এশিয়া কাপে হুট করে নতুন সূচী কার স্বার্থে

আহসান শামীম

এশিয়ান কাপের অদ্ভুত খেলা-সূচীতে বিরক্ত বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি, ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বিসিবিও। ভারতের চাওয়া পূর্ন করতেই হঠাৎ করেই এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল ( আইসিসি) আজ নতুন করে গ্রুপ ফোরের সিডিউল ঘোষনা করেছে।

কোন টুর্নামেন্টের মাঝখানে এরকম সিডিউল পরিবর্তন ঘটনা ক্রিকেট ইতিহাসে সম্ভাবত এই প্রথম। এই পরিবর্তনের কারনে গ্রুপ পর্বের চ্যাম্পিয়ন রানার্স আপ দলের কোন গুরুত্বই থাকলো না।আগের সূচি অনুযায়ী, আগামী ২১ সেপ্টেম্বর সুপার ফোরে খেলার কথা ছিল গ্রুপ ‘এ’ চ্যাম্পিয়ন বনাম গ্রুপ ‘বি’ রানার্সআপ এবং গ্রুপ ‘বি’ চ্যাম্পিয়ন বনাম গ্রুপ ‘এ’ রানার্সআপ।গ্রুপ পর্বের ম্যাচ বাকি থাকায় গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন বা রানার্সআপ নির্ধারণ হয়নি।এর আগেই এশিয়া ক্রিকেট কাউন্সিল বিভিন্ন সমীকরণে বিশেষ দলের জন্য নতুন ফিকচার প্রকাশ করেছে আজ। যেখানে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ দল বাংলাদেশ আর সুবিধাজনক দল ভারত।

আফগান- বাংলাদেশের খেলার ফলাফল যাই হোক না কেন ,পর পর দু দিন খেলতে হবে বাংলাদেশকে।আবুধাবিতে আগামীকাল গ্রুপ পর্বের শেষে ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখামুখি হবে টাইগাররা এবং তার পরের দিনই সুপার ফোরের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামতে হবে মাশরাফি বাহিনীকে দুবাইতে।ভারত দুবাই ছাড়তে রাজী না হওয়ায় এমন পরিবর্তন। এছাড়াও ২১ এবং ২৩ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে দুইটা করে ম্যাচ।যেখানে ২২ এবং, ২৪ তারিখ কোনো ম্যাচ নেই।

আজ পাক-ভারতের লড়াই শুরু হওয়ার আগে গণমাধ্যমে এশিয়া কাপের সূচি বিতর্ক নিয়ে  পাকিস্তানের  অধিনায়ক সরফরাজ খান ‘ম্যাচের মাঝে যদি দেড় ঘণ্টার জন্য ভ্রমন করা লাগে, তাহলে এটা খুবই যন্ত্রণাদায়ক। এরপর আবার এমন আবহাওয়াতে অনুশীলন করা অনেক কঠিন, সবগুলো দলের জন্যই। আবু ধাবিতে যদি খেলা থাকে, সব দলের সেখানেই খেলা উচিত।’

এরপরে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাও কড়া সমালোচনা করে বলেন,’’আপনি যদি গ্রুপ পর্বের কথা কিংবা সুপার ফোরের ম্যাচের কথা বলেন, ‘তাহলে অবশ্যই সেখানে কিছু নিয়ম থাকার কথা। কিন্তু আমরা সেই নিয়মের বাইরে। সুতরাং এটা আসলেই হতাশার। এক্ষেত্রে একজন পাগলও হতাশ হবে।’

নতুন সূচী নিয়ে  বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি জানান, ‘এশিয়া কাপ আয়োজন নিয়ে এত তাড়াহুড়ার কিছু ছিল না।’ তিনি আরো বলেন, ‘যেকোনো সময় কেউ ডিহাইড্রেড হয়ে যেতে পারে। ক্র্যাম্প হতে পারে। আমার মনে হয় ওখানে ব্যাক টু ব্যাক খেলানো উচিত ছিল না। সময় নিয়ে টুর্নামেন্টটা করা উচিত ছিল। কমপক্ষে একটা দিন রেস্ট-ডে থাকা উচিত ছিলো। জানি না কেন তারা এটা করেছে। ওখানকার সাড়ে তিনটায় খেলা মানে পুরোপুরি ভরদুপুর।’

এমন ঘটনার পর বিসিবি পক্ষ থেকে বাংলাদেশর খেলোয়াড়দের বেশি করে স্যালাইন ওয়াটার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি মেডিক্যাল দল ও ফিজিওকে খেলোয়াড়দের প্রতি যথাযথ যত্নের জন্য নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। বাংলাদেশের কোচ স্টিভ রোর্ডস বিস্ময় প্রকাশ করে জানান ,‘এসিসি’র কর্মকান্ড হতাশাজনক ।’

সুপার ফোরের নতুন সূচী :

শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর ভারত-বাংলাদেশ দুবাই।

পাকিস্তান-আফগানিস্তান আবুধাবি।

রোববার ২৩ সেপ্টেম্বর ভারত-পাকিস্তান দুবাই।

আফগানিস্তান-বাংলাদেশ আবুধাবি।

মঙ্গলবার ২৫ সেপ্টেম্বর ভারত-আফগানিস্তান দুবাই।

বুধবার ২৬ সেপ্টেম্বর পাকিস্তান-বাংলাদেশ আবুধাবি।

শুক্রবার ২৮ সেপ্টেম্বর ফাইনাল দুবাই।

ছবিঃ গুগল