরিচালকের কাছ থেকে ছবিটি ছিনতাই হয়ে গেছে!জানা যায় এই মুহূর্তে ভারতের কলকাতায় অন্য একজন পরিচালককে নিয়ে ছবিটির শুটিং করছেন প্রযোজক। আর তা ছবির নায়ক শাকিব খান ও পরিচালক রাশেদ রাহা—কাউকেই জানানো হয়নি।

রাশেদ রাহা বললেন, একজন পরিচালকের কাছে তাঁর সৃষ্টি  সন্তানের মতো। আমি যখন সেই সন্তানকে লালন-পালন করে বড় করে ফেলছি তখনই প্রযোজক আরেকজনকে দিয়ে কাজটি করিয়ে নিতে চলছেন!এটাকে তো  ছবি ছিনতাই করা বলা যায়।

 মাস খানেক আগে ছবির প্রযোজক সাকিব ইরতেজা চৌধুরী রাশেদ রাহাকে ফোন করে বলেন, এখন থেকে পরিচালক ইফতেখার চৌধুরী “নোলক” ছবির বাকি অংশের শুটিং করবেন এবং রাহা যেন তাঁর সঙ্গে পরামর্শ করে নেন।  প্রযোজকের কথামতো রাহা ইফতেখার চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছেন।কিন্তু ইফতেখার চৌধুরীর রাহার কোন ফোন কিংবা এসএমএসের কোনো জবাব দেননি। এর মধ্যে ইফতেখার চৌধুরীর রাহাকে ফেসবুকে তাঁর বন্ধু তালিকা থেকেও বাদ দিয়ে  দিয়েছেন!এখন পরবর্তী অংশের শুটিং করতে ভারতের কলকাতায় আছেন মৌসুমী, ওমর সানি, ববি, তারিক আনাম খান খান, এদিকে প্রযোজক সাকিব ইরতেজা চৌধুরী বলছেন, তার সঙ্গে পরিচালক হিসেবে রাশেদ রাহার কোনো চুক্তিই হয়নি!

নোলক’ ছবির পোস্টারে শাকিব খান ও ববি

অথচ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নথিতে দেখা যায়, গত বছর ২৩ নভেম্বর ‘নোলক’ ছবির নামটি নিবন্ধন করা হয়। আর সেখানে পরিচালক হিসেবে রয়েছে রাশেদ রাহার নাম। এ ব্যাপারে সাকিব ইরতেজা চৌধুরী বলেন, এই ছবির পরিচালক এখন আমি। শুরু থেকে শুটিংয়ের বিষয়টি আমিই তদারকি করেছি।

তাহলে ছবির মহরতের সময় পরিচালক হিসেবে কেন রাশেদ রাহাকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছিল? তখন ‘নোলক’ ছবির শুটিংয়ের সেটে তাঁকেই পরিচালনা করতে দেখা গেছে। সাকিব ইরতেজা চৌধুরী বলেন, ‘আমি ঢাকায় এসে বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলব। ২৫ জুলাই পর্যন্ত আমাদের শুটিং চলবে।’

রাশেদ রাহার ব্যাপারে অভিযোগ করে সাকিব ইরতেজা চৌধুরী বলেন, ‘পরিচালক হিসেবেই তাঁকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু শুটিংয়ের সময় রাশেদ রাহা ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করতে পারেননি। সবকিছু আমাকেই করতে হয়েছে। এখন আমি ছবির প্রযোজকের পাশাপাশি পরিচালকও।’

কলকাতায় এখন ‘নোলক’ ছবির শুটিং হচ্ছে, তা জানেন না ছবির নায়ক শাকিব খান। পরিচালককে বাদ দিয়ে সেখানে শুটিং হচ্ছে জেনে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করছেন।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘কোনো প্রযোজক এটা করতে পারবেন না। অনুমতি ছাড়া অন্য পরিচালককে দিয়ে কাজ করার চেষ্টা গুরুতর অপরাধ। এখন ভুক্তভোগী পরিচালক যদি আমাদের কাছে অভিযোগ করেন, তাহলে আমরা অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

বিনোদন ডেস্ক

ছবি: গুগল