#Me Too নিয়ে গোল টেবিল

জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত “বাংলাদেশে #মিটু আন্দোলনের সম্ভাবন ও চ্যালেঞ্জ নিয়ে আয়োজিত গোল টেবিল বৈঠকে বক্তারা বলেন, নারীদের কোনো ধরণের যৌন হয়রানীর ঘটনার তদন্তের জন্য অভিযুক্তদের কর্মবিরতিতে পাঠানো প্রতিষ্ঠানের নৈতিক দায়িত্ব। একই সঙ্গে তদন্ত কার্যক্রম ৪৫ দিনের বেশি হওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন নারী নেত্রীরা।  বৈঠকে আইন ও সালিশ কেন্দ্রে কর্মরত শীফা হাফিজ বলেন, সাহসীদের অভিনন্দন। তিনি বলেন, যারা তদন্ত কমিটি গঠন

যৌন হয়রানীর কাহিনী প্রকাশ্যে এনেছেন মুক্তা, শিশির ও লাইজু

করছেন তাদের একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে, কমিটিতে বাইরের প্রতিষ্ঠানের অন্তত দুইজনকে রাখতে হবে যাদের যৌন হয়রানি ইস্যু নিয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে। তিনি বলেন, ন্যায় বিচারকে যেন প্রভাবিত না করতে পারে সেজন্য তদন্ত চলাকালীন সময়ে অবশ্যই অভিযুক্তকে কাজ থেকে বিরত রাখতে হবে। এটি করতে প্রতিষ্ঠানগুলো বাধ্য না হলেও মানবিক দৃষ্টিকোন এবং সামাজিক দায়বদ্ধতাবোধ থেকে এই পদক্ষেপ নেয়া ওই প্রতিষ্ঠানের জন্য বাধ্যতামূলকও বটে।

অনুষ্ঠানে নারী অধিকার নিয়ে দীর্ঘদিন কাজ করা আইনজীবী সালমা আলী বলেন, প্রচলিত আইনেই এসব অভিযোগের প্রতিকার পাওয়া সম্ভব। তিনি বলেন, যেখানে প্রমাণ থাকা স্বত্ত্বেও অনেক অপরাধী পার পেয়ে যায়, সেখানে প্রমাণ ছাড়া অপরাধীরা পার পেতে চাইবেন এটাই স্বাভাবিক ঘটনা। কারণ আমরা জানি অপরাধ করে তা স্বীকার করার সংস্কৃতি আমরা এখনো তৈরি করতে পারিনি। কাজেই এটা আশা করা খুব কঠিন যে, ক্ষমতাধর পুরুষরা খুব সহজেই অপরাধ স্বীকার করবেন ও প্রকাশ্যে তার জন্য ক্ষমতা চইবেন। সুতরাং আমাদেরকে এমন পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে যাতে তারা সংশোধন হন, নিজের ভুল বুঝতে পারেন।  # মিটু মুভমেন্ট-বাংলাদেশ আয়োজিত গোল টেবিল বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ফাহমিদুল হক জানান, আমাদের সকলকে মুখ খুলতে হবে। সংগে নিতে হবে পুরুষদেরকেও। প্রতিষ্ঠানগুলোতে যৌন নিপীড়ন রোধে আলাদা একটি সেল গঠন করতে হবে যাতে নারীরা নির্বিঘ্নে তাদের কথা জানাতে পারেন এবং প্রতিকার পেতে পারেন এজন্য সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে।  তিনি বলেন, এটি শুধু পুরুষের মুখোশ উম্মোচনের আন্দোলন নয়। এটি হাজার বছরের তৈরি পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা তৈরি শৃঙ্খল ভাঙ্গার আন্দোলনও বটে।

