কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার নিয়ে মাইক্রোসফট

000_hkg8843282-4b390161652-originalমাইক্রোসফট কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগকে শুধুমাত্র গেমিংয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে চায় না বরং মানুষের কল্যাণে এবং বড় পরিসরে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগাতে চায়। ‘মাইক্রোসফট ইগনাইট’ সম্মেলনে জানানো হয় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগিয়ে বিশ্বের সর্বোচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সুপারকম্পিউটার তৈরি করবে মাইক্রোসফট। ক্লাউডের মাধ্যমে যে কেউ এটি ব্যবহার করতে পারবেন। মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহী সত্য নাদেলা বলেন, ‘আমরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে গেমিংয়ের কাজে ব্যবহার করছি না। আমরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে ব্যবহার করে প্রত্যেকটি মানুষের কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করবো। যাতে আমাদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক সমস্যাগুলো দূর করা যায়। পৃথিবীকে কীভাবে আরো উন্নত করে তোলা যায় সেটাই হবে আমাদের প্রচেষ্টা।’ তিনি আরও জানান, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার চারটি ভিত্তি নিয়ে কাজ করবে মাইক্রোসফট। এগুলো হচ্ছে এজেন্টস, অ্যাপ্লিকেশন্স, সেবা ও অবকাঠামো। নিরাপত্তা ও বুদ্ধিমত্তাবিষয়ক প্রযুক্তি নিয়ে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ সম্মেলন হচ্ছে ‘মাইক্রোসফট ইগনাইট’। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের পেশাদার প্রযুক্তিবিদরা এই সম্মেলনে অংশ নিয়ে থাকেন। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে নতুন এই প্রকল্পকে স্বাগত জানিয়েছেন প্রযুক্তি গবেষকেরা।
তথ্য ও ছবিঃ ইন্টারনেট