একটুর জন্য হলো না…

আহসান শামীম

শেষ ওভারের নাটকীয়তায় বাংলাদেশকে ৩ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে এশিয়া কাপের শিরোপা জিতেছে ভারত। এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে র‍্যাঙ্কিংয়ে রেটিং পয়েন্ট হারিয়েছে বাংলাদেশ দল। তাদের মোট রেটিং পয়েন্ট ৯৩ থেকে ৯০ পয়েন্টে নেমে এসেছে। এই নিয়ে এশিয়া কাপের তিনবার ফাইনাল খেলেও বাংলাদেশ ছুঁতে পারলো না শিরোপা। এবারের এশিয়া কাপে সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন ভারতের শেখর ধাওয়ান। আর বোলিংয়ে সেরা বাংলাদেশের মুস্তাফিজ।

দীর্ঘদিন পর ১২০ রানের ওপেনিং পার্টনারশীপ করলেন বাংলাদেশের নতুন ওপেনিং জুটি মিরাজ আর লিটন দাশ।ওপেনিং ব্যাটসম্যান হিসাবে এটাই ছিল মিরাজের ক্যারিয়ারের প্রথম।লিটন দাশ ১১৭ বলে ১২২ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংস খেলে ফাইনালে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরুস্কার জয় করেন। এটাই জাতীয় দলে লিটনের প্রথম শতরান। অবশ্য লিটনের এমন শতরানের দিনে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা সঙ্গ দূরে থাক, উইকেট বিলিয়ে আসার প্রতিযোগিতায় মেতেছিলেন।ব্যাটিং বিপর্যস্ত বাংলাদেশের শক্তিশালী বোলিং এর কারনে জয়ের জন্য ভারতকে লড়াই করতে হয়েছে শেষ বল পর্যন্ত। ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বলেন অনন্ত এমন উইকেটে বাংলাদেশের ২৪০ থেকে ২৬০ রান করা উচিত ছিল।আর ভাল বোলিং হলেও ফিল্ডিংটা যথেষ্ট দূর্বলতার কারনে জয়টা ভারতে অনূকুলেই যায়।ভারতীয় সাবেক কিংবদন্তি ক্রিকেটার সুনীল গাভাস্কারের ভাষ্যও মাশরাফির মতই।তিনি মনে করেন এশিয়া ক্রিকেটে  ভারত আর বাংলাদেশ শক্তিশালী দল।

ভারতের সাবেক অধিনায়ক উইকেট কিপার ধোনির স্ট্যাপিংয়ে টিভি আম্পয়ারের দীর্ঘ সময়ের সিদ্ধান্তে সাজঘরে ফিরতে হয় লিটনকে। লিটনের  আউটকে বিতর্কিত আখ্যা দিয়েছে দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমও। আইসিসির রুলের ৩৯ ধারায় পরিস্কার উল্লেখ আছে অন দ্য লাইন হলে ব্যাটসম্যানরা আউট হবেন।থার্ড আম্পায়ার রুন্ডি টাকার অনেকবার ঘুরিয়ে ফিরিয়ে যে ভাবে বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে লিটনের স্ট্যাপিং দৃশ্যটি দেখেছেন, সেখানে কোন অ্যাঙ্গেল থেকে মনে হয়েছে লিটন আউট কখন আবার আউট মনে হয়নি। এক্ষেত্রে বেনিফিট অফ ডাউট লিটনের পক্ষে আসার কথা থাকলেও লিটনকে আউট দিলে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় ওঠে।

ইএসপিএনের ধারাভাষ্যকার সঞ্জয় মাঞ্জরেকার আর স্টার স্পোর্টসের ব্রেট লী ধারাভাষ্যে স্পষ্ট করে বলেন,“বেনিফিট অব ডাউট ব্যাটসম্যানের পক্ষে যাওয়া উচিত ছিল। যে আউটের সিদ্ধান্ত নিতে বারবার রিপ্লে দেখতে হয়, সেটা ব্যাটসম্যানের পক্ষে না যাওয়া কিছুটা বিস্ময়কর।” টিভি ও রেডিও’র সবখানে ধারাভাষ্যকরাই এর সমালোচনা করেন। স্মরনযোগ্য, থার্ড আম্পায়ার রুন্ডি টাকার ২০১৬ সালে ভারতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলাকালেই তাসকিন আহমেদের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ বলে রিপোর্ট করেছিলেন। ওই রিপোর্টের পরও তুমুল সমালোচনার মুখে পরেছিলেন তিনি। কারন আইসিসির রুলসে টুর্নামেন্ট চলাকালীন সময় কোন খেলোয়াড়ের বোলিং অ্যাকশনের ত্রুটি ধরা পরলে টুর্নামেন্ট চলাকালীন তাঁকে নিষিদ্ধ করার নিয়ম না থাকার পরও রুন্ডি টাকার তাসকিনকে টুর্নামেন্ট থেকে নিষিদ্ধ করেন।

ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের কৃতিত্ব অকপটে স্বীকার করে নেন ভারতের অধিনায়ক রহিত শর্মা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে টুইট করে ভারতের ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে লিখেছেন,‘বাংলাদেশ অসাধারণ ভাল খেলেছে যতটা সম্ভব ম্যাচটাকে গভীরে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এর জন্য অধিনায়কের অনেক বড় কৃতিত্ব রয়েছে। বাংলাদেশকে টুর্নামেন্টে বেশ দুর্বল দল বলে মনে হচ্ছিল, তবে তারা দারুণভাবে ফিরে এসেছে।’

ভারতের সাবেক ওপেনার আকাশ চোপড়া অধিনায়ক মাশরাফিকে নিয়ে প্রশংসা করেছেন টুইটারে। তার কাছে মনে হয়েছে ভারত ২৪২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেছে। আকাশ চোপড়া লিখেছেন,’মাশরাফির অধিনায়কত্বে মুগ্ধ হয়েছি আমি। ভারতকে তারা যেভাবে চেপে ধরেছিল তা সত্যি অসাধারণ ছিল। মনে হচ্ছিল তাদের লক্ষ্য ২২২ নয় ২৪২।’

ভারতের সাবেক মিডেল অর্ডার ব্যাটসম্যান,ধারাভাষ্যকার ভিভিএস লক্ষ্মণও টুইটারে লিখলেন,“’বাংলাদেশকে আমার হ্যাটস অফ। তাঁরা শেষ বল পর্যন্ত লড়াই করেছে, যা দেখে সত্যি মুগ্ধ হয়েছি আমি।’

ছবিঃ গুগল