জয়ের ধারায় ফিরলো বাংলাদেশ

আহসান শামীম

অধিনায়ক সাকিব আল হাসান আর তামিম ইকবালের  ৯০ রানের অনবদ্য এক জুটি।বল হাতে মুস্তাফিজ, সাকিব, রনি,রুবেল, নাজমুল ইসলামের  দূরর্দান্ত বোলিং এর মুখে টি-টুয়েন্টি বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েষ্ট ইন্ডিজ তাদের শততম ম্যাচের দিনে ১২ রানে হারলো বাংলাদেশের কাছে। এই হারে ফ্লোরিডার মাঠে ৩ ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজ সমতায় ফেরালো বাংলাদেশ।আগামীকাল বাংলাদেশ সময় সকাল ৬ টায় সিরিজের শেষ ম্যাচটা পরিণত হলো সিরিজ জয়ের ফাইনালে।

ওয়ার্নার পার্কে প্রথম টি-টোয়েন্টির আগেই বাংলাদেশকে “ধবলধোলাই” এর হুমকি দিয়েছিলেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক কার্লোস ব্র্যাথওয়েট। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির আগেও এমন এক হুমকি দিয়েই মাঠে নেমেছিলেন  কার্লোস ব্র্যাথওয়েট।টস জিতে প্রথমেই বাংলাদেশকে ব্যাটিং করতে পাঠান।আগেই ধারনা করা গিয়েছিল ফ্লোরিডায় উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশি সমর্থকদের উপস্থিতি ঘটবে, ঘটেছিলও তাই। বাঁহাতি-ডানহাতি কম্বিনেশনের ভাবনা থেকে তামিম ও লিটন ম্যাচে ওপেন করেন।

১ বল খেলে ১ রান যোগ করে দলীয় ৮ রানে আউট হন লিটন।লিটনের পথে হাঁটলেন ডানহাতি মুশফিকও নার্সের বলে উইকেট বিলিয়ে ৪ রানে সাজঘরে ফেরেন তিনি।চার নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসা সৌম্য সরকারও  ১৮ বলে ১৪ রান যোগ করে কিমো পোলের স্লোয়ার বলে আউট হন।ম্যাচ সেরা তামিম ইকবাল ৪৪ বলে ৭৫ আর ৩৮ বলে ৬০ রান করেন অধিনায়ক সাকিব।

অধিনায়ক হওয়ার পর  টি-টোয়েন্টিতে তো আরো খারাপ অবস্থায় ছিলেন সাকিব। ব্যাট হাতে সাকিবের শেষ ফিফটি ছিল ১৬ মার্চ, ২০১৬। কলকাতার ইডেন গার্ডেনে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সর্বশেষ হাফ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান।আজ প্রায় আড়াই বছর পর (দুই বছর ৪ মাস ১৯দিন) আবারও এক হাফ সেঞ্চুরির দেখা মিললো সাকিবের ব্যাটে।মুস্তাফিজ ৩, সাকিব আর নাজমুল ২ টা করে উইকেট লাভ করেন।

ছবিঃ ইএসপিএন