বাংলা-পাক যুদ্ধ কাল

আহসান শামীম

এশিয়া কাপের সুপার ফোরের বাংলাদেশ, পাকিস্তানের ম্যাচটা এখন অলিখিত সেমিফাইনাল।যে দল জিতবে সে দলই ফাইনাল খেলবে ভারতের বিপক্ষে।চির প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে দুই ম্যাচে হেরে আত্মবিশ্বাসের তলানিতে আছে পাকিস্তান। গ্রুপ পর্বে হেরেছে ৮ উইকেটে। সুপার ফোরে হারের ব্যবধানটা আরো বড়। ভারতে বিপক্ষে আজ পর্যন্ত সবচেয়ে বড় হার ৯ উইকেটে।বাংলাদেশর বিপক্ষে ম্যাচের আগে, কোচ মিকি আর্থার মনে করছেন,তাঁর দল এই মুহূর্তে আত্মবিশ্বাসের সংকটে ভুগছে।তাদের ভেতরে পরাজয় আর ব্যার্থতার ভয় ঢুকে গেছে।’

সমস্যা অবশ্য শুধু ফিল্ডিংয়েই নয়। কোচ বলছেন, ‘ব্যাটিংয়ে স্ট্রাইক রোটেট করাটা যথেষ্ট ভালো হচ্ছে না। বোলিংয়ে আমাদের দ্রুত উইকেট ফেলা দরকার ছিল। আমরা বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছি,  সেগুলো কাজে লাগাতে পারিনি।’

বুধবার বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে আর্থার বলেন, ‘এটা এখন সেমিফাইনাল। এই মুহূর্তে গর্ত থেকে বের হওয়ার উপায় খুঁজে বের করতে হবে আমাদের। আমরা এখান থেকে ঘুরে দাঁড়াব। বাঁচা-মরার ম্যাচে অবশ্যই আমাদের সেরাটা দিতে হবে।’ যদিও এশিয়া কাপে শেষ ওভারে আফগানদের হারিয়ে দারুন ভাবে চাঙ্গা এখন বাংলাদেশ দল বলে মনে করেন পাকিস্তানের কোচ আর্থার।

অবশ্য ম্যাচটা জেতার আশা ছাড়েননি পাকিস্তানের এই কোচ। তিনি আশা করছেন, বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় দিয়েই পাকিস্তান ফাইনাল খেলবে। অবশ্য কোচের এমন কথায় একমত নন পাকিস্তানের সাবেক আলরাউন্ডার ওয়াসিম আকরাম আর চলমান এশিয়া কাপের ধারাভাষ্যকার আরে রমিজ রাজা। রমিজ রাজা মনে করেন, বাংলাদেশ ভয়ংকর দল, চাপের ম্যাচগুলোতে দুর্দান্ত খেলে বাংলাদেশ, তাদের বিপক্ষে জিততে হলে পাকিস্তানকে মাঠে বিশেষ কিছু করে দেখাতে হবে।

এদিকে বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি আফগানদের বিপক্ষে জয়ের পরদিন জানালে, “৭২ ঘন্টায় তিনটা ওয়ানডে, দুবাইয়ের ৪৩ ডিগ্রী তাপমাত্রার গরম সাথে রাতের শিশির। সব মিলিয়ে অসহ্য অবস্থা।শিশিরেও প্রচন্ড ভাবে ঘাম ঝড়ছে, এরমাঝেই দুবাই-আবুধাবি-দুবাই জার্নি, একেবার বিশ্রামহীন, মাঠে আফগানদের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারছিলাম না। তারপরও কাউকে বুঝতে দেইনি, ওরা বুঝতে পারলে ওদেরও ক্লান্তি বেড়ে যাবে।মোস্তাফিজ তো একবার বলেই ফেলেছিলো আর পারছি না।সাহস দিয়ে মাঠে ধরে রেখেছিলাম। হাতে বল গ্রিপ করাই অসম্ভব হয়ে পরছিল। অনেকবার আমরা মাটিতে হাত ঘষেছি। লাভ বেশি হয়নি। সাকিবের কাজটাও কঠিন হয়ে পড়ছিল।”

মাশরাফি আরও জানান, ‘এমন অবস্থার মাঝে আফগানদের  বিপক্ষে জয়টা সবার ক্লান্তি অনেকটা ম্লান করেছে। দল আজ পুরো বিশ্রামে।পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় দিয়েই ফাইনালে খেলাটাই নিশ্চিত করতে চাই।পরিকল্পনা চলছে দুই একজন পরিবর্তন করে দল সাজানোর চিন্তা চলছে।’ দুইদিন বিশ্রাম সাথে হাল্কা অনুশীলন শেষে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা যথেষ্ট চাঙ্গা।পাকিস্তান দল যে কোন সময় বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে, তাদের প্রতি সমীহ দেখিয়ে মঙ্গলবার গনমাধ্যমের কাছে বাংলাদেশের কোচ স্টিভ রোডর্স বিশ্বাস করেন ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশই খেলবে।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের বিপক্ষে ২০১৫ সালে বাংলাদেশ তিন ম্যাচ সিরিজের সব কয়টা ম্যাচই জেতে। ভারতে আকাশ চোপরা ম্যাচে পাকিস্তানকে এগিয়ে রাখলেও সন্জয়মান্জেকার  মনে করেন বাংলাদেশই হবে ফাইনালে ভারতে প্রতিপক্ষ।ধারাভাষ্যকর আষ্ট্রেলিয়ার পেস বোলার লি মনে করেন বাংলাদেশ যথেষ্ট শক্তিশালী দল, সিনিয়র খেলোয়াড়রা জ্বলে উঠলেই জয়ের পাল্লাটা বাংলাদেশের দিকেই ভারী। ম্যাচটার প্রেসার যে দল বহন করতে পারবে বুধবার সেই দলই ফাইনাল খেলবে বলে মনে করেন তিনি।

ছবিঃ গুগল