গোল টেবিলে বৈঠকে মহিলা পরিষদের সভাপতি আয়েশা খানম বলেন, #মিটু নারী জাগরনের জন্য দৃষ্ঠান্তমূলক মাইলফলক। আগে কখনই ভিকটিম এবং অভিযুক্তের নাম বলা হতো না। আর এখন ভিকটিম নিজেই অভিযুক্তের নাম প্রকাশ করছে এটি একটি যুগান্তকারী পরিবর্তন। এই পরিবর্তন অত্যান্ত ইতিবাচক এবং আমি এজন্য সাহসীদের সাধুবাদ জানাই।

বৈঠকে নাট্য ব্যক্তিত্ব মাসুম রেজা বলেন, আমি জমজ কন্যা সন্তানের পিতা হিসেবে বলতে চাই। আমাদের জন্য। আমাদের মেয়েদের জন্য এ আন্দোলনটা আসলে সকলের হওয়া উচিত। এটা শুধু মেয়েদের আন্দোলন নয় এটা গোটা সিস্টেম ভাঙ্গার আন্দোলন।

অনুষ্ঠানে নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুল আরা হক মিনু বলেন, এটি কেবল গনমাধ্যমের বিষয় না। এটি আমাদের জাতীয় সমস্যা। এ সমস্যার সমাধানে আমাদের জাতীয়ভাবে কাজ করতে হবে। আমাদের অভিভাবক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী পর্যায়ে সচেতনতা বাড়াতে হবে।

অনুষ্ঠানের শুরতে জাকিয়া সুলতানা মুক্তা বলেন, আমরা যাদের শ্রদ্ধা করি তাদের এমন কদর্য একটা চেহারা আছে এটা জানানোর জন্যই আামি মুখ খুলেছি। যাতে অন্য মেয়েরা এমন লোকদের চিনতে পারেন। সবার জন্য জানিয়ে তিনি বলেন আবৃত্তি শিল্পী মাহিদুল কে বয়কট করেছে গোপালগঞ্জের সাংস্কৃতিক অঙ্গন। সুতরাং এটি একটি সমাজ সংস্কারের আন্দোলনও বলতে পারেন। তাসনুভা আনান শিশির বলেন, আমরা চাই, মেয়েদের চাকরি প্রয়োজন এটাকে যেন কেউ দুর্বলতা না মনে করে। এই দুর্বলতাকে পুজি করে ভোগের মানসিকতা রাখেন যারা তারা বিরাকগ্রস্থ সমাজের জন্য বোঝা। এদের চিহ্নিত করুন এবং বিতাড়িত করুন।

মরোনোত্তর পুরস্কার হলে মরোনোত্তর তিরস্কার নয় কেন? প্রশ্ন তুলে মুশফিকা লাইজু বলেন, ভবিষ্যতের কথা ভেবে আমি সাহস করেছি। কারণ কিছু দেবতাতুল্য মানুষের এমন কদর্য আচরণ কারো কারো জীবনের গতি থামিয়ে দেয়।

বাংলাদেশে # মিটু আন্দোলনের সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ বিষয়ক গোলটেবিল বৈঠকে আরো অংশ নেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক গীতিআরা নাসরিন, কুররাতুন তাহমনি মিতি (জৈষ্ঠ সাংবাদিক, প্রথম আলো), নাদিরা কিরণ (সিনিয়র সাংবাদিক, এটিএন বাংলা), উদিসা ইসলাম (বারÍা প্রধান, বাংলা ট্রিবিউিন), রোকসানা ইয়াসমিন তিথি সিনিয়র সাংবাদিক, বাসস), শারমীন রিনভী (সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ উইমেন জার্নালিস্ট ফোরাম), আইরিন নিয়াজী মান্না (সিনিয়র সাংবাদিক), রীতা নাহার (সিনিয়র প্রতিবেদক, বৈশাখী টেলিভিশন), ফাহমিদা হক (সিনিয়র সাংবাদিক, চ্যানেল আই), সেবিকা দেবনাথসহ সাংবাদিক ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেছেন অনলাইন নিউজ পোর্টাল দেশইনফো.কম.বিডির নির্বাহী সম্পাদক সাজেদা হক।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি